You are currently viewing তৃতীয় শ্রেণির ইসলাম চতুর্থ অধ্যায় কুরআন মজিদ শিক্ষা
তৃতীয় শ্রেণির ইসলাম চতুর্থ অধ্যায় কুরআন মজিদ শিক্ষা

তৃতীয় শ্রেণির ইসলাম চতুর্থ অধ্যায় কুরআন মজিদ শিক্ষা

তৃতীয় শ্রেণির ইসলাম চতুর্থ অধ্যায় কুরআন মজিদ শিক্ষা পোস্টে সকলকে স্বাগতম। এখানের ৩য় শ্রেণির ইসলাম ৪র্থ অধ্যায় কুরআন মজিদ শিক্ষা এর অনুশীলনীর প্রশ্নগুলোর উত্তর দেওয়া আছে। সেই সাথে অতিরিক্ত সংক্ষিপ্ত ও সৃজনশীল প্রশ্নউত্তর দেওয়া আছে।

৩য় শ্রেণির ইসলাম ৪র্থ অধ্যায় কুরআন মজিদ শিক্ষা

⇒ অধ্যায়টির মূলভাব জেনে নিই
কুরআন মজিদ আল্লাহপাকের সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ আসমানি কিতাব। এতে মানবজীবনের ভালো-মন্দের সব দিক সুন্দরভাবে উল্লেখ করা হয়েছে। কুরআন মজিদের ভাষা আরবি। বিশুদ্ধভাবে কুরআন তিলাওয়াত করা যাবে যদি আরবি হরফ ও মাদ্দ, গুন্নাহ শিখে নেওয়া যায়। আমরা এগুলো শিখে শুদ্ধভাবে কুরআন মজিদ তিলাওয়াতের চেষ্টা করব।

তৃতীয় শ্রেণির ইসলাম চতুর্থ অধ্যায় অনুশীলনীর প্রশ্ন ও উত্তর

১. সঠিক উত্তরে টিক (√) চিহ্ন দাও।
ক) কুরআন মজিদের ভাষা কী?
১. বাংলা ২. হিব্রæ
৩. ইংরেজি √ ৪. আরবি
খ) আরবি হরফ কয়টি?
১. ২৫টি √ ২. ২৯টি
৩. ৩০টি ৪. ৫০টি
গ) আরবিতে নুকতা ছাড়া হরফ কয়টি?
১. ১২টি √ ২. ১৪টি
৩. ১৭টি ৪. ১৮টি
ঘ) ‘যের’ চিহ্ন কোনটি?
১. ২.
√ ৩. ৪.
ঙ) হরকত কয়টি?
১. ৪টি ২. ৬টি
৩. ৫টি √ ৪. ৩টি
চ) মাদ্দের হরফ কয়টি?
১. ৪টি ২. ৬টি
৩. ৫টি √ ৪. ৩টি

২. শূন্যস্থান পূরণ কর :
ক. আরবি ভাষায় ___ টি অক্ষর আছে।
খ. আরবি পড়তে হয় ___ দিক থেকে।
গ. আরবি ___ টি হরফে কোনো নুকতা নেই।
ঘ. স্বরচিহ্নকে আরবি ভাষায় ___ বলে।
ঙ. আরবি শব্দের কোন হরফ দীর্ঘ করে টেনে পড়াকে ___ বলে।
চ. তোমাদের মধ্যে সে সবচেয়ে ___, যে কুরআন মজিদ ___ এবং অন্যকে তা ___।
উত্তর : ক. ২৯, খ. ডান, গ. ১৪, ঘ. হরকত, ঙ. মাদ্দ, চ. উত্তম, শেখে, শেখায়।

৩. সংক্ষিপ্ত উত্তর-প্রশ্ন :
ক. আরবি বর্ণমালা কয়টি?
উত্তর : আরবি বর্ণমালা ২৯টি।
খ. হরকত কাকে বলে?
উত্তর : আরবি লেখার সময় হরফের সাথে (যবর), (যের) ও (পেশ) এই তিনটি স্বরচিহ্ন ব্যবহার করা হয়। এই স্বরচিহ্নগুলোকে হরকত বলে।
গ. নুকতা কাকে বলে?
উত্তর : আরবি হরফের নিচে বা উপরে এক বা একাধিক ফোঁটা দেখা যায়। এই ফোঁটাকে নুকতা বলে।
ঘ. তানবীন কাকে বলে?
উত্তর : দুই যবর , দুই যের , দুই পেশ কে তানবীন বলে।
ঙ. কুরআন মজিদের ভাষা কী?
উত্তর : কুরআন মজিদের ভাষা আরবি।

৪. বর্ণনামূলক প্রশ্ন :
ক. আরবি হরফ কয়টি ও কী কী লেখ।
উত্তর : আরবি হরফ ২৯টি। যথা-
ح
হা ج
জিম ث
ছা ت
তা ب
বা ا
আলিফ
س
ছিন ز
যা ر
রা ذ
যাল د
দাল خ
খা
ع
আইন ظ
যোয়া ط
ত্বোয়া ض
দোয়াদ ص
সোয়াদ ش
শীন
م
মিম ل
লাম ك
কাফ ق
ক্বাফ ف
ফা غ
গাইন
ي
ইয়া ء
হামযাহ্ ه
হা و
ওয়াও ن
নূন
খ. নুকতা কাকে বলে? নুকতাযুক্ত ৫টি হরফ লেখ।
উত্তর : আরবি হরফের নিচে বা ওপরে এক বা একাধিক ফোঁটা দেখা যায়। এই ফোঁটাকে নুকতা বলে।
আরবি ১৪টি হরফের মধ্যে নুকতা আছে। ৫টি নুকতাযুক্ত হরফ হচ্ছে- ب ت ث ظ غ
গ. হরকত কাকে বলে? হরকত কয়টি? উদাহরণ দাও।
উত্তর : আমরা বাংলা লিখতে বর্ণের সাথে া, ,ি ু , ে ইত্যাদি চিহ্ন ব্যবহার করি। যেমন- ব + া = বা। এসব চি‎হ্নকে বলা হয় স্বরচিহ্ন। আরবি ভাষায় এরূপ স্বরচিহ্ন দেখা যায়। এগুলোকে বলা হয় হরকত। হরকত তিনটি। যথা : যবর , যের , পেশ ।
ঘ. কুরআন মজিদ পড়া সম্পর্কে মহানবি (স) কী বলেছেন?
উত্তর : কুরআন মজিদ পড়া সম্পর্কে মহানবি (স) বলেছেন, “তোমাদের মধ্যে সে সবচেয়ে উত্তম, যে কুরআন মজিদ শেখে এবং অন্যকে তা শেখায়”। আমরা কুরআন মজিদ শিখব এবং প্রতিদিন তিলাওয়াত করব।
ঙ. জযম কাকে বলে? উদাহরণ দাও।
উত্তর : আরবিতে এমন অনেক হরফ আছে যাতে যবর, যের, পেশ নেই। কিন্তু আগের হরফে যবর, যের, পেশ আছে। এই যবর, যের, পেশবিহীন হরফটি উচ্চারণের জন্য একটি চিহ্ন ব্যবহার করা হয়। এই চিহ্নটিকে ( ) জযম বলা হয়। জযমের অপর নাম সাকিন। যেমন-
মীম নুন যবর = মান
মীম নুন যের = মিন
মীম নুন পেশ = মুন
চ. তানবীন কাকে বলে? উদাহরণ দাও।
উত্তর : দুই যবর , দুই যের , দুই পেশ কে তানবীন বলে।
উদাহরণ :
مً মীম দুই যবর = মান
مٍ মীম দুই যের = মিন
مٌ মীম দুই পেশ = মুন
ছ. তাশদীদ কাকে বলে? উদাহরণ দাও।
উত্তর : আরবি ভাষায় কোনো হরফকে পাশাপাশি এক সাথে দুইবার উচ্চারণ করতে হলে ঐ হরফের উপর হরকতসহ এক বিশেষ চিহ্ন বসে। চিহ্নটি হলো এরূপ ( )। এই চিহ্নের নাম তাশদীদ। তাশদীদ দেখতে ছিন হরফের মাথার মতো।
তাশদীদযুক্ত হরফ দুইবার উচ্চারিত হয়।
যেমনÑ আলিফ মীম যবর আম, মীম যবর মা = আম্মা = اَمَّ = مَ + اَمْ
এখানে আরবি আম্মা শব্দের মীম-এর ওপর তাশদীদ।
জ. শব্দ কাকে বলে? কীভাবে শব্দ গঠন করা হয় উদাহরণ দাও।
উত্তর : পাশাপাশি দুই বা ততোধিক অক্ষর মিলে একটি শব্দ হয়। যেমনÑ ‘বই’ একটি শব্দ। এতে ব + ই, দুইটি অক্ষর আছে। কলম একটি শব্দ। এতে ক + ল + ম, তিনটি অক্ষর আছে।
আরবিতে এরূপভাবে কয়েকটি হরফ মিলে একটি শব্দ হয়। যেমনÑ
এখানে م + ل + ق তিনটি হরফ আছে।
এখানে ة + ك + ك + م চারটি হরফ আছে।
ঝ. সূরা আল ফাতিহা মুখস্থ বল।
উত্তর : বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
বাংলা উচ্চারণ : আলহামদু লিল্লাহি রাব্বিল আলামিন। আর রাহমানির রাহীম। মালিকি ইয়াওমিদ্দীন। ইয়্যাকা না’বুদু ওয়া ইয়্যাকা নাসতাঈন। ইহদিনাস সিরাতাল মুসতাকীম। সিরাতাল লাযীনা আন্আম্তা আলাইহিম। গাইরিল মাগদূবি আলাইহিম ওয়ালাদ্দললীন।
ঞ. সূরা আন নাস মুখস্থ বল।
উত্তর : বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
বাংলা উচচ্চারণ : কুল আউযু বিরাব্ব্নি নাস। মালিকিন্ নাস। ইলাহিন্ নাস। মিন্ র্শারিল্ ওয়াস্ওয়াসিল্ খান্নাস। আল্লাযী ইউওয়াসবিসু ফী সুদূরিন নাস্। মিনাল জিন্নাতি ওয়ান্ নাস।
ট. মাদ্দ কাকে বলে? মাদ্দের অক্ষর কয়টি লিখ।
উত্তর : আরবি শব্দের কোনো হরফ অল্প আবার কোনো হরফ দীর্ঘ করে টেনে পড়তে হয়। এই দীর্ঘ করে টেনে পড়াকে মাদ্দ বলে।
মাদ্দের হরফ ৩টি। যথা- ي, و, ا
এই তিনটি হরফের সাথে মাদ্দের চিহ্ন ব্যবহৃত হয়। যেমনÑ بِى – بُوْ – بَا
ঠ. সূরা আল ফালাক মুখস্থ বল।
উত্তর : বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
বাংলা উচ্চারণ : কুল আউযু বিরাব্বিল্ ফালাক। মিন্ র্শারি মা খালাক। ওয়া মিন্ র্শারি গাসিকিন ইযা ওয়াকাব। ওয়া মিন্ র্শারিন নাফ্ফাসাতি ফিল উকাদ। ওয়া মিন্ র্শারি হাসিদিন ইযা হাসাদ্।

৩য় শ্রেণির ইসলাম ৪র্থ অধ্যায় অতিরিক্ত প্রশ্ন ও উত্তর

⇒ শুদ্ধ/অশুদ্ধ নির্ণয়
১) কুরআন মজিদের ভাষা আরবি।
২) আরবি পড়তে হয় ডান দিক থেকে।
৩) তাশদীদ দেখতে মীম হরফের মাথার মতো।
৪) মাদ্দের হরফ চারটি।
৫) সূরা আল ফালাক মদিনায় অবতীর্ণ হয়।
উত্তর : ১) ‘শু’ ২) ‘শু’ ৩) ‘অ’ ৪) ‘অ’ ৫) ‘শু’

⇒ বাম অংশের সাথে ডান অংশ মিলকরণ
বাম ডান
ক) আরবিতে আছে ডান দিক থেকে।
খ) আরবি পড়তে হয় ঊনত্রিশটি অক্ষর।
গ) আরবি হরফের নাম সাকিন।
ঘ) জযমের অপর তিনটি।
ঙ) মাদ্দের হরফ ১৫টিতে নুকতা আছে।
উত্তর :
ক) আরবিতে আছে ঊনত্রিশটি অক্ষর।
খ) আরবি পড়তে হয় ডান দিক থেকে।
গ) আরবি হরফের ১৫টিতে নুকতা আছে।
ঘ) জযমের অপর নাম সাকিন।
ঙ) মাদ্দের হরফ তিনটি।

⇒ শূন্যস্থান পূরণ
ক) কুরআন মজিদ আল্লাহর ___।
খ) কুরআন মজিদের ভাষা ___।
গ) আরবি পড়তে হয় ___ দিক থেকে।
ঘ) আরবি ___ টি হরফে কোনো নুকতা নেই।
ঙ) এক যবর, এক যের, এক পেশকে ___ বলে।
চ) দুই যবর, দুই যের, দুই পেশকে ___ বলে।
ছ) ___ চিহ্নটিকে সাকিন বলে।
জ) তাশদীদ দেখতে ___ হরফের মাথার মতো।
ঝ) মাদ্দের হরফ ___ টি।
ঞ) দীর্ঘ করে ___ পড়াকে মাদ্দ বলে।
উত্তর : ক) কালাম খ) আরবি গ) ডান ঘ) ১৪টি ঙ) হরকত চ) তানবীন ছ) জ) ছিন ঝ) ৩ ঠ) টেনে।

সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর

১. কুরআন মজিদ তিলাওয়াত করতে হলে আমাদেরকে প্রথমে কী শিখতে হবে?
উত্তর : কুরআন মজিদ তিলাওয়াত করতে হলে আমাদেরকে প্রথমে আরবি ২৯টি হরফ ভালোভাবে শিখতে হবে।
২. কুরআন মজিদ কার কালাম?
উত্তর : কুরআন মজিদ আল্লাহর কালাম।
৩. কুরআন মজিদের ভাষা কী? আরবিতে কয়টি হরফ আছে।
উত্তর : কুরআন মজিদের ভাষা আরবি। আরবিতে ২৯টি হরফ আছে।
৪. আরবি পড়তে হয় কোন দিক থেকে?
উত্তর : আরবি পড়তে হয় ডান দিক থেকে।
৫. মাদ্দের হরফ কয়টি ও কী কী?
উত্তর : মাদ্দের হরফ তিনটি। যথা- (আলিফ) ا, (ওয়াও)و , (ইয়া)ي ।
৬. তাশদীদ দেখতে কীরূপ?
উত্তর : তাশদীদ দেখতে আরবি ‘ছিন’ হরফের মাথার মতো। চিহ্নটি এরূপ।
৭. সূরা আল ফাতিহা কোথায় অবতীর্ণ হয়েছে?
উত্তর : সূরা আল ফাতিহা মক্কায় অবতীর্ণ হয়েছে।
৮. সূরা আল ফাতিহার আয়াত সংখ্যা কত?
উত্তর : সূরা আল ফাতিহার আয়াত সংখ্যা ৭।
৯. সূরা আল ফালাক কোথায় অবতীর্ণ হয়েছিল?
উত্তর : সূরা আল ফালাক মদিনায় অবতীর্ণ হয়েছিল।
১০. সূরা আল ফালাক কুরআনের কততম সূরা?
উত্তর : সূরা আল ফালাক কুরআনের ১১৩তম সূরা।
১১. সূরা আল ফালাকে কয়টি রুকু আছে?
উত্তর : সূরা আল ফালাকে ১টি রুকু আছে।
১২. সূরা আল ফালাকের আয়াত সংখ্যা কত?
উত্তর : সূরা আল ফালাকের আয়াত সংখ্যা ৫।
১৩. সূরা আন নাস কোথায় অবতীর্ণ হয়?
উত্তর : সূরা আন নাস মদিনায় অবতীর্ণ হয়।
১৪. সূরা আন নাস-এর আয়াত কয়টি?
উত্তর : সূরা আন নাস-এর আয়াত সংখ্যা ৬।

কাঠামোবদ্ধ প্রশ্ন ও উত্তর

 সাধারণ
১. কুরআন মজিদের পরিচয় দাও। আমরা কেন এর অনুসরণ করব?
উত্তর : কুরআন মজিদ হলো মহান আল্লাহপাকের বাণী। এটি নাজেল হয়েছে সর্বশেষ নবি হযরত মুহাম্মদ (স) এর ওপর। কুরআন মজিদ হলো আল্লাহপাকের পক্ষ থেকে সর্বশেষ আসমানি কিতাব। এটি মানুষের জন্য পরিপূর্ণ জীবনব্যবস্থা। এর অনুসরণ করলে আমরা ইহকালে পাব শান্তি আর আখিরাতে পাব মুক্তি।
২. সূরা আল ফাতিহার বাংলা অনুবাদ লেখ।
উত্তর : সূরা আল ফাতিহার বাংলা অনুবাদ-
দয়াময়, পরম দয়ালু আল্লাহর নামে।
১. সকল প্রশংসা সমগ্র বিশ্বের প্রতিপালক আল্লাহরই।
২. যিনি দয়াময়, পরম দয়ালু।
৩. বিচার দিনের মালিক।
৪. আমরা তোমারই ইবাদত করি এবং তোমারই সাহায্য চাই।
৫. আমাদেরকে সরল পথ প্রদর্শন করো।
৬. তাঁদেরই পথে যাঁদের তুমি অনুগ্রহ করেছ।
৭. তাদের পথে না, যারা অভিশপ্ত ও পথভ্রষ্ট।
৩. সূরা আন নাসের বাংলা অর্থ লেখ।
উত্তর : সূরা আন নাসের বাংলা অর্থ নিচে দেওয়া হলো।
দয়াময়, পরম দয়ালু আল্লাহর নামে।
১. (হে মুহাম্মদ!) আপনি বলুন, আমি আশ্রয় চাচ্ছি মানুষের প্রতিপালকের কাছে।
২. মানুষের অধিপতির কাছে।
৩. মানুষের ইলাহের কাছে।
৪. সদা পলায়মান শয়তানের কুমন্ত্রণার অনিষ্ট হতে।
৫. যে (শয়তান) মানুষের অন্তরে কুমন্ত্রণা দেয়।
৬. জিনের মধ্য হতে এবং মানুষের মধ্য হতে।
 যোগ্যতাভিত্তিক
৪. – হরফটি এবং এর ওপরে থাকা চিহ্নের নাম কী? চিহ্নটি থাকায় হরফটির উচ্চারণ কী হবে?
উত্তর : হরফটির নাম ছিন এবং এর ওপরে থাকা চিহ্নের নাম যবর। যবর থাকায় হরফটির উচ্চারণ হবে- ছা।

প্রিয় জনের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply