অষ্টম শ্রেণির শারীরিক শিক্ষা জীবনের জন্য খেলাধুলা

পঞ্চম অধ্যায়
জীবনের জন্য খেলাধুলা

 খেলাধুলার জন্য প্রয়োজনীয় প্রতিষ্ঠানিক ও অবকাঠামোগত সুবিধা : শারীরিক শিক্ষার ব্যবহারিক দিক হচ্ছে খেলাধুলা। খেলাধুলার কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য সুপরিকল্পিত প্রতিষ্ঠানিক ব্যবস্থাপনা ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন খুবই জরুরি। এজন্য স্থানীয়ভাবে স্টেডিয়াম, সুইমিংপুুল নির্মাণ ও খেলার মাঠের উন্নয়ন করতে হবে। সেই সাথে বিদ্যালয়গুলোতে মানসম্মত ক্রীড়া সামগ্রীর সরবরাহের ব্যবস্থা করতে হবে।
 ব্যাডমিন্টন : ১৮৭০ সালে ভারতের পুনায় প্রথম ব্যাডমিন্টন খেলা শুরু হয়েছিল। জনৈক ইংরেজ সৈনিক কর্তৃক এই খেলা ভারত থেকে ইংল্যান্ডে নিয়ে যাওয়ার আগে তেমন জনপ্রিয় ছিল না। ১৯৩৪ সালে ওহঃবৎহধঃরড়হধষ ইধফসরহঃড়হ ঋবফবৎধঃরড়হ (ও.ই.ঋ) ইংল্যান্ডের সিলটেন হামে প্রতিষ্ঠিত হয়। ব্যাডমিন্টন খেলা ভালোভাবে আয়ত্ত করতে হলে প্রয়োজন হাত ও কব্জির নমীয়তা এবং পায়ের কাজ।
 বাস্কেটবল : বাস্কেটবল খেলার প্রথম প্রচলন হয় ১৮৮১ সালে আমেরিকায়। এ খেলার জনক হলেন আমেরিকার ¯িপ্রং ফিল্ডে ওয়াই.এম.সি.এ কলেজের শারীরিক শিক্ষার পরিচালক ড. জেমস নেইসমিথ। ১৯৩২ সালে জর্মানিতে আন্তর্জাতিক বাস্কেটবল সংস্থা (ঋওইঅ) গঠিত হয়। বাস্কেটবল খেলতে হলে দরকার দম, দৌড়াবার ও জাম্প দেওয়ার ক্ষমতা এবং সেই সাথে শারীরিক ক্ষিপ্রতা।
 হকি : ১৯২৪ সালে আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশন গঠিত হয়। অলিম্পিকে পুরুষদের হকি ১৯০৮ সালে এবং মহিলাদের হকি ১৯৮০ সালে প্রথম অন্তর্ভুক্ত হয়। ১৯৫৮ সালে এশিয়ান গেমসে হকি অন্তর্ভুক্ত হয়। প্রথম বিশ্বকাপ হকি প্রতিযোগিতা শুরু হয় ১৯৭১ সালে।
 সাঁতার : সুইমিং শব্দ ইংরেজি সুইমিন থেকে এসেছে। ১৮৩৭ সালে লন্ডনে প্রথম প্রতিযোগিতামূলক সাঁতার অনুষ্ঠিত হয়। ১৯০৮ সালে সাঁতারের আন্তর্জাতিক সংস্থা ঋওঘঅ গঠিত হয়। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশন প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতামূলক সাঁতার চার প্রকার। যথা : ক. মুক্ত সাঁতার, খ. চিৎ সাঁতার, গ. বুক সাঁতার ও ঘ. প্রজাপতি সাঁতার।
 অ্যাথলেটিকস : খেলাধুলার ক্ষেত্রে দৌড়, ঝাঁপ ও নিক্ষেপকে এক কথায় অ্যাথলেটিক্স বলা হয়। ১৯১২ সালে ইন্টারন্যাশনাল অ্যামেচার অ্যাথলেটিকস ফেডারেশন এবং ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ অ্যামেচার অ্যাথলেটিক ফেডারেশন গঠিত হয়।

১. ভায়োলেশন কোন খেলার সাথে সম্পৃক্ত?
ক ভলিবল খ হ্যান্ডবল  বাস্কেটবল ঘ ফুটবল
২. লে-আপ শুট কোন খেলার একটি কৌশল?
ক ভলিবল খ হ্যান্ডবল  বাস্কেটবল ঘ ফুটবল
৩. দৌড়ের ক্ষেত্রে সমাপ্তি রেখায় কোনটি স্পর্শ করতে হয়?
ক হাত খ পা  টর্সো ঘ কপাল
৪. সাঁতারের আন্তর্জাতিক সংস্থার নাম কোনটি?
ক ঋওঋঅ খ ইঐঋ  ঋওঘঅ ঘ ওঐঋ
৫. কোন সাঁতারের হাতের কাজ ইংরেজি ‘ঝ’ বর্ণের মতো?
 মুক্ত খ প্রজাপতি গ চিৎ ঘ বুক
৬. গোলক নিক্ষেপে একজন প্রতিযোগী সুযোগ হারাবে যদি-
র. স্টপ বোর্ডের উপরিভাগ স্পর্শ করে
রর. বৃত্তের সামনের অংশ দিয়ে বের হয়
ররর. নাম ডাকার ৬০ সেকেন্ডের মধ্যে গোলক নিক্ষেপ করে
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
নিচের চিত্রটি লক্ষ কর এবং ৭ ও ৮ নং প্রশ্নের উত্তর দাও :

৭. উপরের চিত্রটি কোন খেলার ইঙ্গিত বহন করে?
 জেভলিন খ পোলভল্ট
গ শটপুট ঘ ট্রিপল জাম্প
৮. উক্ত খেলায় একজন প্রতিযোগী অকৃতকার্য হওয়ার কারণ-
র. সেক্টর লাইন স্পর্শ বা বাইরে যাওয়া
রর. আর্কের দাগ স্পর্শ করা
ররর. রানওয়ের নির্দিষ্ট রেখার বাইরের ভ‚মি স্পর্শ করা
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
নিচের চিত্রটি লক্ষ কর এবং ৯ ও ১০ নং প্রশ্নের উত্তর দাও :

৯. উল্লেখিত চিত্রটি কোন খেলার সাথে সম্পৃক্ত?
ক লন টেনিস  ব্যাডমিন্টন গ টেবিল টেনিস ঘ ভলিবল
১০. উক্ত খেলা ভালোভাবে আয়ত্ত করতে হলে প্রয়োজনÑ
র. হাতের নমনীয়তা রর. সঠিক গ্রিপ
ররর. ভালো ফুটওয়ার্ক
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
নিচের উদ্দীপকটি পড়ে ১১ ও ১২ নং প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
অ, ই ও ঈ তিন ধরনের খেলার মাঠের আকার

১১. অ চিহ্নিত চিত্রটি কোন খেলার মাঠকে নির্দেশ করে?
 ব্যাডমিন্টন খ হ্যান্ডবল গ বাস্কেটবল ঘ হকি
১২. নিচের কোন কৌশলটি ই ও ঈ উভয় খেলার জন্য প্রযোজ্য?
 ড্রিবলিং খ লে-আপ শুট গ স্ম্যাশ ঘ সার্ভিস
নিচের উদ্দীপকটি পড়ে ১৩ ও ১৪ নং প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
খেলার ধরণ তালিকাভুক্ত খেলোয়াড় সংখ্যা অংশগ্রহণকারী খেলোয়াড় সংখ্যা
অ ১২ ৫
ই ১২ ৭
১৩. চিত্রে ‘ই’ কোন খেলাকে নির্দেশ করে?
ক ব্যাডমিন্টন  হ্যান্ডবল গ বাস্কেটবল ঘ হকি
১৪. কোন কৌশলটির প্রয়োগ উভয় খেলায় দেখা যায়?
ক স্ম্যাশ খ সার্ভিস গ লে-আপ শুট  ড্রিবলিং

১৫. নিচের কোন দৌড় ট্র্যাক ইভেন্টের অন্তর্ভুক্ত নয়?
 পোল ভল্ট খ স্বল্প দূরত্বের
গ মধ্য দূরত্বের ঘ দীর্ঘ দূরত্বের
১৬. কোথায় সর্বপ্রথম প্রতিযোগিতামূলক সাঁতার অনুষ্ঠিত হয়?
ক মস্কো খ নিউইয়র্ক  লন্ডন ঘ বার্লিন
১৭. ‘শ্যুটিং সার্কেল’ শব্দটি কোন খেলার সাথে সম্পর্কযুক্ত?
 হকি খ ভলিবল গ হ্যান্ডবল ঘ সাঁতার
১৮. ১৪ বছরের ঊর্ধ্বে মহিলাদের জন্য হ্যান্ডবলের ওজন কত গ্রাম?
ক ২২৫২৭৫ খ ২৫০৩০০ গ ৩০৫৩২৫  ৩২৫৩৭৫
১৯. হকি খেলার মৌলিক কৌশল কোনটি?
 স্টপিং খ গোল কিপিং
গ গোলে কিক করা ঘ স্টিক নিয়ে দৌড়ানো
২০. ব্যাডমিন্টন একক ও দ্বৈত খেলার কোর্টের পরিমাপ কত?
ক ৪০  ১৭ ও ৪৪  ১৭ খ ৪৪  ২০ ও ৪০  ১৭
 ৪৪  ১৭ ও ৪৪  ২০ ঘ ৪০  ২০ ও ৪৪  ২০
২১. এক জায়গায় দাঁড়ানো অবস্থায় যে শুট করা হয় তাকে
 সেট শুট বলে খ জাম্প শুট বলে
গ লে-অপ শুট বলে ঘ পেনাল্টি শুট বলে
২২. হ্যান্ডবল খেলায় বল পার্শ্বরেখা অতিক্রম করলে পুনঃখেলা আরম্ভ হবে
 পার্শ্বরেখায় এক পা রেখে থ্রো ইনের মাধ্যমে
খ কোর্টের ভিতর থেকে বল নিক্ষেপ করে
গ কোর্টের বাহির থেকে জাম্প শুট করে
ঘ সেন্টার লাইন থেকে থ্রো করে
২৩. মন ও শরীর গঠনের অন্যতম উৎস কোনটি?
ক বই পড়া  খেলাধুলা
গ ঘুমানো ঘ ফাস্টফুড খাওয়া
২৪. এক পা একস্থানে রেখে অন্য পা ঘুরানোকে কি বলে?
ক পাসিং খ ড্রিবলিং গ মুভিং  পিভটিং
২৫. ব্যাডমিন্টন খেলায় সার্ভিসের সময় অবশ্যই কী করতে হবে?
ক লম্বা সার্ভিস করতে হবে
খ বুকের নিচ থেকে সার্ভিস করতে হবে
 দু’পা মাটিতে স্পর্শ করতে হবে
ঘ এক পা উঁচুতে এবং এক পা ভ‚মিতে থাকতে হবে
২৬. ব্যাডমিন্টন একক কোর্টের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত?
ক ৩৮ ফুট ও ১৪ ফুট খ ৪০ ফুট ও ১৬ ফুট
গ ৪২ ফুট ও ১৮ ফুট  ৪৪ ফুট ও ১৭ ফুট
২৭. লে-আপ শুট কোন খেলার সাথে সম্পৃক্ত?
 বাস্কেটবল খ হ্যান্ডবল
গ হকি ঘ ভলিবল
২৮. কোন সাঁতার পানিতে নেমে হাতল ধরে আরম্ভ করতে হয়?
ক মুক্ত সাঁতার খ প্রজাপতি সাঁতার
 চিৎ সাঁতার ঘ বুক সাঁতার
২৯. হ্যান্ডবল খেলায় বিপক্ষ দলকে ফ্রি থ্রো দেওয়া হয়
র. গোলরক্ষক নিয়ম ভঙ্গ করলে
রর. ত্রæটিপূর্ণ থ্রো-ইন করলে
ররর. ত্রæটিপূর্ণ থ্রো-অফ করলে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ৩০ ও ৩১ নং প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
রবিন তার স্কুলের হকি দলে নিয়মিত খেলে। আন্তঃস্কুল হকি প্রতিযোগিতায় বিপক্ষ দলের একজন খেলোয়াড় তার দলের ২৩ মিটারের মধ্যে ঢুকে তাকে চার্জ করলে আম্পায়ার ফ্রি হিট ঘোষণা করেন।
৩০. হকি খেলায় কয়জন আম্পায়ার খেলা পরিচালনা করেন?
 ২ খ ৩ গ ৪ ঘ ৫
৩১. রবিন যেভাবে ফ্রি হিট দিবে
র. বলটি অবশ্যই স্থির রাখবে রর. বলটি ইচ্ছাকৃতভাবে উঠিয়ে খেলবে
ররর. বলটি পুশ বা হিট করবে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর  র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ৩২ ও ৩৩ নং প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
ছাত্রজীবনে আমলগীর সাহেব একজন নামকরা এ্যাথলেট ছিলেন। একদিন তিনি তার অষ্টম শ্রেণি পড়–য়া একমাত্র ছেলে আবদুল্লাহকে নিয়ে জাতীয় এ্যাথলেটিক মিট দেখতে স্টেডিয়ামে গেলেন। এ্যাথলেটিক্সের বিভিন্ন ইভেন্ট দেখে আবদুল্লাহ খুব আনন্দ এবং উত্তেজনা অনুভব করলো এবং সে দেশের একজন ভাল দৌড়বিদ হবে বলে তার বাবার কাছে আগ্রহ প্রকাশ করলো।
৩২. আলমগীর সাহেব কোন খেলায় পারদর্শী ছিলেন?
ক ফুটবল  এ্যাথলেটিক্স গ ভলিবল ঘ বাস্কেটবল
৩৩. একজন ভাল দৌড়বিদ হতে হলে কী প্রয়োজন?
র. প্রতুষে ঘুম থেকে উঠা রর. ভাল খাবার খাওয়া
ররর. মাঠে গিয়ে দৌড়ানো
রা. নিয়মতান্ত্রিক কঠোর অনুশীলন
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও রা  ররর ও রা ঘ রা
নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ৩৪ ও ৩৫ নং প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
শাহিন তাঁর স্কুলের বাস্কেটবল দলের অধিনায়ক। একজন দক্ষ খেলোয়াড় হিসেবে সে চমৎকার ড্রিবলিং করতে পারে। ড্রিবলিং করতে সে হাতের আঙ্গুলগুলোকে বলের উপর ছড়িয়ে নিচের দিকে হালকাভাবে ধাক্কা দেয়। ফলে বল উপরের দিকে উঠে। এতে বল ধরতে ও নিয়ন্ত্রণ করতে সহজ হয়।
৩৪. ড্রিবলিং করার সময় শাহিন বলটিতে হাতের কয়টি আঙ্গুল ব্যবহার করে?
ক ৩টি খ ৪টি  ৫টি ঘ ১০টি
৩৫. বাস্কেটবল খেলায় ড্রিবলিং কী?
র. খেলার সৌন্দর্য বাড়ায় রর. বল নিয়ন্ত্রণ করার পদ্ধতি
ররর. একটি কৌশল
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর  রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর

ভ‚মিকা
 সাধারণ বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
৩৬. শরীর ও মনের যৌথ বোঝাপড়ার ওপর কী নির্ভর করে? (জ্ঞান)
ক বর্তমান জীবনের সুখ-সমৃদ্ধি  ভবিষ্যৎ জীবনের সুখ-সমৃদ্ধি
গ ভবিষ্যৎ সমস্যা মোকাবিলার উপায় ঘ ভবিষ্যৎ বিকাশের পথ
৩৭. রিয়ান অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে। তার শরীর ও মন সতেজ রাখতে তার মা-বাবা তাকে কীসের সুযোগ করে দিবেন? (প্রয়োগ)
ক উচ্চ শিক্ষা লাভের  নিয়মিত খেলাধুলা করার
গ নিয়মিত ফাস্ট ফুড গ্রহণের ঘ প্রতিদিন দীর্ঘ সময় বিশ্রামের
৩৮. পরাজয়ের গøানিকে সহজভাবে মেনে নিতে কোনটি আবশ্যক? (অনুধাবন)
ক দুর্বল মানসিকতা খ সবল মানসিকতা
 দুর্লভ মানসিকতা ঘ প্রচণ্ড শক্তি
৩৯. জীবনকে পরিচ্ছন্ন, গতিময় ও সাবলীল করার অন্যতম মাধ্যম নিচের কোনটি? [রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ, ঢাকা]
ক অর্থ সম্পদ খ আত্মমর্যাদা গ বিশ্রাম  খেলাধুলা
 বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
৪০. খেলাধুলার উপকারিতা হলোÑ (অনুধাবন)
র. শরীর ভালো থাকে রর. মন সতেজ থাকে
ররর. বিকাশের পথ সুগম হয়
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
৪১. খেলাধুলার মাধ্যমে মানুষ খুঁজে পায় [আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ, মতিঝিল, ঢাকা]
র. জীবন বিকাশের পথ
রর. শরীরচর্চার অনুপ্রেরণা
ররর. জীবন সংগ্রামের দৃঢ় মনোবল
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর  র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
৪২. মাহি নিয়মিত খেলাধুলায় অংশগ্রহণ করে। এর মাধ্যমে সে অর্জন করেÑ (প্রয়োগ)
র. শারীরিক গুণাবলি রর. মানসিক গুণাবলি ররর. সামাজিক গুণাবলি
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
পাঠ-১ : খেলাধুলার জন্য প্রয়োজনীয় প্রাতিষ্ঠানিক ও অবকাঠামোগত সুবিধা
 সাধারণ বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
৪৩. কোনটি ছাড়া ক্রীড়া উন্নয়ন একেবারেই অসম্ভব? [যশোর জিলা স্কুল]
ক পারিবারিক উদ্যোগ খ বেসরকারি উদ্যোগ
গ সাংগঠনিক ব্যবস্থাপনা  প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থাপনা
৪৪. শারীরিক শিক্ষার ব্যবহারিক দিক কোনটি? [জ্ঞান]
ক শিক্ষা  খেলাধুলা গ সাঁতার ঘ শরীরচর্চা
৪৫. সরকারিভাবে বিদ্যালয়গুলোতে কয় সেশনে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা আয়োজনের ব্যবস্থা রয়েছে? (জ্ঞান)
ক এক  দুই গ তিন ঘ চার
৪৬. শিক্ষার্থীরা খেলাধুলার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়ে বেড়ে ওঠলে হুমকির সম্মুখীন হবে কোনটি? (জ্ঞান)
 জাতীয় স্বাস্থ্য খ মানসিক স্বাস্থ্য
গ জাতীয় মেধাসম্পদ ঘ জাতীয় অর্থনীতি
৪৭. খেলাধুলার উন্নয়নে বিদ্যালয়গুলোতে কী সরবরাহ করতে হবে? (জ্ঞান)
ক প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ক্রীড়া শিক্ষক  ভালো ক্রীড়া সরঞ্জামাদি
গ অত্যাধুনিক ক্রীড়া সরঞ্জামাদি ঘ শারীরিক শিক্ষার বই
 বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
৪৮. ক্রীড়া উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন (অনুধাবন)
র. সুপরিকল্পিত ব্যবস্থাপনা রর. প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থাপনা
ররর. অবকাঠামোগত উন্নয়ন
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
৪৯. সরকারিভাবে বিদ্যালয়ে ক্রীড়া অনুষ্ঠানের আয়োজনের ব্যবস্থা রয়েছে- (অনুধাবন)
র. গ্রীষ্মকালীন সেশনে রর. বর্ষাকালীন সেশনে ররর. শীতকালীন সেশনে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর  র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
৫০. জাবেদ শফিপুর উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে। খেলাধুলায় কাক্সিক্ষত মান অর্জনে তাদের বিদ্যালয়ে প্রয়োজন- (প্রয়োগ)
র. খেলার মাঠ রর. সুইমিংপুল ররর. উন্নতমানের ক্রীড়া সরঞ্জাম
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
৫১. খেলাধুলায় উন্নতির জন্য স্থানীয়ভাবে ব্যবস্থা করতে হবেÑ (অনুধাবন)
র. স্টেডিয়াম নির্মাণের রর. সুইমিংপুল নির্মাণের
ররর. ভালো ক্রীড়া সরঞ্জামাদি সরবরাহে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
পাঠ-২ : ব্যাডমিন্টন
 সাধারণ বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
৫২. কত সালে প্রথম ব্যাডমিন্টন খেলা শুরু হয়েছিল?
 ১৮৭০ খ ১৯৩৪ গ ১৯৫৯ ঘ ১৯৬৬
৫৩. কোথায় প্রথম ব্যাডমিন্টন খেলা শুরু হয়েছিল? [যশোর জিলা স্কুল; খুলনা জিলা স্কুল]
ক ইংল্যান্ডের গøুকোস্ট্রাশায়ারে  ভারতের পুনায়
গ আমেরিকার স্প্রিং ফিল্ডে ঘ যুক্তরাষ্ট্রের ডেটোনা বিচে
৫৪. কীসের নাম থেকে ব্যাডমিন্টন খেলার নামের উৎপত্তি হয়? (জ্ঞান)
ক মানুষের  গ্রামের গ জন্তুর ঘ শহরের
৫৫. ওইঋ -এর পূর্ণ রূপ কী? (জ্ঞান)
 ওহঃবৎহধঃরড়হধষ ইধফসরহঃড়হ ঋবফবৎধঃরড়হ
খ ওহঃবৎহধষ ইধফসরহঃড়হ ঋবফবৎধঃরড়হ
গ ওহঃবৎহধঃরড়হধষ ইড়ফু ইঁরষফবৎ ঋবফবৎধঃরড়হ
ঘ ওহঃবৎহধঃরড়হধষ ইধফসরহঃড়হ ঋঁহফ
৫৬. ওইঋ কত সালে গঠিত হয়? [বিদ্যাময়ী গভ. গার্লস হাই স্কুল, ময়মনসিংহ]
ক ১৯৩০  ১৯৩৪ গ ১৯৪০ ঘ ১৯৪৪
৫৭. ইধহমষধফবংয ইধফসরহঃড়হ ঋবফবৎধঃরড়হ কত সালে গঠন করা হয়? ইঞ্জিনিয়ারিং ইউনিভারসিটি স্কুল এন্ড কলেজ, ঢাকা।
ক ১৯৩৪ খ ১৯৬৬  ১৯৭১ ঘ ১৯৮৪
৫৮. অইঋ -এর পূর্ণ রূপ কী? [ঝিনাইদহ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়]
ক অংরধহ ইধফসরহঃরড়হ ঋঁহফ
খ অংরধহ ইধফসরহঃরড়হ ঋরবষফ
 অংরধহ ইধফসরহঃরড়হ ঋবফধৎধঃরড়হ
ঘ অৎধনরধহ ইধফসরহঃরড়হ ঋবফবৎধঃরড়হ
৫৯. অংরধহ ইধফসরহঃরড়হ ঋবফধৎধঃরড়হ-গঠিত হয় কত সালে?
[সাতক্ষীরা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়]
 ১৯৫৯ সালে খ ১৯৩৪ সালে গ ১৮৭০ সালে ঘ ১৯৭১ সালে
৬০. কত সালে এশিয়ান গেমসে ব্যাডমিন্টন খেলা অন্তর্ভুক্ত হয়? [খুলনা জিলা স্কুল]
ক ১৯৭০ সালে  ১৯৬৬ সালে গ ১৮৯০ সালে ঘ ১৮৯৬ সালে
৬১. ব্যাডমিন্টন খেলার কোর্ট কয় ধরনের? [খুলনা জিলা স্কুল]
 ২ খ ৩ গ ৪ ঘ ৫
৬২. ব্যাডমিন্টন খেলার নেটটি কতফুট চওড়া হয়? (জ্ঞান)
ক ১.৫ খ ২.০  ২.৫ ঘ ৩.০
৬৩. ব্যাডমিন্টন খেলায় কোর্টের মাঝখানের নেটের উচ্চতা কত? (জ্ঞান)
ক ৪ ফুট  ৫ ফুট গ ৬ ফুট ঘ ৭ ফুট
৬৪. ব্যাডমিন্টন খেলায় শাটল ককের পালক থাকে কয়টি? (জ্ঞান)
ক ১৩-১৪  ১৪-১৬ গ ১৫-১৬ ঘ ১৬-১৭
৬৫. ব্যাডমিন্টন খেলায় লাইন জাজ থাকে কতজন? (জ্ঞান)
ক ১ বা ২  ২ বা ৪ গ ৩ বা ৫ ঘ ৪ বা ৫
৬৬. ব্যাডমিন্টন খেলায় কত পয়েন্টে গেম হয়? (জ্ঞান)
ক ১৫ পয়েন্ট  ২১ পয়েন্ট গ ২৩ পয়েন্ট ঘ ২৭ পয়েন্ট
৬৭. ব্যাডমিন্টন খেলায় উভয় দলের পয়েন্ট সমান হওয়াকে কী বলে? (জ্ঞান)
 ডিউস খ শাটল গ সার্ভিস ঘ বাউন্স
৬৮. সর্বোচ্চ কত পয়েন্টের মধ্যে ব্যাডমিন্টন খেলা শেষ করতে হবে?
[ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ, রংপুর]
ক ২১ খ ২৬ গ ২৯  ৩০
৬৯. ব্যাডমিন্টন খেলার সঠিক নিয়ম কোনটি? (অনুধাবন)
ক প্রথমে বামদিকের খেলোয়াড় সার্ভিস করবে
খ প্রত্যেক খেলোয়াড় পরপর দুইবার সার্ভিস করবে
 প্রতি পয়েন্টের পর খেলোয়াড়দের কোর্ট বদল হবে
ঘ সার্ভিসের সময় সার্ভারের পা শূন্যে থাকবে
৭০. ব্যাডমিন্টন খেলায় কলাকৌশল কয়টি?
[দি বাডস্ রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ, মৌলভীবাজার]
ক ৬টি  ৭টি গ ৮টি ঘ ৯টি
৭১. ব্যাডমিন্টন খেলা অনেকটা নির্ভর করে কীসের ওপর? [যশোর জিলা স্কুল]
 র‌্যাকেট ধরা খ পায়ের কাজ গ বুদ্ধিমত্তা ঘ শারীরিক সক্ষমতা
৭২. ব্যাডমিন্টনে কোনটির কাজ খুব দ্রæত হয়ে থাকে?
[জামালপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়]
ক হাতের খ চোখের গ আঙুলের  পায়ের
৭৩. প্রতিপক্ষের কোর্টে শাটল কক পাঠানোকে কী বলে? (জ্ঞান)
ক ফোরহ্যান্ড স্ট্রোক  সার্ভিস
গ ফাউল ঘ থ্রো-ইন
৭৪. ব্যাডমিন্টনে সার্ভিসের সময় বাম পায়ের অবস্থান কেমন হবে? (অনুধাবন)
ক ডান পায়ের পাশাপাশি থাকবে
খ ডান পায়ের পিছনে থাকবে
 ডান পায়ের কিছুটা সামনে থাকবে
ঘ ডান পা থেকে আড়াআড়ি অবস্থায় থাকবে
৭৫. সার্ভিস কত প্রকার? [উত্তরা হাই স্কুল, ঢাকা]
 ২ খ ৩ গ ৪ ঘ ৫
৭৬. স্ম্যাশ বা চাপ মারার কাজে কোন স্ট্রোক ব্যবহার করা হয়? (জ্ঞান)
ক ব্যাকহ্যান্ড স্ট্রোক খ ফোরহ্যান্ড স্ট্রোক
 ওভারহেড স্ট্রোক ঘ নেট স্ট্রোক
৭৭. নেট স্ট্রোক ব্যবহারের ক্ষেত্রে কোনটির প্রয়োজন সবচেয়ে বেশি? (জ্ঞান)
ক পায়ের দ্রæততা খ আঙুলের শক্তিতে
গ চোখের দৃষ্টি  হাতের সূ²তার
৭৮. নেট স্ট্রোকে খুব সহজে শাটল কাকের কাছে যাবার জন্য কী প্রয়োজন? (অনুধাবন)
 ফুটওয়ার্ক ভালো হওয়া খ নিয়মিত অনুশীলন
গ হাতের কাজ ঘ ভালোভাবে গ্রিপ ধরা
 বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
৭৯. ব্যাডমিন্টন কোর্টের সকল দাগের রং হবেÑ [জামালপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়]
র. সাদা রর. হলুদ ররর. লাল
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
৮০. ব্যাডমিন্টন খেলায় প্রয়োজন হয়Ñ (অনুধাবন)
র. ১ জন রেফারি রর. ১ জন স্কোয়ার ররর. ৩ জন জাজ
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
৮১. ব্যাডমিন্টন খেলার মৌলিক কৌশল হলো (অনুধাবন)
র. ব্যাকহ্যান্ড স্ট্রোক রর. পায়ের কাজ ররর. ড্রিবলিং
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
৮২. শাকিল ব্যাডমিন্টন খেলায় ভালো করতে চায়। এজন্য তাকে অবশ্যই আয়ত্তে আনতে হবেÑ (প্রয়োগ)
র. হাতের নমনীয়তা রর. পায়ের কাজ ররর. কব্জির নমনীয়তা
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
৮৩. রাব্বিদের স্কুলের মাঠে অন্তঃজেলা ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। খেলাটি পরিচালনায় সাহায্যকারী হিসেবে কাজ করছেÑ (প্রয়োগ)
র. রেফারি রর. টাইম কিপার ররর. লাইন জাজ
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর  র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
 অভিন্ন তথ্যভিত্তিক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ৮৪ ও ৮৫ নং প্রশ্নের উত্তর দাও :
জাবেদ তাদের খেলার মাঠে ৪৪ ফুট দৈর্ঘ্যরে এবং ১৭ ফুট প্রস্থের একটি কোর্ট কেটেছে। বিকেলে খেলার জন্য সে তার তিনজন বন্ধুকে আসতে বলেছে এবং একটি শাটল কক কিনে রেখেছে।
৮৪. জাবেদ কী খেলার কোর্ট কেটেছে? (প্রয়োগ)
 ব্যাডমিন্টন খ ক্রিকেট গ বাস্কেটবল ঘ হ্যান্ডবল
৮৫. উক্ত খেলায় গেম হয় (উচ্চতর দক্ষতা)
র. ২১ পয়েন্টে রর. ২ পয়েন্টের ব্যবধানে
ররর. সর্বোচ্চ ৩০ পয়েন্টে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
পাঠ-৩ : বাস্কেটবল
 সাধারণ বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
৮৬. বাস্কেটবল প্রথম প্রচলন হয় কোথায়? [রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুল]
ক জাপানে খ ইংল্যান্ডে  আমেরিকায় ঘ ভারতে
৮৭. বাস্কেটবল খেলার প্রচলন হয় কত সালে? [পুলিশ লাইন্স স্কুল এন্ড কলেজ, বগুড়া]
ক ১৮৭০ সালে  ১৮৮১ সালে গ ১৮৮৪ সালে ঘ ১৯৩৪ সালে
৮৮. বাস্কেটবল খেলার জনক কে? [যশোর জিলা স্কুল; খুলনা জিলা স্কুল]
ক বো-ফোটের ডিউক  ড. জেমস নেইসমিথ
গ ড. জন হেনরি গ্রে ঘ ড. জেমস হ্যালটন
৮৯. ১৯৩২ সালে কোথায় আন্তর্জাতিক বাস্কেটবল সংস্থা গঠিত হয়?
[মোহাম্মদপুর মডেল স্কুল এন্ড কলেজ, ঢাকা]
ক আমেরিকায়  জার্মানিতে গ ফ্রান্সে ঘ ইতালিতে
৯০. কোন অলিম্পিকে প্রথম প্রতিযোগিতামূলক খেলা হিসেবে বাস্কেটবল অন্তর্ভুক্ত হয়? (জ্ঞান)
 বার্লিন অলিম্পিকে খ মট্রিল অলিম্পিকে
গ মিউনিখ অলিম্পিকে ঘ বেইজিং অলিম্পিকে
৯১. আমেরিকার জাতীয় খেলা কী? (জ্ঞান)
ক ব্যাডমিন্টন খ হ্যান্ডবল গ হকি  বাস্কেটবল
৯২. উপমহাদেশে প্রথম বাস্কেটবল খেলা শুরু হয় কোথায়? (জ্ঞান)
ক দিল্লিতে  কলকাতায় গ করাচিতে ঘ হায়দারবাদে
৯৩. বাংলাদেশে কোথায় প্রথম বাস্কেটবল খেলা শুরু হয়? (জ্ঞান)
 খ্রিস্টান মিশনারি স্কুলগুলোতে খ ক্লাবগুলোতে
গ এলাকার অলি গলিতে ঘ ব্যায়ামাগারে
৯৪. বাস্কেটবল খেলায় কোর্টের দৈর্ঘ্য কত? (জ্ঞান)
ক ২৭.৫৮ মিটার খ ২৭.২৯ মিটার  ২৮.৬৫ মিটার ঘ ২৮.২৫ মিটার
৯৫. বাস্কেটবল খেলায় বৃত্তসমূহের ব্যাসার্ধ কত হবে? (জ্ঞান)
 ৬ ফুট খ ৭ ফুট গ ৮ ফুট ঘ ৯ ফুট
৯৬. বাস্কেটবল খেলার কোর্ট থেকে রিংয়ের উচ্চতা কত মিটার?
[ঝিনাইদহ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়]
ক ২.০৫ মিটার  ৩.০৫ মিটার গ ৪.০৫ মিটার ঘ ৬.০৫ মিটার
৯৭. বাস্কেটবলের ওজন কত? [সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়]
ক ওজন ৫৬০ থেকে ৬৪০ গ্রাম খ ওজন ৫৬৭ থেকে ৫৫০ গ্রাম
 ওজন ৫৬৭ থেকে ৬৫০ গ্রাম ঘ ওজন ৫৬৫ থেকে ৬৪৫ গ্রাম
৯৮. বাস্কেটবলের রং কী? (জ্ঞান)
ক লাল খ নীল  কমলা ঘ সবুজ
৯৯. বাস্কেটবল খেলার নিয়ম ভঙ্গ করাকে কী বলে? [কুমিল্লা জিলা স্কুল; যশোর জিলা স্কুল]
ক ফাউল  ভায়োলেশন গ ড্রিবলি ঘ ফাউল থ্রো
১০০. বাস্কেট খেলার ভায়োলেশন নিচের কোনটি?
[ইনজিনিয়ারিং ইউনিভারসিটি স্কুল এন্ড কলেজ, ঢাকা]
ক বল পাশ দেওয়া  দুই হাত দিয়ে বল ড্রিবলিং করা
গ এক হাত দিয়ে বল ড্রিবলিং করা ঘ বল ড্রিবলিং করে এগিয়ে যাওয়া
১০১. খেলা চলাকালীন সময় শাহীনকে বিপক্ষ দলের একজন খেলোয়াড় ইচ্ছে করে ধাক্কা দিল। বাস্কেটবল খেলায় একে কী বলে? (প্রয়োগ)
ক ডিউস খ বাউন্স  ফাউল ঘ ভায়োলেশন
১০২. বাস্কেটবল খেলায় প্রতি দলে এক সাথে খেলতে নামে কতজন খেলোয়াড়? (জ্ঞান)
 ৫ খ ৭ গ ৯ ঘ ১১
১০৩. বাস্কেটবল খেলায় টাইম আউট সময় কত? (জ্ঞান)
 ১ মিনিট খ ২ মিনিট গ ৩ মিনিট ঘ ৫ মিনিট
১০৪. বাস্কেটবল খেলায় বিশেষ তাৎপর্য বহন করে কোনটি? (জ্ঞান)
 বল দিয়ে দাঁড়াবার ভঙ্গি খ বল ধরা
গ বল পাস করার ক্ষমতা ঘ ড্রিবলিং
১০৫. বাস্কেটবল পাস দেওয়ার ক্ষেত্রে কোনটি সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ? (জ্ঞান)
ক ওভারহেড পাস খ বাউন্স পাস গ আন্ডারহ্যান্ড পাস  চেস্ট পাস
১০৬. বাস্কেটবলকে আঙুলগুলো দিয়ে ঠেলা দিতে হয় কোন কলা-কৌশলটিতে? (জ্ঞান)
 ড্রিবলিংয়ে খ বল ধরায় গ বল পাসিংয়ে ঘ চেস্ট পাসে
১০৭. কাছ থেকে গোল করার জন্য কোন ধরনের শুট নেয়া হয়? (জ্ঞান)
 সেট শুট খ আপ শুট গ লো-আপ শুট ঘ লে-সেট শুট
 বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
১০৮. বাংলাদেশে যে পর্যায়ে বাস্কেটবল প্রতিযোগিতা হয় তা হলোÑ (অনুধাবন)
র. আন্তঃস্কুল রর. আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় ররর. আন্তঃক্যাডেট কলেজ
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
১০৯. বাস্কেটবলের বল হবেÑ (অনুধাবন)
র. গোলাকৃতি রর. ওজন ৫৬৭ গ্রাম ররর. শক্ত কাঠের
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
১১০. ভায়োলেশন হচ্ছে (অনুধাবন)
র. আইন অমান্য করা রর. খেলার বিধি নিয়ম ভঙ্গ করা
ররর. বিপক্ষের সাথে ইচ্ছাকৃতভাবে সংঘর্ষে যাওয়া
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
১১১. বাস্কেটবল পাস দেওয়ার পদ্ধতি হলোÑ (অনুধাবন)
র. হ্যান্ডপাস রর. ওভারহেড পাস ররর. চেস্ট পাস
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর  রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
১১২. ড্রিবলিংয়ের সময় (অনুধাবন)
র. বল আঙুল দিয়ে ঠেলে দিতে হয়
রর. বল সরাসরি বাস্কেটে ছুড়তে হয়
ররর. আঙুলগুলোকে বলের ওপর ছড়িয়ে রাখতে হয়
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর  র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
১১৩. অষ্টম শ্রেণিতে ওঠার পর নোমান তাদের স্কুলের বাস্কেটবল দলে যোগ দেয়। খেলাটিতে ভালো করতে তার দরকার হবেÑ (প্রয়োগ)
র. শরীরের ক্ষিপ্রতা রর. দম দেওয়ার ক্ষমতা
ররর. জাম্প দেওয়ার ক্ষমতা
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
 অভিন্ন তথ্যভিত্তিক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ১১৪ ও ১১৫ নং প্রশ্নের উত্তর দাও :
অনিল তাদের স্কুলে নিয়মিত বাস্কেটবল খেলা অনুশীলন করে। আন্তঃস্কুল প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য সে এবং তাদের দল বিশেষভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছে।
১১৪. প্রতিযোগিতায় প্রথম হতে অনিলের দলের সবাইকে ভালোভাবে অনুশীলন করতে হবেÑ (প্রয়োগ)
র. ড্রিবলিং রর. পিভটিং ররর. স্টপিং
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
১১৫. বাংলাদেশে উক্ত খেলার প্রচলনের ক্ষেত্রে কোন প্রতিষ্ঠানের ভ‚মিকা সর্বাধিক? (উচ্চতর দক্ষতা)
ক বিকেএসপি খ যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়
 খ্রিস্টান মিশনারি স্কুল ঘ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
পাঠ-৪ : হ্যান্ডবল
 সাধারণ বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
১১৬. হ্যান্ডবল খেলার উৎপত্তি কোথায়? [যশোর জিলা স্কুল]
ক ভারতে খ ইংল্যান্ডে  জার্মানিতে ঘ চীনে
১১৭. ১৯২৮ সালে গঠিত হ্যান্ডবল ফেডারেশনের নাম কী? [খুলনা জিলা স্কুল]
ক ইউরোপিয়ান কমিউনিটি হ্যান্ডবল ফেডারেশন
 ইন্টারন্যাশনাল অ্যামেচার হ্যান্ডবল ফেডারেশন
গ ইন্টারন্যাশনাল স্পোর্টস কমিউনিটি হ্যান্ডবল ফেডারেশন
ঘ ইন্টারন্যাশনাল ভ্যানিজুয়েলা হ্যান্ডবল ফেডারেশন
১১৮. কত সালে ইন্টারন্যাশনাল হ্যান্ডবল ফেডারেশন গঠিত হয়?
[ঝিনাইদহ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়]
ক ১৯৩৬ খ ১৯৪০  ১৯৪৬ ঘ ১৯৪৮
১১৯. এশিয়ান হ্যান্ডবল ফেডারেশন কত সালে গঠিত হয়?
[আইডিয়াল স্কুল, মতিঝিল, ঢাকা]
 ১৯৭৪ সালে খ ১৯৭৬ সালে গ ১৯৮০ সালে ঘ ১৯৪৮ সালে
১২০. প্রথম মহিলা হ্যান্ডবল অনুষ্ঠিত হয় কোন অলিম্পিকে? (জ্ঞান)
 মন্ট্রিল খ মিউনিখ গ বেইজিং ঘ বার্লিন
১২১. হ্যান্ডবল খেলা প্রথম কত সালে এশিয়ান গেমসে অন্তর্ভুক্ত হয়?
[মোহাম্মদপুর মডেল স্কুল এন্ড কলেজ]
ক ১৯৪৬ খ ১৯৭৬  ১৯৮২ ঘ ১৯৮৫
১২২. কত সালে বাংলাদেশ হ্যান্ডবল অ্যাসোসিয়েশন গঠিত হয়?
[উত্তরা মডেল কলেজ, ঢাকা]
ক ১৯৭২ খ ১৯৭৬  ১৯৮৩ ঘ ১৯৮৫
১২৩. হ্যান্ডবল মাঠের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কত? (জ্ঞান)
ক ৩০ মিটার ও ২৫ মিটার খ ৩৫ মিটার ও ২০ মিটার
 ৪০ মিটার ও ২০ মিটার ঘ ৪০ মিটার ও ২৫ মিটার
১২৪. হ্যান্ডবলের গোল পোস্ট লম্বায় কত মিটার হয়? (জ্ঞান)
ক ২  ৩ গ ৪ ঘ ৫
১২৫. হ্যান্ডবল ফ্রি থ্রো লাইনটি কত মিটার হয়? (জ্ঞান)
ক ৭ খ ৮  ৯ ঘ ১০
১২৬. হ্যান্ডবল খেলায় মাঠে খেলতে নামে কতজন খেলোয়াড়?
[বিদ্যাময়ী গভ. গার্লস হাই স্কুল, ময়মনসিংহ]
ক ৫ জন  ৭ জন গ ৯ জন ঘ ১২ জন
১২৭. মিরন একটি হ্যান্ডবল দল গঠনের সিদ্ধান্ত নিল। তার দলে মোট কতজন খেলোয়াড় থাকবে? (প্রয়োগ)
ক ৫ খ ৭ গ ১১  ১২
১২৮. হ্যান্ডবল খেলায় বিপক্ষ দলকে ফ্রি থ্রো দেয়ার কারণ কোনটি? (অনুধাবন)
 ত্রæটিপূর্ণ থ্রো-ইন করা
খ নিশ্চিত গোল বাঁশির সংকেতে নষ্ট হওয়া
গ প্রতিপক্ষের প্রতি বৈধ আচরণ করা
ঘ সঠিক থ্রো-অফ করা
১২৯. হ্যান্ডবল খেলায় বল ছুড়ে গোল করাটা কঠিন ব্যাপার কেন? (অনুধাবন)
ক বাম হাতে বল ছুড়তে হয়  বলের আকার বেশ ছোট
গ উপর থেকে বল ছুড়তে হয় ঘ চোখ বন্ধ করে বল ছুড়তে হয়
১৩০. কী করণে হ্যান্ডবল খেলায় বিপক্ষ দল পেনাল্টি থ্রো পায়? (অনুধাবন)
ক গোলরক্ষক নিয়ম ভঙ্গ করলে
খ কেউ ত্রæটিপূর্ণ থ্রো-ইন করলে
 কেউ অবৈধভাবে বিপক্ষ দলের গোল নষ্ট করলে
ঘ কেউ প্রতিপক্ষের প্রতি অবৈধ আচরণ করলে
১৩১. হ্যান্ডবল খেলায় কয়টি কারণে বিপক্ষ দল পেনাল্টি থ্রো পাবে? (জ্ঞান)
ক ২  ৩ গ ৪ ঘ ৫
১৩২. হ্যান্ডবল খেলা শুরু হয় কীভাবে?
[উত্তরা হাই স্কুল এন্ড কলেজ; ঝিনাইদহ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়]
 থ্রো-অফের মাধ্যমে খ থ্রো-ইনের মাধ্যমে
গ বাধা দেওয়ার মাধ্যমে ঘ পেনাল্টি কর্ণারের মাধ্যমে
১৩৩. হ্যান্ডবল পার্শ্বরেখা অতিক্রম করলে খেলা শুরু হবে কীভাবে? (অনুধাবন)
ক কর্ণার থ্রো এর মাধ্যমে খ থ্রো-অফের মাধ্যমে
 থ্রো-ইনের মাধ্যমে ঘ ফ্রি-থ্রো-এর মাধ্যমে
 বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
১৩৪. হ্যান্ডবল খেলায় থ্রো অফের প্রয়োজন হয়Ñ (অনুধাবন)
র. খেলা আরম্ভের সময় রর. গোল হওয়ার পর ররর. বিরতির পর
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
১৩৫. হ্যান্ডবল খেলা পরিচালনা করবেন- (অনুধাবন)
র. ২ জন রেফারি রর. ১ জন স্কোরার ররর. ৪ জন লাইন জাজ
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
১৩৬. মতিন একজন জাতীয় দলের হ্যান্ডবল খেলোয়াড়। খেলায় ভালো করার জন্য তাকে যে কৌশলগুলো আয়ত্তে আনতে হবেÑ (প্রয়োগ)
র. বল পাস দেওয়া রর. বল কাটিয়ে নিয়ে যাওয়া ররর. বাস্কেটে বল ছোড়া
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
১৩৭. হ্যান্ডবল খেলায় বল ধরার কৌশল হলোÑ (অনুধাবন)
র. সম্মুখের বল ধরা রর. পার্শ্বের বল ধরা ররর. লাফিয়ে বল ধরা
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
১৩৮. হ্যান্ডবল খেলায় বিপক্ষ দলকে ফ্রি-থ্রো দেওয়া হয়-
[উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি, কালীগঞ্জ]
র. গোলরক্ষক নিয়ম ভঙ্গ করলে
রর. ত্রুটিপূর্ণ থ্রো-ইন করলে
ররর. ত্রæটিপূর্ণ থ্রো-অফ করলে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
 অভিন্ন তথ্যভিত্তিক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ১৩৯ ও ১৪০ নং প্রশ্নের উত্তর দাও :
আজ বিকেলে তপুদের স্কুলের সাথে সেন্ট জোসেফ স্কুলের হ্যান্ডবল খেলা অনুষ্ঠিত হবে। দলের নেতা হিসেবে তপু সবাইকে সাবধান করে দিল যাতে তারা এমন কিছু না করে যে বিপক্ষ দল ফ্রি থ্রো বা পেনাল্টি থ্রো পায়।
১৩৯. তপুদের খেলার সময়সীমা কোনটি? (প্রয়োগ)
ক ১০ + ১৫ + ২৫ খ ১০ + ২৫ + ২৫
 ২৫ + ১০ + ২৫ ঘ ২৫ + ২৫ + ৫
১৪০. তপুদের দলের একজন খেলোয়াড় গোলের একটি উজ্জ্বল সুযোগ হারিয়ে অখেলোয়াড়োচিত আচরণ করে বসল। তার এই কাজের জন্য (উচ্চতর দক্ষতা)
র. বিপক্ষ দল একটি ফ্রি থ্রো পাবে
রর. বিপক্ষ দল একটি পেনাল্টি থ্রো পাবে
ররর. তাদের দল শাস্তি প্রাপ্ত হবে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর  র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
পাঠ-৫ : হকি
 সাধারণ বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
১৪১. হকি খেলার প্রচলন কোথায় হয়? (জ্ঞান)
ক গ্রিসে  পারস্যে গ ইংল্যান্ডে ঘ মিশরে
১৪২. ‘হকেট’ কোন ভাষার শব্দ?
ক তুর্কি  ফরাসি গ ইংরেজি ঘ পর্তুগিজ
১৪৩. ‘হকেট’ অর্থ কী? [ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ, রংপুর]
ক লাঠিয়ালের লাঠি  মেষপালকের লাঠি
গ গরু তাড়ানোর লাঠি ঘ হকি খেলার লাঠি
১৪৪. কত সালে আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশন গঠিত হয়? (জ্ঞান)
ক ১৯০৮  ১৯২৪ গ ১৯৫৮ ঘ ১৯৭২
১৪৫. কত সালে হকি এশিয়ান গেমসে অন্তর্ভুক্ত হয়? (জ্ঞান)
ক ১৯২৪  ১৯৫৮ গ ১৯৭৪ ঘ ১৯৮০
১৪৬. প্রথম বিশ্বকাপ হকি প্রতিযোগিতা হয়েছিল কত সালে? (জ্ঞান)
ক ১৯৬০ খ ১৯৬৫  ১৯৭১ ঘ ১৯৭৩
১৪৭. বাংলাদেশে হকি ফেডারেশন গঠিত হয় কত সালে? (জ্ঞান)
ক ১৯৭০  ১৯৭২ গ ১৯৭৪ ঘ ১৯৮০
১৪৮. হকি খেলার মাঠের দৈর্ঘ্য কত গজ? [অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া]
ক ৯০ গজ  ১০০ গজ গ ১১০ গজ ঘ ১২০ গজ
১৪৯. হকি খেলায় মাঠের সকল রেখার প্রস্থ কত ইঞ্চি? (জ্ঞান)
 ৩ খ ৪ গ ৫ ঘ ৬
১৫০. হকি খেলায় মাঠের বড় রেখাকে কী বলে? (জ্ঞান)
ক ব্যাক লাইন  সাইড লাইন গ সার্কেল লাইন ঘ ফ্লাগ লাইন
১৫১. হকি খেলায় বলটির ওজন কত হবে? (জ্ঞান)
ক ১৫৬ হতে ১৬০ গ্রাম পর্যন্ত খ ১৫৬ হতে ১৬১ গ্রাম পর্যন্ত
 ১৫৬ হতে ১৬৩ গ্রাম পর্যন্ত ঘ ১৫৭ হতে ১৬৩ গ্রাম পর্যন্ত
১৫২. হকি খেলায় স্টিকের সর্বোচ্চ ওজন কত হবে? (জ্ঞান)
ক ৭৩০ গ্রাম  ৭৩৭ গ্রাম গ ৭৪০ গ্রাম ঘ ৭৪৫ গ্রাম
১৫৩. হকি খেলায় আসন্ন বল আয়ত্তে আনার জন্য যে কৌশল প্রয়োগ করা হয় তাকে কী বলে? (জ্ঞান)
ক হিট  স্টপিং গ স্কুপ ঘ ফ্লিক
১৫৪. হকি খেলায় বলের সাথে স্টিক লাগিয়ে কোনো শব্দ না করে প্রয়োজনীয় গতিমাত্রা প্রয়োগের মাধ্যমে বল মাঠ ঘেঁষে গড়িয়ে দেওয়াকে কী বলে? (জ্ঞান)
ক হিট খ স্টপিং  পুশ ঘ ড্রিবলিং
১৫৫. হকি খেলায় একটি স্থির বলকে পুশের মাধ্যমে বলটি হাঁটু পর্যন্ত ওঠানোকে কী বলে? (জ্ঞান)
ক ড্রিবলিং  ফ্লিক গ পুশ ঘ হিট
১৫৬. হকি খেলায় বলসহ সামনের এগিয়ে যাওয়াকে কী বলে?
[সাবেরা সোবহান সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া]
 ড্রিবলিং খ হিট গ পুশ ঘ স্টপিং
 বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
১৫৭. খেলোয়াড়দের জন্য নিয়ম বহিভর্‚ত হলোÑ (অনুধাবন)
র. বিপক্ষ খেলোয়াড়ের কাপড় ধরা
রর. বিপক্ষ খেলোয়াড়কে হুক দিয়ে আঘাত করা
ররর. বল নিজের আয়ত্তে ১ মিনিটের বেশি রাখা
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
১৫৮. হকি খেলায় ফ্রি হিট করার প্রক্রিয়ায় (অনুধাবন)
র. বলটি অবশ্যই স্থির থাকবে
রর. সূচনাকারী বলটি হিট করতে পারবে
ররর. বলটি ইচ্ছাকৃতভাবে উঠিয়ে খেলা যাবে
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
১৫৯. হকি খেলায় পেনাল্টি স্পট হতে বলটি খেলতে হয়Ñ (অনুধাবন)
র. পুশ করে রর. স্কুপ করে
ররর. ফ্লিক করে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
১৬০. হকি লেখায় নেট লাগানো থাকবেÑ (অনুধাবন)
র. ক্রসবারের সাথে
রর. গোলপোস্টের সাথে
ররর. সাইন বোর্ডের সাথে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
 অভিন্ন তথ্যভিত্তিক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ১৬১ ও ১৬২ নং প্রশ্নের উত্তর দাও :
লিমনদের শারীরিক শিক্ষার শিক্ষক আফজাল হোসেন হকি খেলায় বেশ দক্ষ। তার শেখানো কৌশলগুলো যথাযথভাবে প্রয়োগ করে লিমনরা এবার আন্তঃজেলা হকি খেলায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।
১৬১. লিমনদের দলের কয়জন খেলোয়াড় একসাথে মাঠে খেলেছে? (প্রয়োগ)
ক ৫ খ ৭  ১১ ঘ ১৬
১৬২. উক্ত প্রতিযোগিতার জন্য যোগ্য খেলোয়াড় হিসেবে লিমনদের গড়ে তুলতে আফজাল হোসেন বারবার অনুশীলন করিয়েছেন (উচ্চতর দক্ষতা)
র. স্টপিং রর. ড্রিবলিং
ররর. পিভটিং
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
পাঠ-৬ : সাঁতার
 সাধারণ বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
১৬৩. সুইমিং শব্দটি ইংরেজি কোন শব্দ থেকে এসেছে?
[মোহাম্মদপুর মডেল স্কুল এন্ড কলেজ, ঢাকা]
ক সুইমিং খ সুইমন  সুইমিন ঘ সিমিং
১৬৪. কোন সালে মহিলাদের সাঁতার অলিম্পিকে অন্তর্ভুক্ত হয়? (জ্ঞান)
ক ১৮৩৭ খ ১৮৯৬ গ ১৯০৮  ১৯১২
১৬৫. আন্তর্জাতিক সাঁতার সংস্থা ফিনা কত সালে গঠিত হয়? [কুমিল্লা জিলা স্কুল]
ক ১৮৩৭ খ ১৮৯৬  ১৯০৮ ঘ ১৯১২
১৬৬. বাংলাদেশি সুইমিং ফেডারেশন প্রতিষ্ঠিত হয় কত সালে?
[খুলনা মডেল স্কুল এন্ড কলেজ]
ক ১৮৩৭ সালে খ ১৯০৮ সালে গ ১৮৯৬ সালে  ১৯৭২ সালে
১৬৭. শরীরের জন্য পূর্ণাঙ্গ ব্যায়াম কোনটি? [রংপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়]
ক খেলাধুলা  সাঁতার গ সাইকিলিং ঘ দৌড়
১৬৮. সাঁতারকে কেন পূর্ণাঙ্গ ব্যায়াম বলা হয়? (অনুধাবন)
 সাঁতারের সাহায্যে সকল অঙ্গের ব্যায়াম হয়
খ সাঁতারে বিভিন্ন ব্যায়াম অনুশীলন করা যায়
গ সাঁতার মাঝ পথে বন্ধের কোনো নিয়ম নেই
ঘ সাঁতারে পূর্ণাঙ্গ শরীর পানির নিচে থাকে
১৬৯. প্রতিযোগিতামূলক সাঁতার কত প্রকার? [বøু-বার্ড উচ্চ বিদ্যালয়, সিলেট]
ক ২ খ ৩  ৪ ঘ ৫
১৭০. মুক্ত সাঁতারের নিয়ম কোনটি? (অনুধাবন)
ক ডাইভ দিয়ে সাঁতার আরম্ভ করতে হয়
খ পানির নিচ দিয়ে সাঁতার কাটতে হবে
 উপুড় হয়ে সাঁতার কাটতে হবে
ঘ চিৎ হয়ে সাঁতার কাটতে হয়
১৭১. মুক্ত সাঁতারে পা পানির নিচে কত ইঞ্চি পর্যন্ত যেতে পারে? (জ্ঞান)
ক ১০Ñ১২ খ ১১-১৫  ১২-১৮ ঘ ১৫- ২০
১৭২. পানিতে নেমে হাতল ধরে আরম্ভ করতে হয় কোন ধরনের সাঁতার? (জ্ঞান)
ক মুক্ত সাঁতার  চিৎ সাঁতার গ প্রজাপতি সাঁতার ঘ বুক সাঁতার
১৭৩. সাধারণত কোন সাঁতারে পায়ের প্রক্রিয়া ফুটবল কিক মারার মতো হয়?
[ঝিনাইদহ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়]
ক মুক্ত সাঁতার খ প্রজাপতি সাঁতার  চিৎ সাঁতার ঘ বুক সাঁতার
১৭৪. চিৎ সাঁতারে পা পানির নিচে সাধারণত কত ইঞ্চি পর্যন্ত যেতে পারে? (জ্ঞান)
ক ১২-১৫ খ ১৩-১৬ গ ১৫-২০  ১৮-২৪
১৭৫. দুই হাতকে পানির মধ্যে এক সঙ্গে নিতে হয় কোন ধরনের সাঁতারে? (জ্ঞান)
ক মুক্ত খ চিৎ  বুক ঘ প্রজাপতি
১৭৬. বুক সাঁতারে দেয়াল স্পর্শ করা হয় কীভাবে? [সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়]
ক ডান হাত দিয়ে খ বাম হাত দিয়ে
 দুই হাত দিয়ে একই সাথে ঘ বুকের সাহায্যে
১৭৭. ডাইভ দিয়ে কোন ধরনের সাঁতার আরম্ভ করা হয়? (জ্ঞান)
 বুক খ চিৎ গ মুক্ত ঘ প্রজাপতি
১৭৮. শরীর খুব দ্রæত ওঠানাম করে কোন ধরনের সাঁতারে? (জ্ঞান)
ক বুক সাঁতারে খ চিৎ সাঁতারে  প্রজাপতি সাঁতারে ঘ মুক্ত সাঁতারে
১৭৯. পায়ের অবস্থান ডলফিন কিকের মতো হবে কোন ধরনের সাঁতারে? (জ্ঞান)
ক বুক সাঁতারে খ চিৎ সাঁতারে  প্রজাপতি সাঁতারে ঘ মুক্ত সাঁতারে
১৮০. ব্যক্তিগত মিডলে সাঁতারের সর্বশেষ ধাপ কোনটি? (জ্ঞান)
ক প্রজাপতি সাঁতার খ চিৎ সাঁতার গ বুক সাঁতার  মুক্ত সাঁতার
১৮১. দলগত মিডেলে সাঁতারের দ্বিতীয় ধাপ কোনটি? (জ্ঞান)
ক চিৎ সাঁতার খ মুক্ত সাঁতার  বুক সাঁতার ঘ প্রজাপতি সাঁতার
 বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
১৮২. সাঁতার অনুশীলনের মাধ্যমেÑ (অনুধাবন)
র. হাতির শক্তি বৃদ্ধি পায় রর. পায়ের শক্তি বৃদ্ধি পায়
ররর. শরীরের ভারসাম্য বৃদ্ধি পায়
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
১৮৩. মুক্ত সাঁতারের নিয়ম হলো (অনুধাবন)
র. আরম্ভ বøকে উঠে শুরু করতে হয়
রর. চিৎ হয়ে সাঁতার কাটতে হয়
ররর. সমাপ্তি যেকোনো অবস্থায় করা যায়
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর  র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
১৮৪. সকলের সাঁতার শেখা উচিত। কারণ এটিÑ (উচ্চতর দক্ষতা)
র. স্বাস্থ্য ঠিক রাখে রর. জীবনরক্ষা করে
ররর. বড় শ্বাস নেওয়ার ক্ষমতা বাড়ায়
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
১৮৫. নীতু এই প্রথম সাঁতার শেখার জন্য সুইমিংপুলে নেমেছে। সাঁতার শেখার ক্ষেত্রে সে সহায়ক হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেÑ (উচ্চতর দক্ষতা)
র. কলাগাছ রর. ভাসমান বাঁশ ররর. মোটর গাড়ির চাকা
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
১৮৬. সাঁতার অনুশীলনের সময় যেসব বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন করা আবশ্যকÑ (অনুধাবন)
র. অগভীর জায়গা বেছে নেওয়া
রর. ভাসমান বস্তু কাছে রাখা
ররর. কফ বা থুথু বাইরে ফেলার ব্যবস্থা রাখা
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
১৮৭. মুক্ত সাঁতারের ক্ষেত্রেÑ (উচ্চতর দক্ষতা)
র. সমাপ্তি যেকোনো অবস্থায় করা যাবে
রর. উপুড় হয়ে সাঁতার কাটতে হবে
ররর. আরম্ভ বøকে উঠে শুরু করতে হবে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
১৮৮. বুক সাঁতারের ক্ষেত্রে করা অনুচিতÑ (অনুধাবন)
র. পানির নিচ দিয়ে সাঁতরানো
রর. পা উপরে নিচে তুলে সাঁতরানো
ররর. প্রতিযোগিতায় বাধা সৃষ্টি করা
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
১৮৯. বাটারফ্লাই সাঁতারের নিয়মাবলি হলোÑ [খুলনা মডেল স্কুল এন্ড কলেজ]
র. লেন পরিবর্তন করা যাবে না
রর. হাত কোমরের পেছনে যেতে পারে
ররর. বুকের উপর ভর করে সাঁতার কাটতে হয়
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
 অভিন্ন তথ্যভিত্তিক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ১৯০ ও ১৯১ নং প্রশ্নের উত্তর দাও :
সীমা গোসল করতে পুকুরে নেমে সাঁতরে ওপারে চলে যায়। তাকে সাঁতার কাটতে দেখে তার ছোট বোন নীলা বলেÑ‘আপু, তোমাকে প্রজাপতির মতো দেখাচ্ছে।’ সীমা তখন নীলাকে এ ধরনের সাঁতার কাটার কৌশল শিখিয়ে দেয়।
১৯০. সীমা কোন ধরনের সাঁতার কেটেছে? (প্রয়োগ)
ক বুক খ মুক্ত গ চিৎ  প্রজাপতি
১৯১. উক্ত সাঁতার শেখার ক্ষেত্রে নীলা যে নিয়মগুলো অনুসরণ করবে
র. বুকের ওপর ভর দিয়ে সাঁতার কাটবে
রর. পায়ের পাতা দিয়ে কিক মারবে
ররর. ডাইভ দিয়ে সাঁতার আরম্ভ করবে
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
পাঠ-৭ : অ্যাথলেটিকস
 সাধারণ বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
১৯২. কোন দেবতার সম্মানে অলিম্পিয়া ক্রীড়া উৎসব অনুষ্ঠিত হয়?
[ঝিনাইদহ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়; বøু-বার্ড উচ্চ বিদ্যালয়, সিলেট]
ক রাম  জিউস গ সূর্য ঘ ইন্দ্র
১৯৩. কীসের নাম অনুসারে অলিম্পিক প্রতিযোগিতার নামকরণ করা হয়? (জ্ঞান)
ক জিউস দেবতা  অলিম্পিয়া পর্বত
গ গ্রিসের রাজা ঘ বো-ফোটের ডিউক
১৯৪. কত খ্রিস্টাব্দে প্রথম অলিম্পিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়? [মোহাম্মদপুর মডেল স্কুল এন্ড কলেজ]
ক ৬৭৬ খ্রিষ্ট পূর্বাব্দে  ৭৭৬ খ্রিষ্ট পূর্বাব্দে
গ ৮৭৬ খ্রিষ্ট পূর্বাব্দে ঘ ৫০০ খ্রিষ্ট পূর্বাব্দে
১৯৫. আধুনিক অলিম্পিক অনুষ্ঠিত হয় কত সালে?
[আদমজী ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল, ঢাকা]
 ১৮৯৬ খ ১৮৬৯ গ ১৯৯৬ ঘ ১৭৯৬
১৯৬. ও. অ. অ. ঋ কীসের নাম? [মোহাম্মদপুর মডেল স্কুল এন্ড কলেজ, ঢাকা]
ক ব্যাডমিন্টন ফেডারেশনের নাম খ বাস্কেটবল ফেডারেশনের নাম
 এ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের নাম ঘ সাঁতার ফেডারেশনের নাম
১৯৭. বাংলাদেশ অ্যামেচার অ্যাথলিটিক ফেডারেশন গঠিত হয় কত সালে? [আদমজী ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল, ঢাকা]
ক ১৯৭১  ১৯৭২ গ ১৯৭৩ ঘ ১৯৭৪
১৯৮. অ্যাথলেটিকসকে কয় ভাগে ভাগ করা যায়? (জ্ঞান)
 দুই খ তিন গ চার ঘ পাঁচ
১৯৯. ট্র্যাক ইভেন্টকে কয় ভাগে ভাগ করা হয়েছে? [খুলনা জিলা স্কুল]
ক ২  ৩ গ ৪ ঘ ৫
২০০. স্বল্প দূরত্বের দৌড়ের অপর নাম কী? (জ্ঞান)
 ¯িপ্রন্ট খ ট্র্যাক ইভেন্ট গ ¯েøা রান ঘ ইভেন্ট
২০১. মধ্যম দূরত্বের দৌড়ে দূরত্ব কত? [ঝিনাইদহ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়]
ক ৯০০ মিটার  ৮০০ মিটার গ ২০০ মিটার ঘ ১০০ মিটার
২০২. অ্যাথলেটিকসে কার সংকেতে ইভেন্ট শুরু হয়? [যশোর জিলা স্কুল]
ক রেফারির খ আম্পায়ারের  আরম্ভকারী ঘ পরিচালনাকারী
২০৩. শরীরের কোন অংশকে টর্সো বলে? [ঝিনাইদহ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়]
ক পা থেকে মাথা পর্যন্ত খ পা থেকে গলকণ্ঠ পর্যন্ত
গ নাভি থেকে মাথা পর্যন্ত  নাভি থেকে গলকণ্ঠ পর্যন্ত
 বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
২০৪. অ্যাথলেটিকসের আওতাভুক্ত হলোÑ (অনুধাবন)
র. দৌড় রর. ঝাঁপ
ররর. নিক্ষেপ
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
২০৫. স্বল্প দূরত্বের দৌড়ের মধ্যে পড়বে (অনুধাবন)
র. ২০০ মিটার দৌড় রর. ৪০০ মিটার দৌড়
ররর. ৮০০ মিটার ম্যারাথন দৌড়
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
২০৬. পৃথিবীর প্রাচীন খেলার অন্তর্ভুক্ত হলোÑ (অনুধাবন)
র. দৌড় রর. লাফ-ঝাঁপ ররর. নিক্ষেপ
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
২০৭. আজিজুল ইসলাম বিদ্যালয়ের নিক্ষেপ বিভাগের একজন প্রতিযোগী। এই বিভাগের প্রতিযোগীদের জন্য নির্ধারিত খেলা হলোÑ (প্রয়োগ)
র. বল নিক্ষেপ রর. চাকতি নিক্ষেপ ররর. হাতুড়ি নিক্ষেপ
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর  রর ও ররর ক র, রর ও ররর
 অভিন্ন তথ্যভিত্তিক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ২০৮ ও ২০৯ নং প্রশ্নের উত্তর দাও :
ফারহানাদের স্কুলে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। প্রতিযোগীদের সুবিধার্থে ইভেন্টগুলোকে ট্র্যাক ইভেন্ট ও ফিল্ড ইভেন্ট এই দু’ভাগে ভাগ করা হয়েছে। ফারহানা ফিল্ড ইভেন্টের প্রতিযোগী হিসেবে এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিচ্ছে।
২০৮. ফারহানা যেসব খেলায় অংশ নিতে যাচ্ছে (প্রয়োগ)
র. ১০০ মিটার হার্ডেল রর. গোলক নিক্ষেপ
ররর. পোলভল্ট
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর  রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
২০৯. উক্ত প্রতিযোগিতায় নিক্ষেপ করতে গিয়ে ফারহানায় একটি সুযোগ নষ্ট হলো। এর কারণ কী? (উচ্চতর দক্ষতা)
ক গোলকটি সেক্টর লাইনের ভিতর পড়েছে
খ সে স্টপ বোর্ডের উপরিভাগ স্পর্শ করেনি
 সে বৃত্তের সামনের অংশ দিয়ে বের হয়েছে
ঘ সে নাম ডাকার ৫৫ সেকেন্ডের মাথায় নিক্ষেপ করেছে
পাঠ-৮ : গোলক, চাকতি ও বর্শা নিক্ষেপ
 সাধারণ বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
২১০. গোলক নিক্ষেপে ৮ জনের কম প্রতিযোগী থাকলে প্রত্যেকে কয়টি করে নিক্ষেপের সুযোগ পাবে? (জ্ঞান)
ক ৩ খ ৪ গ ৫  ৬
২১১. গোলক ধরার কৌশল কয়টি? [খুলনা জিলা স্কুল]
ক ২ খ ৩  ৪ ঘ ৫
২১২. গোলক নিক্ষেপে বৃত্তের ব্যাসের দাগ ভিতর পর্যন্ত কত মিটার হয়? (জ্ঞান)
 ২.১৩৫ খ ২.২৩১ গ ২.৩৩৫ ঘ ২.৪৪৫
২১৩. শর্টপুট সার্কেলের মাঝ বরাবর উভয় পার্শ্বে কত মিটার বাড়ানো থাকবে? (জ্ঞান)
ক ১ খ ০.৮০  ০.৭৫ ঘ ০.৭০
২১৪. গোলক নিক্ষেপে শটপুট সার্কেলের কোণ কত হবে?
[আদমজী ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ, ঢাকা]
 ৩৪.৯২ ডিগ্রি খ ৩৫.৯৭ ডিগ্রি গ ৩৬.৯৯ ডিগ্রি ঘ ৩৭.৯৫ ডিগ্রি
২১৫. গোলক নিক্ষেপের স্টপ বোর্ডের দৈর্ঘ্য সর্বনিম্ন কত? (জ্ঞান)
 ১.২১ মিটার খ ১.২৫ মিটার গ ১.৩১ মিটার ঘ ১.৩৬ মিটার
২১৬. চাকতি নিক্ষেপে নাম ডাকার কতক্ষণের মধ্যে নিক্ষেপ না করলে একজন নিক্ষেপকারী তার সুযোগ হারাবে? [সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়]
ক ৫০ সেকেন্ড  ৬০ সেকেন্ড গ ৪০ সেকেন্ড ঘ ৫৫ সেকেন্ড
২১৭. চাকতি নিক্ষেপে একজন প্রতিযোগী কী কারণে অকৃতকার্য হবে? (জ্ঞান)
ক বৃত্তের ভিতর থেকে নিক্ষেপ করলে
 লোহার পাতের উপরের অংশ স্পর্শ করলে
গ চাকতি সেক্টর লাইনের ভেতরে পড়লে
ঘ নাম ডাকার ৬০ সেকেন্ডের মধ্যে নিক্ষেপ করলে
 বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
২১৮. সেলিনা একজন গোলক নিক্ষেপ প্রতিযোগী। তার একটি সুযোগ নষ্ট হবে- (প্রয়োগ)
র. গোলকটি সেন্টার লাইনের দাগ স্পর্শ করলে
রর. সে বৃত্তের সামনের অংশ দিয়ে বের হলে
ররর. স্টপ বোর্ডের উপরিভাগ স্পর্শ না করলে
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
২১৯. চাকতি ধরার সঠিক কৌশল হলো (অনুধাবন)
র. মসৃণ পিঠ নিচে থাকবে
রর. প্রথমে বিপরীত হাতে চাকতি থাকবে
ররর. আঙুলগুলো ফাঁকা রাখতে হবে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর  রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
২২০. পাভেল বর্শা নিক্ষেপ অনুশীলন করছে। প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়ার সময় সেÑ (প্রয়োগ)
র. বর্শা হাত দিয়ে কাঁধের ওপর থেকে নিক্ষেপ করবে
রর. বর্শা মাটি স্পর্শ করার পর রানওয়ে ত্যাগ করবে
ররর. নাম ডাকার ৬০ সেকেন্ডের মধ্যে বর্শা নিক্ষেপ করবে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
পাঠ-৯ : দীর্ঘ লাফ ও উচ্চ লাফ
 সাধারণ বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
২২১. দীর্ঘ লাফে ৯ জন প্রতিযোগী হলে প্রত্যেকে কতটি লাফের সুযোগ পাবে? (জ্ঞান)
ক ২  ৩ গ ৪ ঘ ৫
২২২. উচ্চলাফে প্রতি রাউন্ড শেষে ক্রসবার কমপক্ষে কী পরিমাণ উপরে উঠাতে হবে? [খুলনা জিলা স্কুল; রংপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়]
 ২ সে.মি. খ ৩ সে.মি গ ৪ সে.মি. ঘ ৪.৫০ সে.মি.
২২৩. টাই অর্থ কী? [পুলিশ লাইন্স স্কুল এন্ড কলেজ, রংপুর]
 সমতা খ অসমতা গ বন্ধুর ঘ অতিরিক্ত
২২৪. উচ্চ লাফে কীভাবে টেক অফ নিতে হয়? (জ্ঞান)
ক ডান পায়ে ভর করে খ বাম পায়ে ভর করে
 এক পায়ে ভর করে ঘ দুই পায়ে ভর করে
২২৫. টাই হয় কোন ক্ষেত্রে? (জ্ঞান)
 প্রথম স্থান নির্ধারণে
খ দ্বিতীয় স্থান নির্ধারণে
গ পথম ও দ্বিতীয় স্থান যৌথভাবে নির্ধারণে
ঘ প্রয়োজন অনুযায়ী যে কোনো স্থান নির্ধারণে
২২৬. উচ্চলাফে কোন অবস্থান নির্ধারণে টাই ভাঙতে হয়?
[সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়]
 প্রথম অবস্থান খ দ্বিতীয় অবস্থান
গ তৃতীয় অবস্থায় ঘ চতুর্থ অবস্থান
 বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি প্রশ্নোত্তর
২২৭. জিয়ান তার স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় একজন দীর্ঘ লাফের প্রতিযোগী। সে তার একটি সুযোগ হারাতে পারেÑ (প্রয়োগ)
র. নাম ডাকার ৬০ সেকেন্ডের মধ্যে না লাফ দিলে
রর. টেক অফ বোর্ডের বাইরে লাফ দিলে
ররর. টেক অফ বোর্ডের সামনের অংশ স্পর্শ করলে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
২২৮. উচ্চলাফের একজন প্রতিযোগী তার একটি সুযোগ হারাতে পারেÑ (অনুধাবন)
র. নাম ডাকার ৬০ সেকেন্ডের মধ্যে লাফ দিতে ব্যর্থ হলে
রর. জাম্প করার সময় ক্রস বা অতিক্রম করলে
ররর. দুই পার্শ্বের স্ট্যান্ডের বাইরে শরীরের অংশ চলে গেলে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর  র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
২২৯. টাই ব্যবহার করা হয়Ñ (অনুধাবন)
র. ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান নির্ধারণের জন্য
রর. একাধিক প্রতিযোগী একই দূরত্ব অতিক্রম করলে
ররর. একাধিক প্রতিযোগী একই উচ্চতা অতিক্রম করলে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর  রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
২৩০. লাফে দূরত্বের টাই হলে টাই ভাঙার নিয়মÑ (অনুধাবন)
র. মোট লাফের ভিতরে ২য় সর্বোচ্চ দূরত্ব নির্ধারণ
রর. ২য় সর্বোচ্চ দূরত্বে না হলে ৩য় সর্বোচ্চ দূরত্ব নির্ধারণ
ররর. ২য় সর্বোচ্চ দূরত্বের প্রতিযোগী নেওয়া
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর

২৩১. খেলাধুলা (অনুধাবন)
র. শরীর ও মনকে সতেজ রাখে
রর. শারীরিক শিক্ষার ব্যবহারিক দিক
ররর. শিক্ষার্থীদের সুনাগরিক গড়ে তোলে
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর  র, রর ও ররর
২৩২. হ্যান্ডবল ও বাস্কেটবল খেলায় যেসব বিষয়ে মিল রয়েছে (অনুধাবন)
র. প্রতি দলে ১২ জন খেলোয়াড় থাকে
রর. খেলা পরিচালনার জন্য ১ জন রেফারি থাকে
ররর. বল ধরায় উভয় হাত ব্যবহার করা যায়
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর  র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
২৩৩. গোলপোস্ট ব্যবহার করা হয় (অনুধাবন)
র. হকি খেলায় রর. হ্যান্ডবল খেলায় ররর. বাস্কেটবল খেলায়
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
২৩৪. শাস্তিস্বরূপ বিপক্ষ দলকে ফ্রি থ্রো দেয়ার ব্যবস্থা রয়েছে (অনুধাবন)
র. হকি খেলায় রর. হ্যান্ডবল খেলায় ররর. বাস্কেটবল খেলায়
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর  রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
২৩৫. ইংরেজদের বিশেষ অবদান রয়েছে (অনুধাবন)
র. ব্যাডমিন্টনের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধিতে
রর. সাঁতার প্রতিযোগিতার প্রচলনে
ররর. হ্যান্ডবল খেলার উৎপত্তিতে
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
২৩৬. ১৯৭২ সালে বাংলাদেশে (অনুধাবন)
র. মন্ট্রিল অলিম্পিক অনুষ্ঠিত হয়
রর. বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন গঠিত হয়
ররর. বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশন প্রতিষ্ঠিত হয়
নিচের কোনটি সঠিক?
ক র ও রর খ র ও ররর  রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর
নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ২৩৭ ও ২৩৮ নং প্রশ্নের উত্তর দাও :
রাখিন ও শাহীন ভালো বন্ধু। রাখিন ব্যাডমিন্টনে আর শাহীন হ্যান্ডবলে পারদর্শী। খেলার সময় তাদেরকে নিজ নিজ দলের দায়িত্ব বহন করতে হয় বলে খেলার নিয়ম-কানুনের ব্যাপারে তারা বেশ সচেতন।
২৩৭. খেলায় ভালো করার জন্য রাখিনের কোনটি বেশি প্রয়োজন? (প্রয়োগ)
 ভালো ফুটওয়ার্ক খ দ্রæত বল ছোড়া
গ হাতের নমনীয়তা ঘ দীর্ঘ দম
২৩৮. খেলার সময় শাহীন বিশেষভাবে লক্ষ রাখে (উচ্চতর দক্ষতা)
র. গোলরক্ষক যাতে নিয়ম ভঙ্গ না করে
রর. প্রতিপক্ষের প্রতি কেউ যেন অবৈধ আচরণ না করে
ররর. দলের কেউ যাতে খেলোয়াড়োচিত আচরণ না করে
নিচের কোনটি সঠিক?
 র ও রর খ র ও ররর গ রর ও ররর ঘ র, রর ও ররর

প্রশ্ন \ ১ \ প্রয়োজনীয় অবকাঠামোগত সুবিধা একজন শিক্ষার্থীকে সুনাগরিক হিসাবে গড়ে তুলতে সাহায্য করে- ব্যাখ্যা কর।
উত্তর : শিক্ষার্থীদের সুনাগরিক হিসাবে গড়ে তোলার দায়িত্ব অনেকাংশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উপর বার্তায়। বর্তমানে শারীরিক শিক্ষাকে শিশুর সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ ও সামাজিকীকরণের জন্য অতীব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসেবে গণ্য করা হয়। তাই বাংলাদেশের মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শারীরিক শিক্ষা বিষয়টির সঠিক বাস্তবায়ন প্রয়োজন। আমাদের দেশে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অসংখ্য ছোট ছোট শিক্ষার্থীরা অধ্যয়ন করছে। এসব বিদ্যালয়ে শীতকালীন ও গ্রীষ্মকালীন সেশনে সরকারিভাবে দুটি ক্রীড়া অনুষ্ঠান ও বিনোদনমূলক প্রতিযোগিতা আয়োজনের ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু বাস্তবে বেশিরভাগ বিদ্যালয় বাৎসরিক একটি ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করেই ক্রীড়া ক্ষেত্রে তাদের ক্রীড়া কার্যক্রম শেষ করে থাকে। এছাড়াও বিদ্যালয়গুলোতে রয়েছে সঠিক খেলার মাঠের অভাব এবং মানসম্মত ক্রীড়া সামগ্রীর ঘাটতি। অবকাঠামোগত এসব অসুবিধার কারণে খেলাধুলা করার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়ে শিক্ষার্থীরা বেড়ে উঠলে ভবিষ্যতে জাতীয় স্বাস্থ্য হুমকির সম্মুখীন হবে। তাই অবকাঠামোগত অবস্থার উন্নয়ন ঘটাতে হবে। এজন্য দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত প্রতিটি বিদ্যালয়ে আবশ্যিকভাবে প্রাথমিক ক্রীড়া অবকাঠামো, ক্রীড়া সরঞ্জামাদি সরবরাহের ব্যবস্থা থাকতে হবে। প্রতিটি বিদ্যালয়ে ন্যূনতম ক্রীড়া অবকাঠামো হিসেবে একটি খেলার মাঠ, সাঁতারের জন্য একটি পুকুর অবশ্যই থাকতে হবে। আর এসব প্রয়োজনীয় অবকাঠামোগত সুবিধা শিক্ষার্থী পেলে খেলাধুলায় অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে শারীরিক, মানসিক এবং সামাজিক গুণাবলি অর্জন করে নিজেকে সুনাগরিক হিসাবে গড়ে তুলতে পারবে।
প্রশ্ন \ ২ \ জীবন রক্ষার জন্য সাঁতার জানা অপরিহার্য- ব্যাখ্যা কর।
উত্তর : সাঁতার প্রতিযোগিতামূলক একটি ক্রীড়া কৌশল। এটি একটি পূর্ণাঙ্গ ব্যায়াম। কেননা সাঁতারের সাহায্যে দেহের সকল অঙ্গের ব্যায়াম হয়। তবে সাঁতারের সবচেয়ে কার্যকর দিক হচ্ছে খেলাধুলার বাহিরেও জীবন রক্ষায় সহায়তা করে। আমরা দেখি সাঁতার না জানার কারণে অনেকে বিভিন্ন সময় দুর্ঘটনায় পড়ে এমনকি মৃত্যুবরণ করে। সাঁতার না জানার কারণে এ ধরনের মৃত্যু কোনভাবেই কাক্সিক্ষত নয়। বিদ্যালয়ে পুকুর বা সুইমিংপুল থাকলে সেখানে শিক্ষার্থীরা সাঁতার শিখে নিতে পারবে। ফলে পানিতে পড়ে দুর্ঘটনা ঘটার হাত থেকে রক্ষা পাবে। এই দৃষ্টিকোণ থেকে বলা যায়, জীবন রক্ষার জন্য সাঁতার জানা অপরিহার্য।
প্রশ্ন \ ৩ \ ভালো হকি খেলোয়াড় হতে হলে স্টপিং ও ড্রিবলিং আয়ত্ত করার বিকল্প নেইÑ মতামত দাও।
উত্তর : হকি খেলার ছয়টি মৌলিক কৌশল রয়েছে। তার মধ্যে দুইটি হলো স্টপিং ও ড্রিবলিং। আগত বল আয়ত্তে আনা এবং পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ অর্জন করার জন্য যে কৌশল প্রয়োগ করা হয় তাকে স্টপিং বলে। আর বলসহ সামনে এগিয়ে যাওয়াকে ড্রিবলিং বলে। বিপক্ষকে ধোঁকা দেয়া এবং বিপক্ষের গোলপোস্টের দিকে বল নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার জন্য ড্রিবলিং কার্যকর কৌশল। স্টপিং আয়ত্তে না আসলে হকি খেলোয়াড় কোনো বল নিয়ন্ত্রণে নিতে পারবে না। আবার ড্রিবলিং আয়ত্তে না আসলে তার পক্ষে গোল করা এবং সহখেলোয়াড়দের সাথে বল আদান-প্রদান করা অসম্ভব হয়ে পড়বে। তাই ভালো হকি খেলোয়াড় হতে হলে স্টপিং ও ড্রিবলিং আয়ত্ত করার বিকল্প নেই বলে আমি মনে করি।
প্রশ্ন \ ৪ \ দ্রæতগতির ফুটওয়ার্কই ভালো ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় হওয়ার পূর্বশর্তÑ ব্যাখ্যা কর।
উত্তর : ব্যাডমিন্টন খুব দ্রæতগতির খেলা। তাই পায়ের কাজ খুব দ্রæত হয়ে থাকে। কাজেই বিভিন্ন অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে খুব দ্রæত গতিতেই নিজেকে খাপ খাইয়ে নেওয়ার প্রয়োজন দেখা দেয়। এ ব্যাপারে পায়ের কাজটা সবচেয়ে বেশি। দ্রæত গতির খেলায় ফুটওয়ার্ক ভালো না হলে শাটল কক সঠিকভাবে সঠিক স্থানে পাঠানো বা ফেরানো যায় না। ভালো ফুটওয়ার্ক আয়ত্ত করতে পারলেই একজন খেলোয়াড় দ্রæততার সাথে শাটল ককের কাছে পৌঁছতে পারে এবং পছন্দমতো কোর্টে শাটল কক ফেরত পাঠাতে পারে। সুতরাং দ্রæতগতির ফুটওয়ার্কই ভালো ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় হওয়ার পূর্বশর্ত।
প্রশ্ন \ ৫ \ বাস্কেটবল খেলতে হলে ভায়োলেশন সম্পর্কে জানতে হবেÑ মতামত দাও।
উত্তর : বাস্কেটবল একটি নিয়মতান্ত্রিক খেলা। সুনির্দিষ্ট আইন কানুনের সাহায্যে বাস্কেটবল খেলতে হয়। আর ভায়োলেশন হচ্ছে আইন অমান্য করা। অর্থাৎ খেলার বিবিধ নিয়ম ভঙ্গ করাকেই ভায়োলেশন বলে। কোন খেলোয়াড় ভায়োলেশনের আওতায় পড়বে
১. বিনা ড্রিবলিংয়ে বল নিয়ে দুই স্টেপের বেশি হাঁটলে বা দৌঁড়ালে।
২. বল হাতে করে দুই পা এদিক-সেদিক নড়াচড়া করলে।
৩. দুই হাত দিয়ে বল ড্রিবলিং করলে।
৪. নিজ দলের আয়ত্তে বল থাকার সময় বিপক্ষ দলের সংরক্ষিত এলাকার ভিতরে তিন সেকেন্ডের বেশি অবস্থান করলে।
৫. পাঁচ সেকেন্ডের বেশি বলকে ধরে রাখলে।
৬. নিজ অর্ধের মধ্যে থেকে বিপক্ষ দলের অর্ধেক মাঠে ৮ সেকেন্ডের মধ্যে বল বাস্কেটে ফেলার চেষ্টা না করলে।
সুতরাং ভায়োলেশন সংক্রান্ত বিষয়গুলো না জানলে বাস্কেটবল খেলোয়াড় হওয়া সম্ভব নয়।
প্রশ্ন \ ৬ \ ফলস্ স্টার্ট একজন ক্রীড়াবিদকে প্রতিযোগিতার অযোগ্য করে তোলেÑ ব্যাখ্যা কর।
উত্তর : ফলস্ স্টাট একজন অ্যাথলেটিসের ক্রীড়া প্রতিযোগিতার জন্য সবচেয়ে বড় অযোগ্যতা। সাধারণত যেসব ক্রীড়া প্রতিযোগিতার কোনো প্রতিযোগী এককভাবে তার ইভেন্ট শুরু করে সেখানে ফলস স্টার্টের সম্ভাবনা দেখা দেয়। যেমনÑ ¯িপ্রন্ট আরম্ভের সময় আরম্ভকারী বলবেনÑঅন-ইওর মার্ক, সেট, বাঁশির শব্দ। মধ্যম ও দীর্ঘ দূরত্বে দৌড়ের সময় তিনি বলবেনÑ অন ইওর মার্ক, বাঁশির শব্দ। একজন প্রতিযোগী এ বিষয়গুলোর প্রতি বিশেষ দৃষ্টি রেখে প্রতিযোগিতার প্রস্তুতি নিয়ে প্রতিযোগিতায় অংশ নিবে। এগুলো তাকে সঠিক স্টার্ট নিতে সাহায্য করবে। আর এগুলোর প্রতি লক্ষ না রাখলে তার স্টার্ট ফলস্ হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি থাকবে। কিন্তু সে একবারও ফলস্ স্টার্ট নিতে পারবে না। নিলে অযোগ্য বলে গণ্য হবে। সুতরাং দেখা যাচ্ছে ফলস্ স্টার্ট একজন ক্রীড়াবিদকে সেই ইভেন্টে টিকে থাকার অযোগ্য ঘোষণা করার মাধ্যমে প্রতিযোগিতার অযোগ্য করে তোলে।

প্রশ্ন \ ৭ \ হ্যান্ডবল খেলায় কী কী কারণে ফ্রি থ্রো দেওয়া হয় লিখ।
উত্তর : হ্যান্ডবল খেলায় দুইটি পক্ষ থাকে। খেলার সময় এক পক্ষের খেলোয়াড়দের ইচ্ছাকৃত বা অনিচ্ছাকৃত নিয়ম ভঙ্গের কারণে শাস্তিস্বরূপ বিপক্ষ দল একটি ফ্রি থ্রো পায়। নিচের হ্যান্ডবল খেলায় বিপক্ষ দলকে ফ্রি থ্রো দেয়ার কারণগুলো উল্লেখ করা হলো :
১. গোলরক্ষক নিয়ম ভঙ্গ করলে।
২. ত্রæটিপূর্ণভাবে খেলোয়াড় বদলি করলে।
৩. মাঠের খেলোয়াড় গোলসীমা আইন ভঙ্গ করলে।
৪. প্রতিপক্ষের প্রতি অবৈধ আচরণ করলে।
৫. ত্রæটিপূর্ণ থ্রো-ইন করলে।
৬. যে কোনো থ্রো করতে ভুল করলে।
৭. ত্রæটিপূর্ণ থ্রো-অফ করলে।
৮. অখেলোয়াড়োচিত আচরণ করলে।
৯. গোলরক্ষক গোলসীমার বাইরের বল নিয়ে গোলসীমায় প্রবেশ করলে।
১০. গোলরক্ষকের কাছে গোলসীমায় ব্যাকপাস করলে।
প্রশ্ন \ ৮ \ প্রতিযোগিতামূলক সাঁতার কত প্রকারও কী কী? প্রজাপতি সাঁতারের নিয়মাবলি লিখ।
উত্তর : প্রতিযোগিতামূলক সাঁতারের প্রকারভেদ : প্রতিযোগিতামূলক সাঁতার চার প্রকার । যথা : ১. মুক্ত সাঁতার ; ২. চিৎ সাঁতার ; ৩. বুক সাঁতার ও ৪. প্রজাপতি সাঁতার।
প্রজাপতি সাতারের নিয়মাবলি : প্রজাপতি সাঁতারে শরীর খুব দ্রæত ওঠানামা করে। প্রতিযোগিতামূলক সাঁতারের মধ্যে এই সাঁতারটি সবচেয়ে কঠিন। তাই এই সাঁতারে ভালো করার জন্য সাঁতারুকে নির্দিষ্ট নিয়মাবলি অনুসরণ করে বারবার অনুশীলন করতে হয়। নিচে প্রজাপতি সাঁতারের নিয়মাবলি বর্ণনা করা হলো :
১. প্রজাপতি সাঁতার আরম্ভ বøকে ওঠে ঝাঁপ দিয়ে শুরু করতে হয়।
২. এই সাঁতার বুকের উপর ভর করে কাটতে হয়।
৩. লেন পরিবর্তন করা যাবে না।
৪. পায়ের পাতা দিয়ে কিক মারতে হবে।
৫. প্রতি স্ট্রোকে নিঃশ্বাস না নিলেও চলবে।
৬. হাত কোমরের পেছনে যেতে পারে।
৭. টার্নিং এর সময় দুই হাত দিয়ে একসাথে ওয়াল স্পর্শ করতে হবে।
৮. সমাপ্তি রেখায় দুই হাত একসাথে স্পর্শ করতে হবে।
প্রশ্ন \ ৯ \ ব্যাডমিন্টন খেলায় কী কী কারণে সার্ভিস ফল্ট হয়?
উত্তর : ব্যাডমিন্টন খেলায় একজন খেলোয়াড়কে খেলার নিয়ম কানুন মেনে খেলার শুরুতে এবং প্রতি পয়েন্টের শুরুতে প্রতিপক্ষের কোর্টে শাটল কক পাঠাতে হয়। এভাবে প্রতিপক্ষের কোর্টে শাটল কক পাঠানোকে সার্ভিস বলে। বিভিন্ন কারণে একজন খেলোয়াড়ের সার্ভিস ফল্ট হতে পারে। নিচে সার্ভিস ফল্ট হওয়ার কারণগুলো উল্লেখ করা হলো :
১. শাটল ককটি কোণাকুণি কোর্টে না পড়লে।
২. সার্ভিসের সময় কোর্ট থেকে যে কোনো পা শূন্যে উঠে গেলে।
৩. শাটল ককটি শর্ট সার্ভিস এরিয়ায় বা লং সার্ভিস এরিয়ায় পড়লে।
৪. শাটল ককটি কোর্টের বাইরে পড়লে।
৫. শাটল ককটি হাত থেকে ছেড়ে সার্ভিস না করলে।
৬. শাটল ককটি কোমরের উপরে তুলে সার্ভিস করলে।
৭. শাটল ককটি যদি নেটে আটকে যায়।
৮. সার্ভিস করার সময় কোর্টের দাগ স্পর্শ করলে।
৯. সার্ভিসকারী ইচ্ছাকৃতভাবে বিপক্ষ খেলোয়াড়কে ধোঁকা দিলে।
প্রশ্ন \ ১০ \ বাস্কেটবল খেলায় ফাউল এবং ভায়োলেশন কী? এই খেলার তিনটি ভায়োলেশন ব্যাখ্যা কর।
উত্তর : বাস্কেটবল খেলায় ফাউল এবং ভায়োলেশন : বাস্কেটবল খেলায় খেলা চলাকালীন সময় যদি একজন খেলোয়াড়ের সাথে বিপক্ষ একজন খেলোয়াড়ের ইচ্ছাকৃত সংঘর্ষ হয় তাহলে সেটা ফাউল। আর ভায়োলেশন হচ্ছে খেলার আইন অমান্য করা। অর্থাৎ খেলা চলাকালীন সময় খেলোয়াড় কর্তৃক খেলার বিবিধ নিয়ম ভঙ্গ করাকেই ভায়োলেশন বলে।
বাস্কেটবল খেলার তিনটি ভায়োলেশন : বাস্কেটবল একটি আন্তর্জাতিক খেলা। তাই এই খেলায় খেলোয়াড়দের বেশ কিছু নিয়ম মেনে চলতে হয়। তবে অনেক সময় তারা এসব নিয়ম যথাযথভাবে মেনে চলতে পারে না। ফলে তাদের ভায়োলেশনের কারণে শাস্তি ভোগ করতে হয়। নিচে এই খেলার তিনটি ভায়োলেশন ব্যাখ্যা করা হলো :
১. বিনা ড্রিবলিংয়ে দুই স্টেপের বেশি বল নিয়ে হাঁটা : বাস্কেটবল খেলায় খেলোয়াড়দের বল ড্রিবলিং করতে করতে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হয়। কিন্তু এক্ষত্রে কোনো খেলোয়াড় যদি বল হাতে নিয়ে বিনা ড্রিবলিংয়ে দুই স্টেপ বা তার বেশি হাঁটে বা দৌড়ায় তাহলে তা ভায়োলেশনের পর্যায় পড়ে।
২. রেস্ট্রিকটেড এরিয়ায় তিন সেকেন্ডের বেশি অবস্থান করা : বাস্কেটবল খেলার নিয়ম অনুযায়ী যে দলের খেলোয়াড় বল নিয়ন্ত্রণ করছে সেই দলের কোনো খেলোয়াড় রেস্ট্রিকটেড এরিয়ার বল ছাড়া তিন সেকেন্ডের বেশি সময় অবস্থান করতে পারবে না। এমনকি দাগও স্পর্শ করতে পারবে না। যদি কোনো খেলোয়াড় তা করে তাহলে ভায়োলেশন হিসেবে গণ্য হবে।
৩. পাঁচ সেকেন্ডের বেশি বল ধরে রাখা : বাস্কেটবল খেলায় কোনো খেলোয়াড় পাঁচ সেকেন্ডের বেশি সময় বল নিজের কাছে রাখতে পারে না। রেফারির সংকেতের পর বল যার কাছে থাকবে তাকে অবশ্যই পাঁচ সেকেন্ডের মধ্যে বল থ্রো করতে হবে। অন্যথায় ভায়োলেশন বলে গণ্য হবে।
প্রশ্ন \ ১১ \ প্রতিযোগিতামূলক সাঁতার কত প্রকার ও কী কী? মুক্ত সাঁতারের নিয়মাবলি লিখ।
উত্তর : প্রতিযোগিতামূলক সাঁতারের প্রকারভেদ : প্রতিযোগিতামূলক সাঁতার চার প্রকার । যথা : ১. মুক্ত সাঁতার; ২. চিৎ সাঁতার; ৩. বুক সাঁতার ও ৪. প্রজাপতি সাঁতার।
মুক্ত সাঁতারের নিয়মাবলি : মুক্ত সাঁতার পদ্ধতিতে খুব দ্রæত সাঁতার কাটা যায়। তবে সাঁতার প্রতিযোগিতায় এই পদ্ধতিতে সাঁতার কাটার ক্ষেত্রে প্রতিযোগিরা নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম অনুসরণ করে যা নিচে দেওয়া হলো :
১. মুক্ত সাঁতার আরম্ভ বøকে ওঠে শুরু করতে হয়।
২. মুক্ত সাঁতার উপুড় হয়ে সাঁতার কাটতে হয়।
৩. পা পানির নিচে সাধারণত ১২-১৮ ইঞ্চি পরিমাণে যায়।
৪. অন্য প্রতিযোগীর লেনে গিয়ে বাধার সৃষ্টি করতে পারবে না।
৫. পানির নিচ দিয়ে সাঁতার কাটা যাবে না।
৬. টার্নিংয়ের সময় শরীরের যে কোনো অংশ স্পর্শ করে টার্নিং নেয়া যাবে।
৭. সমাপ্তি যেকোনো অবস্থায় করা যাবে।
৮. হাতের কাজ পানির নিচে ঝ -এর মতো হবে।
প্রশ্ন \ ১২ \ অ্যাথলেটিকসকে কয়ভাগে ভাগ করা যায়? এর ইভেন্টগুলো ধারাবাহিকভাবে লিখ।
উত্তর : খেলাধুলার ক্ষেত্রে দৌড়, ঝাঁপ ও নিক্ষেপকে অ্যাথলেটিকস বলা হয়। অ্যাথলেটিকসকে দুই ভাগে ভাগ করা যায়। যথা : ১. ট্রাক ইভেন্ট ও ২. ফিল্ড ইভেন্ট।
ট্রাক ইভেন্টকে নিম্নলিখিতভাগে ভাগ করা হয়:
১. স্বল্প দূরত্বের দৌড় : ১০০ মিটার ¯িপ্রন্ট, ২০০ মিটার ¯িপ্রন্ট, ৪  ১০০ মিটার রিলে, ৪০০ মিটার হার্ডেল।
২. মধ্যম দূরত্বের দৌড় : ৮০০ মিটার দৌড়, ১৫০০ মিটার দৌড়, ৪  ৪০০ মিটার রিলে।
৩. দীর্ঘ দূরত্বের দৌড় : ৩০০০ মিটার স্টিপল চেজ (পুরুষ), ৫০০০ মিটার দৌড়, ৫০ কিলোমিটার হাঁটা।
ফিল্ড ইভেন্টকে নিম্নলিখিত ভাগে ভাগ করা হয়Ñ
১. লাফ বিভাগ : দীর্ঘ লাফ, উচ্চলাফ, ত্রি-লাফ ও পোলভল্ট।
২. নিক্ষেপ বিভাগ : গোলক নিক্ষেপ, চাকতি নিক্ষেপ, বর্শা নিক্ষেপ ও হাতুড়ি নিক্ষেপ।
প্রশ্ন \ ১৩ \ ব্যাডমিন্টন খেলায় র‌্যাকেট ধরাসহ সার্ভিস করার কৌশল বর্ণনা কর।
উত্তর : ব্যাডমিন্টন খেলায় ভালো করার জন্য খেলার মৌলিক কৌশলগুলো ভালোভাবে আয়ত্ত করতে হয়। র‌্যাকেট ধরা ও সার্ভিস করা ব্যাডমিন্টন খেলার মৌলিক কৌশলগুলোর মধ্যে অন্যতম। নিচে এই দুইটি কৌশল বর্ণনা করা হলো :
র‌্যাকেট ধরা : র‌্যাকেট সঠিকভাবে ধরার ওপরই ব্যাডমিন্টন খেলা অনেকটা নির্ভর করে। কাজেই সঠিকভাবে র‌্যাকেট ধরা শেখার জন্য মনে রাখতে হবে যে বাম হাতে র‌্যাকেটের মাথা ধরে খাড়াভাবে মাটিতে রেখে ধরে রাখতে হয়। তারপর ডান হাতের তালু উপুড় করে গ্রিপের শেষ প্রান্তে রেখে বৃদ্ধাঙ্গুলি ও তর্জনি সামনের দিকে প্রসারিত করে ইংরেজি ‘ঠ’ বর্ণের মতো করে গ্রিপ ধরতে হয়। ভালো গ্রিপ ধরা আয়ত্তে এলে ভালো খেলতে সাহায্য করে।
সার্ভিস করা : একজন খেলোয়াড় নিয়মকানুন মেনে খেলার শুরুতে এবং প্রতি পয়েন্টের শুরুতে প্রতিপক্ষের কোর্টে শাটল কক পাঠানোকে সার্ভিস বলে। এই সার্ভিসের মাধ্যমে শাটল খেলার মধ্যে আনা হয়। সার্ভিস করার সময় পা ফাঁক করে বাম পা ডান পায়ের কিছুটা সামনে নিয়ে দাঁড়াতে হয়। শরীরের ওজন পিছনের পায়ের ওপর রাখতে হয়। বাম হাতে শাটল কক ধরে, ডান হাতের র‌্যাকেটকে পিছনের দিক থেকে আনার মুহ‚র্তে শাটল কক ছেড়ে দিয়ে কোমরের নিচে আঘাত করে বিপক্ষ কোর্টে পাঠাতে হয়। শাটল কক ও র‌্যাকেটের সংযোগের সাথে সাথে দেহের ওজন বাম পায়ের ওপর নিয়ে আসতে হয়। সার্ভিস দুই প্রকার- শর্ট সার্ভিস ও লং সার্ভিস। শর্ট সার্ভিসে নেটের কাছাকাছি বিপক্ষের সার্ভিস কোর্টে শাটল কক পাঠানো হয় এবং লং সার্ভিসে কোর্টের পিছনের অংশে পাঠানো হয়।

প্রশ্ন \ ১৪ \ সুনাগরিক গঠনে খেলাধুলার ভ‚মিকা বর্ণনা কর।
[ইনজিনিয়ারিং ইউনিভারসিটি স্কুল এন্ড কলেজ, ঢাকা]
উত্তর : খেলাধুলা শরীর ও মনকে সতেজ রাখে। শরীর ও মনের যৌথ বোঝাপড়ার ওপরই নির্ভর করে তার ভবিষ্যৎ জীবনের সুখ-সমৃদ্ধি। খেলাধুলা তাই মন ও শরীর গঠনের অন্যতম উৎস। খেলাধুলার মাধ্যমে মানুষ খুঁজে পায় জীবন বিকাশের পথ, পায় জীবন সংগ্রামের দৃঢ় মনোবল। লাভ করে সাফল্য, উচ্ছ¡াস ও পরাজয়ের গøানিকে সহজভাবে মেনে নেয়ার দুর্লভ মানসিকতা। জীবনকে পরিচ্ছন্ন, গতিময় ও সাবলীল করার অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে এই খেলাধুলা। খেলাধুলার ধ্যান-ধারণার জন্য ছেলেরা কোনো অসামাজিক কার্যকলাপে নিজেদের জড়ায় না। সমাজের বড়দেরকে যথাযথ সম্মান করতে শেখে। হার জিতের যে ফলাফলটা সেটা ওদেরকে শক্ত করতে শেখায়, পাশাপাশি বাস্তববাদী করে তোলে। প্রকৃতপক্ষে এভাবেই খেলাধুলার দ্বারা শিক্ষার্থীরা শারীরিক, মানসিক ও সামাজিক গুণাবলি অর্জনের মাধ্যমে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠে।
প্রশ্ন \ ১৫ \ পরিমাণসহ একটি ব্যাডমিন্টন কোর্ট (দ্বৈত) অঙ্কন কর।
[রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ, ঢাকা]
উত্তর : ১৮৭০ সালে ভারতে সর্বপ্রথম ব্যাডমিন্টন খেলা চালু হয়। ব্যাডমিন্টন খেলার কোর্ট দুই ধরনের হয়। যথা : একক ও দ্বৈত। একক কোর্টের দৈর্ঘ্য ৪৪ ফুট এবং প্রস্থ ১৭ ফুট হয়। আর দ্বৈত কোটের দৈর্ঘ্য ৪৪ ফুট এবং প্রস্থ ২০ ফুট হয়। কোর্টের সকল দাগ হলুদ বা সাদা হয়। নিচে ব্যাডমিন্টন খেলার একটি কোর্ট (দ্বৈত) অঙ্কন করা হলো :

প্রশ্ন \ ১৬ \ ব্যাডমিন্টন খেলার জন্ম ইতিহাসসহ এই খেলার যেকোনো তিনটি আইনকানুন লেখ।
উত্তর : ব্যাডমিন্টন খেলার জন্ম ও ইতিহাস : ১৮৭০ সালে ভারতের পুনায় প্রথম ব্যাডমিন্টন খেলা শুরু হয়েছিল। জনৈক ইংরেজ সৈনিক কর্তৃক এই খেলা ভারত থেকে ইংল্যান্ডে নিয়ে যাওয়ার আগে তেমন জনপ্রিয় ছিল না। বো-ফোটের ডিউক ব্যাডমিন্টন খেলায় খুব আগ্রহী ছিলেন এবং তার গ্রামের নাম ব্যাডমিন্টন থেকে এই নামের উৎপত্তি। এ খেলা প্রথম অনুষ্ঠিত হয়েছিল ইংল্যান্ডের গøুসেস্টার সায়ারে বো-ফোটের ডিউকের নিজ বাড়িতে। ১৯৩৪ সালে ওহঃবৎহধঃরড়হধষ ইধফসরহঃরড়হ ঋবফবৎধঃরড়হ (ওইঋ) ইংল্যান্ডের সিলটেন হামে প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর অংরধহ ইধফসরহঃড়হ ঋবফবৎধঃরড়হ (অইঋ) গঠিত হয় ১৯৫৯ সালে। ১৯৬৬ সালে এশিয়ান গেমসে ব্যাডমিন্টন খেলা অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ১৯৭১ সালে গঠন করা হয় ইধহমষধফবংয ইধফসরহঃরড়হ ঋবফবৎধঃড়হ (ইইঋ)। বাংলাদেশে ব্যাডমিন্টন একটি জনপ্রিয় খেলা। গ্রামে-গঞ্জে সকল বয়সের খেলোয়াড় এই খেলা খেলে থাকেন।
ব্যাডমিন্টন খেলার আইনকানুন : ব্যাডমিন্টন একটি আন্তর্জাতিক খেলা। সারাবিশ্বে এই খেলাটি কিছু আন্তর্জাতিক আইনকানুন অনুসরণ করে খেলা হয়। নিচে ব্যাডমিন্টন খেলার তিনটি আইন উল্লেখ করা হলো :
১. খেলার কোর্ট : ব্যাডমিন্টন খেলার কোর্ট দুই ধরনের হয়ে থাকে একক ও দ্বৈত। একক কোর্টের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ যথাক্রমে ৪৪ ফুট ও ১৭ ফুট এবং দ্বৈত কোটের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ যথাক্রমে ৪৪ ফুট ও ২০ ফুট।
২. কোর্টের দাগ : সকল দাগের রং হলুদ বা সাদা হবে এবং দাগগুলো ৪০ মিলিমিটার চওড়া হবে।
৩. গেম : একক ও দ্বৈত উভয় খেলায় ২১ পয়েন্টে গেম হয়। উভয় খেলোয়াড় বা দল ২০-২০ পয়েন্ট অর্জন করলে সেক্ষেত্রে ২ পয়েন্টের ব্যবধানে এগিয়ে থেকে জয়লাভ করতে হবে, অর্থাৎ ২২-২০, ২৫-২৩ পয়েন্টে। উভয় দলের পয়েন্ট সমান হওয়াকে ডিউস বলে। মনে রাখতে হবে, এভাবে সর্বোচ্চ ৩০ পয়েন্টের মধ্যে অবশ্যই গেম শেষ করতে হবে। তিনটি গেমের মধ্যে যে বা যে দল দুই খেলায় জিতবে, সে বা সেই দল বিজয়ী হবে।
প্রশ্ন \ ১৭ \ ব্যাডমিন্টন খেলায় ডিউস কাকে বলে? ব্যাডমিন্টন খেলার মৌলিক কলাকৌশলগুলো বর্ণনা কর।
উত্তর : ডিউস : ব্যাডমিন্টন খেলায় একক ও দ্বৈত উভয় ক্ষেত্রে ২১ পয়েন্টে গেম হয়। উভয় খেলোয়াড় বা দল ২০-২০ পয়েন্ট অর্জন করলে সেক্ষেত্রে ২ পয়েন্টের ব্যবধানে এগিয়ে থেকে জয়লাভ করতে হবে, অর্থাৎ ২২-২০, ২৫-২৩ পয়েন্টে। তবে কখনো কখনো উভয় দল সমান পয়েন্ট অর্জন করে। এভাবে উভয় দলের পয়েন্ট সমান হওয়াকে ডিউস বলে।
ব্যাডমিন্টন খেলার মৌলিক কলাকৌশল : ব্যাডমিন্টন খেলা ভালোভাবে আয়ত্ত করতে হলে প্রয়োজন হাত ও কব্জির নমনীয়তা এবং সেই সাথে খেলোয়াড়দের এই খেলার মৌলিক কলাকৌশলগুলো জানতে এবং প্রয়োগ করতে হয়। নিচে ব্যাডমিন্টন খেলার মৌলিক কলাকৌশলগুলো উল্লেখ করা হলো :
১. র‌্যাকেট ধরা ৫. ব্যাকহ্যান্ড স্ট্রোক
২. পায়ের কাজ ৬. মাথার উপর দিয়ে মারা
৩. সার্ভিস ৭. নেটের কাছে মারা
৪. ফোরহ্যান্ড স্ট্রোক
প্রশ্ন \ ১৮ \ বাস্কেটবল খেলার ইতহিাস লেখ। কী কী কারণে বাস্কেটবল খেলায় ফাউল হয় লেখ।
উত্তর : বাস্কেটবল খেলার ইতিহাস : বাস্কেটবল খেলার প্রথম প্রচলন হয় ১৮৮১ সালে আমেরিকায়। তবে প্রতিযোগতামূলক খেলা শুরু হয় ১৮৯২ সাল থেকে। এ খেলার জনক হলেন আমেরিকার ¯িপ্রং ফ্রিল্ডে ওয়াই.এম.সি.এ কলেজের শারীরিক শিক্ষার পরিচালক ড. জেমস নেইসমিথ। ১৯৩২ সালে জার্মানিতে আন্তর্জাতিক বাস্কেটবল সংস্থা (ঋওইঅ) গঠিত হয়। ১৯৩৬ সালে বার্নিল অলিম্পিকে প্রথম প্রতিযোগিতামূলক খেলা হিসেবে বাস্কেটবল অন্তর্ভুক্ত হয়। আমেরিকার জাতীয় খেলা বাস্কেটবল। পৃথিবীর বহু দেশে এখন বাস্কেটবল জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এই উপমহাদেশে প্রথম বাস্কেটবল খেলা শুরু হয় কলকাতার ওয়াইএমসিএ কলেজে ড. জন হেনরি গ্রের উদ্যোগে। বাংলাদেশে খ্রিস্টান মিশনারি স্কুলগুলোতে প্রথম বাস্টেকবল খেলা শুরু হয়। ঢাকার সেন্ট গ্রেগরি, সেন্ট যোসেফ, চট্টগ্রামে সেন্ট প্লাসিড ইত্যাদি স্কুল প্রথম বাস্টেকবল খেলা শুরু করে। বাংলাদেশে বাস্কেটবল ফেডারেশনের উদ্যোগে বর্তমানে দেশে আন্তঃক্লাব ও জাতীয় পর্যায়ে বাস্কেটবল প্রতিযোগিতা হয়। এছাড়া আন্তঃস্কুল, আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয়, আন্তঃক্যাডেট কলেজ পর্যায়ে বাস্কেটবল প্রতিযোগিতা হয়।
বাস্কেটবল খেলায় ফাউল হওয়ার কারণ : বাস্কেটবল খেলায় যদি একজন খেলোয়াড়ের সাথে বিপক্ষের একজন খেলোয়াড়ের ইচ্ছাকৃত সংঘর্ষ হয় তাহলে তাকে ফাউল বলে। নিচে ফাউল হওয়ার বিভিন্ন কারণ উল্লেখ করা হলো :
১. বিপক্ষকে ধরলে, ধাক্কা মারলে বা দুই হাত দিয়ে বিপক্ষের অগ্রগতিতে বাধা দিলে এবং আঘাত করলে।
২. বল ড্রপ দিয়ে নিয়ে যাওয়ার সময় বিপক্ষের কাউকে জোর করে সরিয়ে দিলে।
৩. যার হাতে বল নেই তার গায়ে ইচ্ছাকৃতভাবে ধাক্কা দিলে।
৪. বিপক্ষ খেলোয়াড় অথবা আম্পায়ারের সাথে কোনোরূপ অসদাচরণ করলে।
প্রশ্ন \ ১৯ \ বাস্কেটবল খেলার কলাকৌশলগুলো বর্ণনা কর।
[নাসিরাবাদ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, চট্টগ্রাম]
উত্তর : বাস্কেটবল খেলাতে দরকার দম, দৌড়াবার ক্ষমতা, জাম্প দেয়ার ক্ষমতা এবং সাথে সাথে শরীরের ক্ষিপ্রতা। বাস্কেটবল খেলার মৌলিক কৌশলগুলো হলো :
১. দাঁড়াবার ভঙ্গি : বল নিয়ে দাঁড়াবার ভঙ্গিটি খেলার সময় বিশেষ তাৎপর্য বহন করে। কারণ খেলার অনেক সময়ই বল নিয়ে মুহ‚র্তের মধ্যে দাঁড়িয়ে পড়তে হয় সফল আক্রমণ ও প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য। সঠিকভাবে দাঁড়াবার জন্য সব সময় পা দুটোকে ফাঁক করে হাঁটু সামান্য ভেঙে দাঁড়াতে হয়।
২. বল ধরা : হাতের তালু দিয়ে নয় সরাসরি আঙুল ব্যবহার করে বলটিকে ধরতে হয়। এতে বলটা দখলে থাকে।
৩. বল পাস করা : চেস্ট পাস, আন্ডার পাস, বাউন্স পাস, ওভারহেড পাস এগুলোর মাধ্যমে বল পাস করা হয়। তবে চেস্ট পাস সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।
৪. ড্রিবলিং : হাতের কব্জি ও আঙুলগুলোর নিখুঁত ব্যবহারের মধ্য দিয়েই সুন্দরভাবে বলকে মাটিতে ঠেলে দিলেই বল লাফিয়ে ওঠে, তখন বল ধরা ও সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রণ রাখা সম্ভব হয়। এ সময় দৃষ্টি সামনে রাখতে হয়।
৫. পায়ের উপর ঘোরা : যখন খেলোয়াড় বল নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে, একটি পা একই জায়গায় রেখে অন্য পা-টিকে যেকোনো দিকে যতবার ইচ্ছা ঘুরিয়ে নেয়। একে ‘পিভটিং’ বলে।
৬. বাস্কেটে বল ছোড়া : দুই উপায়ে বল বাস্কেটে ছোড়া হয়ে থাকে। যথা :
সেট শুট : এক জায়গায় দাঁড়িয়ে থেকে শুট করাকে সেট শুট বলে। সাধারণত ৪ থেকে ৮ মিটার দূর থেকে গোল করার জন্য এটি ব্যবহার করা হয়।
লে-আপ শুট : কাছ থেকে গোল করার জন্য লে-আপ শুট নেয়া হয়। ঘুরে পেঁচিয়ে, প্রতিপক্ষকে পাস করে বল ড্রিবলিং করে হঠাৎ করে বাস্কেটের নিকট এসে শুট করাকে লে-আপ শুট বলে।
প্রশ্ন \ ২০ \ বাস্কেটবল খেলার বিভিন্ন শুটিং কৌশল বর্ণনা কর।
উত্তর : শুটিং বাস্কেট বল খেলার মৌলিক কৌশলগুলোর মধ্যে অন্যতম। খেলার সময় বল সরাসরি বাস্কেটের মধ্যে শুট করা যায়। আবার প্রথমে বোর্ডে সোজাসুজিভাবে লাগিয়ে রিংয়ের মধ্যে বল ঢুকানো যায়। নিম্নে বাস্কেট বল খেলার দুইটি শুটিং কৌশল বর্ণনা করা হলো :
১. সেট শুট : এক জায়গায় দাঁড়ানো অবস্থায় যে শুট করা হয়, তাকে সেট শুট বলে। এই শুট এক হাতে বা দুই হাতে করা যায়। এক হাত দিয়ে শুট করার সময় যে হাত দিয়ে শুট করা হয়, সে হাত বলের পিছনে থাকে এবং অন্য হাত বলের পাশে থাকে। শুটিংয়ের সময় পাশের হাত সরিয়ে নিচের হাত দিয়ে বলে ধাক্কা দিতে হয়। দুই হাতে শুটিংয়ের সময় উভয় হাত বলের পিছনে থাকে এবং উভয় হাত দিয়েই বল ঠেলে দিতে হয়। সাধারণত ৪ থেকে ৮ মিটার দূর থেকে গোল করার জন্য সেট শুট ব্যবহার করা হয়।
২. লে-আপ শুট : কাছ থেকে গোল করার জন্য লে-আপ শুট ব্যবহার করা হয়। এ ধরনের শুট করার জন্য খেলোয়াড় বল ড্রিবলিং করতে করতে সামনের দিকে এগিয়ে যায় এবং এক পা দিয়ে জোরে মেঝেতে আঘাত করে শরীর উঁচুতে তুলে নেয় এবং যে হাত দিয়ে বল মারবে সে হাত সম্পূর্ণ সোজা করে বল সোজাসুজি বাস্কেটে ফেলে অথবা বোর্ডে আঘাত করে বল বাস্কেটে ঢোকার কায়দায় মারে।
প্রশ্ন \ ২১ \ বিভিন্ন পরিমাপসহ একটি হ্যান্ডবল মাঠের চিত্র অঙ্কন কর। [খুলনা জিলা স্কুল; বীণাপাণি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, গোপালগঞ্জ]
উত্তর : হ্যান্ডবল খেলার মাঠের দৈর্ঘ্য ৪০ মিটার এবং প্রস্থ ২০ মিটার হবে। ৪০ মিটার লাইনকে পার্শ্বরেখা এবং ২০ মিটার লাইনকে প্রান্তরেখা বলে। নিচে একটি হ্যান্ডবল খেলার মাঠ একে দেখানো হলো :

প্রশ্ন \ ২২ \ হ্যান্ডবল খেলার যেকোনো পাঁচটি আইন লেখ।
[সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়, সুনামগঞ্জ]
উত্তর : হ্যান্ডবল একটি আন্তর্জাতিক খেলা। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে নির্দিষ্ট কিছু আইন মেনে এই খেলাটি অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। নিচে এই খেলার পাঁচটি আইন লেখা হলো :
১. হ্যান্ডবল মাঠের দৈর্ঘ্য ৪০ মিটার এবং প্রস্থ ২০ মিটার। ৪০ মিটার লাইনকে সাইড লাইন বা পার্শ্বরেখা এবং ২০ মিটার লাইনকে প্রান্তরেখা বা গোললাইন বলে।
২. প্রতিটি গোলপোস্ট লম্বায় ৩ মিটার। উচ্চতা ভ‚মি হতে ক্রসবারের নিচ পর্যন্ত ২ মিটার। গোলপোস্ট ও ক্রসবার ৮  ৮ সেন্টিমিটার ব্যাসযুক্ত বর্গাকার হবে।
৩. খেলার সময়সীমা হবে ২৫ + ১০ + ২৫ মিনিট।
৪. নির্ধারিত সময়ে খেলা অমীমাংসিত থাকলে অতিরিক্ত ৫ মিনিট করে অর্থাৎ ৫ + ১ + ৫ মিনিট খেলা হবে। এরপরও যদি ড্র থাকে, তাহলে আবার ৫ + ১ + ৫ মিনিট খেলা চলবে।
৫. খেলোয়াড়রা বাহু, মাথা, দেহ, ঊরু ও হাঁটু দিয়ে বলকে ধরতে, থামাতে বা আঘাত করতে পারবে না। বল ৩ সেকেন্ডের বেশি ধরে রাখতে বা ৩ পদক্ষেপের বেশি এগুতে পারবে না। হাঁটুর নিচের অংশ দিয়ে বল স্পর্শ করলে শাস্তিস্বরূপ বিপক্ষ দল ফ্রি থ্রো পাবে।
প্রশ্ন \ ২৩ \ বাস্কেটবল খেলার গোলপোস্টে বল ছোড়া এবং বল কাটিয়ে নিয়ে যাওয়ার কৌশল ব্যাখ্যা কর।
উত্তর : বাস্কেটবল খেলার জন্য দম, দৌড়াবার ও জাম্প দেওয়ার ক্ষমতা এবং সেই সাথে শরীরের ক্ষিপ্রতা প্রয়োজন। বাস্কেটবল খেলার মৌলিক কৌশলগুলো হলো : বল ধরা, বল পাস দেওয়া, গোলপোস্টে বল ছোড়া, বল কাটিয়ে নিয়ে যাওয়া এবং বাধা দেয়া। বাস্কেটবল খেলায় ভালো করার জন্য এই কৌশলগুলো খুব ভালোভাবে আয়ত্ত করতে হয়। নিচে গোলপোস্টে বল ছোড়া এবং বল কাটিয়ে নিয়ে যাওয়ার কৌশল ব্যাখ্যা করা হলো :
গোলপোস্টে বল ছোড়া : হ্যান্ডবলে গোল করতে হলে বল ছুড়ে মারাটাকে ভালোভাবে রপ্ত করতে হবে। বল ছুড়ে গোল করাটা বেশ কঠিন ব্যাপার। কারণ একটি নির্দিষ্ট সীমানার বাইরে থেকেই গোল করতে হয় ও গোলের আকারটাও বেশ ছোট। তবে হ্যান্ডবল খেলতে গেলে চটপটে হতে হবে। সেই সাথে গতিবেগ, ক্ষিপ্রতা, নমনীয়তা অবশ্যই থাকতে হবে। বলকে বিচ্ছিন্নভাবে ছুড়ে গোল করা যায়। যেমন : সরাসরি ছুড়ে মারা, পাস দিয়ে ছুড়ে মারা, লাফিয়ে মারা, বলকে মাটিতে মেরে উঠানো ইত্যাদি।
বল কাটিয়ে নিয়ে যাওয়া : হ্যান্ডবলকে হাতে করে তিন স্টেপের বেশি নিয়ে যাওয়া যায় না। তাই আয়ত্তে রাখতে হলে বলকে অবশ্যই মাটিতে ড্রপ দিয়ে তুলতে হবে অর্থাৎ বাউন্স করাতে হবে। এভাবে যতক্ষণ খুশি বলকে কাছে রাখা যেতে পারে।এক হাতেই বলকে বাউন্স করানো যায়। বলকে বাউন্স করাতে করাতে বিপক্ষকে কাটিয়ে এগিয়ে যাওয়া যেতে পারে।
প্রশ্ন \ ২৪ \ হকি খেলার ইতিহাস লেখ। এই খেলায় খেলোয়াড় কী কী করতে পারে না লেখ।
উত্তর : হকি খেলার ইতিহাস : যতদূর জানা যায় খ্রিষ্টপূর্ব দুই হাজার বছর আগে পারস্য দেশে হকি খেলার মতো এক প্রকার খেলার প্রচলন ছিল। পরে পারস্য থেকে গ্রিসে ও গ্রিস থেকে রোমে তা প্রচলিত হয়। পরে ফ্রান্সের লোকেরা ‘হকেট’ নামে খেলা শুরু করেন। হকেট একটি ফরাসি শব্দ, যার অর্থ মেষপালকের লাঠি। আরও অনেক পরে ইংল্যান্ডের লোকেরা ফ্রান্সের কাছ থেকে এই খেলা শিখে হকে নাম দিয়ে খেলতে শুরু করে। ইংরেজি উচ্চারণ অনুয়ায়ী পরবর্তীতে এই খেলা হকি নামে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। ১৯২৪ সালে আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশন গঠিত হয়। অলিম্পিকে পুরুষদের হকি ১৯০৮ সালে এবং মহিলাদের হকি ১৯৮০ সালে প্রথম অন্তর্ভুক্ত হয়। ১৯৫৮ সালে এশিয়ান গেমসে হকি অন্তর্ভুক্ত হয়। প্রথম বিশ্বকাপ হকি প্রতিযোগিতা শুরু হয় ১৯৭১ সালে। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন গঠিত হয়।
হকি খেলায় খেলোয়াড়ের জন্য নিষিদ্ধ কাজ : হকি খেলার আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী এই খেলা চলাকালীন সময় একজন খেলোয়াড়-
১. বল খেলার সময় ইচ্ছাকৃতভাবে পেছনের দিকে স্টিক তুলতে পারবে না।
২. বল খেলার সময় স্টিকের কোনো অংশ কাঁধের উপরে তুলতে পারবে না।
৩. বিপক্ষ খেলোয়াড়কে হিট, হুক, চার্জ, স্টিক দিয়ে আঘাত করতে পারবে না।
৪. বিপক্ষ খেলোয়াড়ের হাত বা কাপড় ধরে রাখতে পারবে না।
প্রশ্ন \ ২৫ \ হকি খেলার যে কোনো পাঁচটি আইন লেখ।
উত্তর : হকি একটি আন্তর্জাতিক খেলা। এই খেলার নির্দিষ্ট কিছু আইন আছে যা মেনে চলা খেলোয়াড়দের জন্য একান্ত আবশ্যক। নিচে এরূপ পাঁচটি আইন উল্লেখ করা হলো :
১. মাঠ : হকি খেলার মাঠের দৈর্ঘ্য ৯১.৪০ মিটার (১০০ গজ) এবং প্রস্থ ৫৫.০০ মিটার (৬০ গজ)।
২. ফ্লাগ পোস্ট : মাঠের প্রতি কর্ণারে একটি করে ফ্লাগ পোস্ট থাকবে। ফ্লাগ পোস্টের উচ্চতা কমপক্ষে ১.২০ মিটার ও সর্বোচ্চ ১.৫০ মিটার।
৩. বল : বলের ওজন ১৫৬ গ্রাম হতে ১৬৩ গ্রাম পর্যন্ত হতে পারে। বলের পরিধি ২২৪ মি.মি. হতে ২৩৫ মি.মি. বলের রং হবে সাদা।
৪. স্টিক : ৫১ মিলিমিটার ব্যাসের একটি রিং স্টিকের ভিতর দিয়ে চলে এলে স্টিকটি বৈধ বলে বিবেচিত হবে। স্টিকের ওজন ৭৩৭ গ্রামের বেশি হবে না।
৫. খেলোয়াড় : প্রত্যেক দলে ১৬ জনের বেশি খেলোয়াড় থাকতে পারবে না। খেলা চলাকালীন ১১ জন খেলোয়াড়ের বেশি মাঠে খেলতে পারবে না।
প্রশ্ন \ ২৬ \ হকি খেলায় ফ্রি হিট প্রদানের কারণ এবং প্রক্রিয়া লেখ।
উত্তর : হকি খেলায় ফ্রি হিট প্রদানের কারণ : হকি খেলায় নির্দিষ্ট কিছু কারণে ফ্রি হিট দেওয়া হয়। নিচে এই কারণগুলো উল্লেখ করা হলো :
১. আক্রমণকারী খেলোয়াড় বিপক্ষের ২৩ মিটার (২৫ গজ) এলাকার মধ্যে আইন ভঙ্গ করলে।
২. রক্ষণকারী খেলোয়াড় তাদের শ্যুটিং সার্কেলের বাইরে ২৩ মিটার এলাকার মধ্যে অনিচ্ছাকৃতভাবে আইন ভঙ্গ করলে।
৩. ২৩ মিটার এলাকার মধ্যে যেকোনো ধরনের অপরাধ করলে।
ফ্রি হিট করার প্রক্রিয়া : হকি খেলার ফ্রি হিট করার প্রক্রিয়া নিচে দেওয়া হলো :
১. বলটি অবশ্যই স্থির থাকবে।
২. সূচনাকারী বলটি পুশ অথবা হিট করতে পারবে।
৩. বলটি ইচ্ছাকৃতভাবে উঠিয়ে খেলা যাবে না।
৪. বিপক্ষ খেলোয়াড় বল হতে ৫ মিটার দূরত্বের ভিতরে অবস্থান করতে পারবে না।
প্রশ্ন \ ২৭ \ হকি খেলার যেকোনো তিনটি মৌলিক কৌশল বর্ণনা কর।
উত্তর : হকি খেলার মূল কৌশল ছয়টি। যথা : ১. হিট, ২. স্টপিং, ৩. পুশ, ৪. ফ্লিক; ৫. স্কুপ ও ৬. ড্রিবলিং। হকি খেলায় ভালো করার জন্য এই মৌলিক কৌশলগুলো ভালোভাবে আয়ত্ত করতে হয়। নিচে স্টপিং, পুশ ও ড্রিবলিং কৌশল বর্ণনা করা হলো :
১. স্টপিং : আসন্ন বল আয়ত্তে আনা এবং পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ অর্জন করার জন্য যে কৌশল প্রয়োগ করা হয়, তাকে স্টপিং বা ট্রাপিং বলে। এ সময় বাম হাত দিয়ে স্টিকের উপরিভাগ এবং ডান হাত দিয়ে মাঝামাঝি অংশ ধরতে হয়। স্টিকের সমতল অংশ বলের দিকে ফেরানো থাকে। দুই পা পৃথক ও পাশাপাশি অবস্থান করে। শরীরের ভর পায়ের উপর থাকে এবং দৃষ্টি বলের ওপর থাকে।
২. পুশ : বলের সাথে স্টিক লাগিয়ে কোনো শব্দ না করে প্রয়োজনীয় গতিমাত্রা প্রয়োগের মাধ্যমে বলটি মাঠ ঘেঁষে গড়িয়ে দেয়াকে পুশ বলে। এ সময় বাম হাত দিয়ে স্টিকের উপরের অংশে ধরতে হবে। ডান হাতের সাহায্যে স্টিকের প্রায় মধ্যভাগে ধরবে। বাম পা সামনে এবং ডান পা পেছনে থাকবে।
৩. ড্রিবলিং : বলসহ সামনে এগিয়ে যাওয়াকে ড্রিবলিং বলে। বিপক্ষকে ধোঁকা দেয়া এবং বিপক্ষের গোলপোস্টের দিকে বল এগিয়ে নেয়ার জন্য ড্রিবলিং কার্যকর কৌশল।
প্রশ্ন \ ২৮ \ সাঁতারের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস লেখ এবং সাঁতার অনুশীলনের সময় কী কী সতর্কতা মেনে চলতে হয় লেখ।
উত্তর : সাঁতারের ইতিহাস : বর্তমানে যে ধরনের সাঁতার আমরা দেখতে পাই, সে সাঁতার প্রথমে ইংরেজরা শুরু করে। সুইমিং শব্দ ইংরেজি সুইমিন থেকে এসেছে। ১৮৩৭ সালে লন্ডনে প্রথম প্রতিযোগিতামূলক সাঁতার অনুষ্ঠিত হয়। অলিম্পিকে ১৮৯৬ সাল থেকে পুরুষদের ও ১৯১২ সাল থেকে মহিলাদের সাঁতার অন্তর্ভুক্ত হয়। ১৯০৮ সালে সাঁতারের আন্তর্জাতিক সংস্থা ঋওঘঅ (ঋবফবৎধঃরড়হ ওহঃবৎহধঃরড়হধষ ফব ঘধঃরড়হ অসধঃবঁৎ) গঠিত হয়। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশন প্রতিষ্ঠিত হয়। সাঁতারের সাহায্যে দেহের সকল অঙ্গের ব্যায়াম হয় বলে একে পূর্ণাঙ্গ ব্যায়াম বলা হয়। স্বাস্থ্য, জীবন রক্ষা, ক্রীড়া ও আনন্দের জন্য সাঁতার শেখা সবার উচিত।
সাঁতার অনুশীলনের সময় সতর্কতা : সাঁতার অনুশীলনের সময় সম্ভাব্য দুর্ঘটনা এড়াতে একজন সাঁতারুকে নিম্নোক্ত সতর্কতা মেনে চলতে হয়Ñ
১. আবর্জনা ও বিপজ্জনক দ্রব্য মুক্ত করে সাঁতারের জায়গা নিরাপদ করা।
২. অল্প পানি বা অগভীর জায়গা বেছে নেওয়া।
৩. কেউ ডুবে গেলে তুলে আনতে পারে, এমন অভিজ্ঞ একজন সাঁতারুকে কাছে রাখা।
৪. ভাসমান বস্তু কাছে রাখা।
৫. আহার করার দেড় ঘণ্টার মধ্যে বা খালি পেটে সাঁতার অনুশীলন না করা।
৬. সম্ভব হলে লাইফ বোট বা লাইফ জ্যাকেট কাছে রাখা।
৭. লম্বা, মোটা ও শক্ত দড়ি বা বাঁশ কাছে রাখা।
৮. পোশাক পরিবর্তনের কক্ষ ও বাথরুম ঠিক আছে কিনা পরীক্ষা করে নেওয়া।
৯. কফ বা থুথু বাইরে ফেলার ব্যবস্থা রাখা।
প্রশ্ন \ ২৯ \ মুক্ত সাঁতারের কলাকৌশল বর্ণনা কর।
[বীণাপাণি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, গোপালগঞ্জ]
উত্তর : মুক্ত সাঁতার হলো দ্রæতভাবে সাঁতার কাটার পদ্ধতি। এ স্টাইলে খুব দ্রæত সাঁতার কাটা যায়। নিচে মুক্ত সাঁতারের কলাকৌশল বর্ণনা করা হলো :
দেহের অবস্থান : দেহটাকে উপুড় করে পানির সমান্তরাল রাখতে হবে। পানির মধ্যে মাথা মাঝে মাঝে পরিবর্তন করতে হয়- কখনো পানির উপর তুলে, আবার কখনো ঘাড়কে কাত করে। সাধারণত যারা কম দূরত্বের সাঁতার কাটে, তাদের মাথাটা একটু উপরের দিকে থাকে। আবার যারা মাঝারি বা লম্বা সাঁতার কাটে তাদের মাথাটা নিচের দিকে থাকে।
হাতের প্রক্রিয়া :
১. খাড়াভাবে হাতটাকে সোজা সামনে নিয়ে যেতে হবে।
২. হাতকে সোজা শরীরের পাশ দিয়ে ঘুরিয়ে পানির সমান্তরালে রেখে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।
৩. যখন হাতটা মাথার সামনের পানি স্পর্শ করবে, ঠিক তখনই পানির ভিতর হাতের কাজ শুরু হবে।
৪. হাতটা পানির ভিতর নিয়ে প্রথমে পানি টানতে হবে, পরে পিছনের দিকে ঠেলা দিতে হবে। এভাবে এক হাতের পর অন্য হাত অর্থাৎ ডান হাতের পর বাম হাতে পানি কেটে চলতে থাকবে।
পায়ের প্রক্রিয়া :
১. পায়ের কাজ কোমর থেকেই শুরু হয়। একের পর এক ডান পা ও বাম পা ওঠানামা করে সামনে এগোবে।
২. হাঁটুর কাছ থেকে পা ভাঁজ করতে হবে এবং পায়ের পাতা সোজা থাকবে।
৩. পায়ের গোড়ালি পানির উপরে আসবে না। পায়ের পাতা দিয়ে যখন পানিতে চাপ দেবে, তখন সেটা ১৮র্র্ র্ পরিমাণ পানির নিচে যাবে।
৪. মনে রাখতে হবে, দুই হাতে একবার ঘুরে আসার মধ্যে ৬ থেকে ১২ বার পায়ের পরিচালনা করা হয়।
প্রশ্ন \ ৩০ \ চিৎ সাঁতারের নিয়মাবলি লেখ।
উত্তর : প্রতিযোগিতামূলক চার প্রকার সাঁতারের মধ্যে চিৎ সাঁতার অন্যতম। অন্যান্য পদ্ধতির মতো এই পদ্ধতিতে সাঁতার কাটার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম রয়েছে। নিচে চিৎ সাঁতারের নিয়মাবলি বর্ণনা দেওয়া হলো :
১. চিৎ সাঁতার পানিতে নেমে হাতল ধরে আরম্ভ করতে হয়।
২. চিৎ সাঁতার চিৎ হয়ে কাটতে হয়।
৩. পা পানির নিচে সাধারণত ১৮-২৪ ইঞ্চি যায়।
৪. সাঁতারের সময় অন্যের লেনে যাওয়া যাবে না।
৫. চিৎ সাঁতারে পায়ের কিক হবে কোমর থেকে।
৬. চিৎ সাঁতারে শরীরের যেকোনো অংশ দিয়ে ঘূর্ণন করা যাবে। তবে চিৎ অবস্থায়।
৭. এই সাঁতারে শরীরের যেকোনো অংশ স্পর্শ করে সাঁতার সমাপ্ত করা যাবে, তবে চিৎ অবস্থায়।
প্রশ্ন \ ৩১ \ বুক সাঁতারের নিয়মাবলি লেখ।
উত্তর : প্রতিযোগিতামূলক চার প্রকার সাঁতারের মধ্যে বুক সাঁতার অন্যতম। অন্যান্য পদ্ধতির মতো এই পদ্ধতিতে সাঁতার কাটার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম রয়েছে। নিচে বুক সাঁতারের নিয়মাবলি বর্ণনা দেওয়া হলো :
১. ‘ডাইড’ দিয়ে সাঁতার আরম্ভ করতে হবে।
২. ‘টানিং ও ফিনিশিং’-এর সময় একসাথে দুই হাত দিয়ে সমাপ্তি ওয়াল স্পর্শ করতে হবে।
৩. সাঁতারের পূর্ণ সময় বুকের উপর শরীরের ভার থাকবে।
৪. অন্য প্রতিযোগীর লেনে গিয়ে বাধার সৃষ্টি করতে পারবে না।
৫. পানির নিচ দিয়ে সাঁতার দেওয়া যাবে না।
৬. পা উপরে-নিচে তুলে সাঁতরানো যাবে না।
৭. উভয় হাত ও উভয় পা একই সময় এবং একই কায়দায় সঞ্চালন করতে হবে।
প্রশ্ন \ ৩২ \ বুক সাঁতারের কলাকৌশল বর্ণনা কর। [রংপুর জিলা স্কুল]
উত্তর : বুক সাঁতার এক প্রকার প্রতিযোগিতামূলক সাঁতার। এই সাঁতারে ভালো করার জন্য সাঁতারুদের নির্দিষ্ট কিছু কলাকৌশল বারবার অনুশীলন করে আয়ত্তে আনতে হয়। নিচে বুক সাঁতারের কলাকৌশল বর্ণনা করা হলো :
দেহের অবস্থান : বুক সাঁতার কাটার সময় দেহটাকে প্রায় পানির সমান্তরাল রাখতে হয়। পিছনের অংশ পানির সমান্তরাল থেকে ১০ ডিগ্রির মতো পানি নিচের দিকে থাকে।
হাতের প্রক্রিয়া : দুই হাতকে পানির মধ্যে একসঙ্গে নিতে হবে। হাতের তালু একটু নিচে ও বাইরের দিকে রাখতে হয়। কনুই ভেঙে দুই হাত দিয়ে নিচের দিকে চাপ দিতে হয় এবং হাত দুটো বুকের সামনে আসার সাথে সাথে সামনের দিকে নিয়ে যেতে হয়। হাত চালানোটা অনেকটা হৃৎপিণ্ডের আকারের মতো হয়। ঘোরা (টানিং) এবং সাঁতার শেষ করার (ফিনিশিং) সময় দুই হাত দিয়ে একই সাথে দেয়াল স্পর্শ করতে হবে।
পায়ের প্রক্রিয়া : পা দুটো দিয়ে হাঁটু ভেঙে পানিতে ব্যাঙের মতো পিছনের দিকে লাথি মারতে হয়। পায়ের পাতা বাইরের দিকে রাখতে হয়।
শ্বাসপ্রশ্বাস : মাথা সামনে-উপরে তুলে শ্বাস নিতে হয় এবং পানির ভিতরে ছাড়তে হয়।
প্রশ্ন \ ৩৩ \ প্রজাপতি সাঁতারের কৌশল বর্ণনা কর।
উত্তর : সাঁতার কাটার বিভিন্ন কৌশলের মধ্যে প্রজাপতি সাঁতার সবচেয়ে কঠিন। এই সাঁতারে সাঁতারুকে অনেক পরিশ্রম করতে হয়। এর কলাকৌশল আয়ত্ত করতে সাঁতারুকে অনেক অনুশীলন করতে হয়। নিচে প্রজাপতি সাঁতারের কৌশল বর্ণনা করা হলো :
দেহের অবস্থান : প্রজাপতি সাঁতারে শরীর খুব দ্রæত ওঠানামা করে। পা দ্বারা যখন নিচের দিকে লাথি মারা হয় কোমর তখন উপরের দিকে ওঠে আসে। পুনরায় পানি টানার জন্য হাতকে যখন প্রস্তুত করা হয়, তখন মাথা ও ঘাড় পানির নিচে চলে যায়।
হাতের কাজ : প্রজাপতি সাঁতারে দুই হাতের কাজ সব সময় এক সাথে হবে। হাতের কনুইকে বাঁকা এবং উঁচু করে নিচের দিকে এবং বাহিরমুখী করে পানিতে চাপ দিতে হবে। বুকের দুই পাস থেকে শরীর ঘুরিয়ে বুকের নিচে হাত নিয়ে আসতে হবে এবং পরে পানির নিচে হাতকে কোমর পর্যন্ত নিয়ে যেতে হবে।
পায়ের কাজ : এই সাঁতারে পায়ের অবস্থান হবে ডলফিন কিকের মতো। দুই পা সব সময় একত্রে ওঠানামা করবে। শরীর শোয়ানো অবস্থায় পা দুটো একত্রে সোজা করে রাখতে হবে এবং কাঁধের ওপর ভর করে ঢেউ খেলানো ভঙ্গিতে পা সামনের দিকে নিয়ে যেতে হবে।
শ্বাসপ্রশ্বাস : মাথা পানির ওপরে থাকা অবস্থায় মুখ দিয়ে শ্বাস গ্রহণ করতে হয়। শ্বাস গ্রহণের সময় ঘাড় নমনীয় থাকবে।
প্রশ্ন \ ৩৪ \ মিডলে সাঁতার কত প্রকার ও কী কী? মিডলে রিলের সাঁতারের ধারাবাহিকতা লেখ। [আদমজী ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল, ঢাকা]
উত্তর : মিডলে সাঁতারের প্রকারভেদ : মিডলে সাঁতার দুই প্রকার। যথা : ১. ব্যক্তিগত মিডলে ও ২. দলগত মিডলে।
মিডলে রিলে সাঁতারের ধারাবাহিকতা : মিডলে রিলে সাঁতারের নির্দিষ্ট ধারাবাহিকতা বজায় রেখে সাঁতারুদের সাঁতার কাটতে হয়। মিডলে রিলে সাঁতারের ধারাবাহিকতা নিচে বর্ণনা করা হলো :
ব্যক্তিগত মিডলে : ব্যক্তিগত মিডলে সাঁতারে সাঁতারুকে ৪টি স্টাইলে নির্দিষ্ট দূরত্ব অতিক্রম করতে হয়। প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত স্টাইলসমূহ ধারাবাহিকভাবে অনুসরণ করতে হবেÑ
প্রজাপতি সাঁতার; চিৎ সাঁতার; বুক সাঁতার; মুক্ত সাঁতার
দলগত মিডলে : দলগত মিডলে সাঁতারের চারজন সাঁতারুকে ৪টি স্টাইলের নির্দিষ্ট দূরত্ব অতিক্রম করতে হয়। পর্যায়ক্রমিকভাবে স্টাইলের নাম দেওয়া হলো :
চিৎ সাঁতার; বুক সাঁতার; প্রজাপতি সাঁতার ও মুক্ত সাঁতার
প্রশ্ন \ ৩৫ \ গোলক ধরার কৌশলসহ কীভাবে গোলক নিক্ষেপকারীর একটি সুযোগ নষ্ট হয় বর্ণনা কর।
[ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ, রংপুর; রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ, ঢাকা]
উত্তর: গোলক ধরার কৌশল : অ্যাথলেটিকসে ফিল্ড ইভেন্টে যেসব খেলা অন্তর্ভুক্ত গোলক নিক্ষেপ তার মধ্যে অন্যতম। গোলক নিক্ষেপে ভালো করার জন্য সঠিকভাবে গোলক ধরা অতি জরুরি। নিচে গোলক ধরার কৌশল ব্যাখ্যা করা হলো :
১. শটপুটকে প্রথমে বিপরীত হাতের তালুতে রাখতে হবে।
২. যে হাত দিয়ে নিক্ষেপ করবে সে হাত দিয়ে ধরতে হবে।
৩. ধরার সময় শটপুটটা রাখতে হবে আঙুলের ইধংব এর সাথে স্পর্শ করে।
৪. নিক্ষেপ করার সময় সাপোর্ট থাকবে বৃদ্ধ ও কনিষ্ঠ আঙুলের এবং শক্তি থাকবে অন্য তিন আঙুলের উপরে।
গোলক নিক্ষেপকারীর একটি সুযোগ নষ্টের কারণ : গোলক নিক্ষেপের ক্ষেত্রে মোট প্রতিযোগী যদি ৮ জন বা কম হয়, সেক্ষেত্রে প্রত্যেক প্রতিযোগী ৬টি করে নিক্ষেপ করার সুযোগ পাবে। আর প্রতিযোগী যদি ৮ জনের অধিক হয়, সেক্ষেত্রে প্রত্যেকে ৩টি করে নিক্ষেপ করার সুযোগ পাবে। তবে নিক্ষেপকারী যদি যথেষ্ট মনোযোগী না হয় তাহলে নিম্নোক্ত কারণে তার একটি সুযোগ নষ্ট হতে পারে-
১. বৃত্তের বাইরে থেকে পদক্ষেপ নিয়ে ভিতরে এসে নিক্ষেপ করলে।
২. গোলকটি সেক্টর লাইনের দাগ স্পর্শ বা বাইরে পড়লে।
৩. নিক্ষেপের সময় নিক্ষেপকারী বৃত্তের বাইরে ভ‚মি স্পর্শ করলে।
৪. স্টপ বোর্ডে উপরিভাগ স্পর্শ করলে।
৫. নিক্ষেপকারী বৃত্তের সামনের অংশ দিয়ে বের হলে।
৬. নাম ডাকার ৬০ সেকেন্ডের মধ্যে নিক্ষেপ না করলে।
প্রশ্ন \ ৩৬ \ একজন প্রতিযোগী কী কী কারণে দীর্ঘ লাফ ও উচ্চ লাফের সুযোগ হারায় লেখ। [আদমজী ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল, ঢাকা]
উত্তর : প্রতিযোগিতার সময় ৮ জনের বেশি প্রতিযোগী লাফে অংশগ্রহণ করলে সকল প্রতিযোগীদের ৩টি লাফের সুযোগ দিয়ে দূরত্বের ক্রম অনুসারে প্রথম ৮ জনকে বাছাই করে তাদেরকে পুনরায় আরও ৩টি লাফের সুযোগ দিতে হবে। ৮ জন বা তার কম প্রতিযোগী লাফে অংশগ্রহণ করলে, সকল প্রতিযোগীকে ৬টি করে লাফ দেয়ার সুযোগ দিতে হবে। তবে প্রতিযোগী যদি খেলাধুলার নিয়মকানুনের ব্যাপারে সচেতন না হয় তাহলে তার লাফ দেয়ার সুযোগটি নষ্ট হবে।
দীর্ঘ লাফের সুযোগ হারানোর কারণ : দীর্ঘ লাফ প্রতিযোগিতায় একজন প্রতিযোগী নিম্নোক্ত কারণে তার একটি সুযোগ হারায়Ñ
১. প্রতিযোগী টেক অফ বোর্ডের সামনের ভ‚মি স্পর্শ করলে।
২. টেক অফ বোর্ডের বাইরে দিয়ে লাফ দিলে।
৩. ল্যান্ডিংয়ের পূর্বে ল্যান্ডিং এরিয়ার বাইরের মাটি স্পর্শ করলে।
৪. লাফ শেষ করার পর পিছনের দিকে হেঁটে আসলে।
৫. সামার সল্ট বা দুই পায়ে টেক অফ দিয়ে লাফ দিলে।
৬. নাম ডাকার ৬০ সেকেন্ডের মধ্যে লাফ দিতে ব্যর্থ হলে।
উচ্চ লাফের সুযোগ হারানোর কারণ : উচ্চ লাফের একজন প্রতিযোগী নিম্নোক্ত কারণে তার একটি সুযোগ হারায়Ñ
১. নাম ডাকার ৬০ সেকেন্ডের মধ্যে লাফ দিতে ব্যর্থ হলে।
২. জাম্প করার ক্রসবার পড়ে গেলে।
৩. জাম্প করতে এসে জাম্প না করে ক্রসবারের নিচ দিয়ে অতিক্রম করলে।
৪. দুই পার্শ্বের স্ট্যান্ডের বাইরে শরীরের অংশ চলে গেলে।
প্রশ্ন \ ৩৭ \ চাকতি ধরার কৌশল ও চাকতি নিক্ষেপে অকৃতকার্য হওয়ার কারণ লেখ।
উত্তর : চাকতি নিক্ষেপ ফিল্ড ইভেন্টের নিক্ষেপ বিভাগের একটি খেলা। এই খেলায় ভালো করার জন্য চাকতি ধরা ও নিক্ষেপ করার কৌশল ভালোভাবে আয়ত্ত করতে হয়। নিচে চাকতি ধরার কৌশল ও চাকতি নিক্ষেপে অকৃতকার্য হওয়ার কারণ উল্লেখ করা হলো :
চাকতি ধরার কৌশল :
ক. প্রথমে বিপরীত হাতে চাকতি রাখতে হবে।
খ. মসৃণ পিঠ উপরে থাকবে।
গ. যে হাতে নিক্ষেপ করা হবে, সে হাতের মাধ্যমে তিন আঙুলের প্রথম ভাঁজে চাকতি আঁকড়িয়ে ধরতে হবে।
ঘ. আঙুলগুলো ফাঁকা করে রাখতে হবে।
চাকতি নিক্ষেপে অকৃতকার্য হওয়ার কারণ : নিম্নোক্ত কারণে একজন প্রতিযোগী চাকতি নিক্ষেপে অকৃতকার্য হতে পারেÑ
ক. চাকতিটি সেক্টর লাইন স্পর্শ করলে বা বাইরে পড়লে।
খ. নিক্ষেপকারী নিক্ষেপের সময় বৃত্তের বাইরের ভ‚মি স্পর্শ করলে।
গ. নিক্ষেপের পর নিক্ষেপকারী বৃত্তের সামনের অংশ দিয়ে বের হলে।
ঘ. লোহার পাতের ওপরের অংশ স্পর্শ করলে।
ঙ. বৃত্তের ভিতর থেকে নিক্ষেপ না করলে।
চ. নাম ডাকার ৬০ সেকেন্ডের ভিতর নিক্ষেপ না করলে।
প্রশ্ন \ ৩৮ \ টাই কী? উচ্চতার টাই ভাঙার নিয়ম ছকসহ ব্যাখ্যা কর।
উত্তর : টাই : টাই অর্থ সমতা বা সমান। যখন একাধিক প্রতিযোগী একই উচ্চতা বা একই দূরত্ব অতিক্রম করে, তখন টাই হয়। টাই শুধু প্রথম স্থান নির্ধারণের জন্য করতে হয়। ২য় ও ৩য় স্থান যৌথভাবে দেয়া হয়।
উচ্চতার টাই ভাঙার নিয়ম : উচ্চতার টাই ভাঙার নিয়ম নিচে বর্ণনা করা হলো :
১. যে উচ্চতায় টাই হয়েছে, সে উচ্চতায় যে কম চেষ্টায় অতিক্রম করেছে সে প্রথম হবে।
২. উপরের নিয়মে টাই না ভাঙলে ১ম থেকে শেষ পর্যন্ত যার ক্রস কম সে ১ম হবে।
৩. এর পরেও যদি টাই না ভাঙে তাহলে উচ্চতা বাড়িয়ে বা কমিয়ে লাফ দেওয়াতে হবে, যে অতিক্রম করবে সে বিজয়ী হবে। এখানে প্রতিযোগীগণ ১টি করে লাফের সুযোগ পাবে। নিম্নে ছক এঁকে দেখানো হলো।
প্রতিযোগী উচ্চতা অকৃত কার্য পুনারায় লাফ স্থান
১.৭৫ মি: ১.৮০ মি: ১.৮৪ মি: ১.৮৮ মি: ১.৯১ মি: ১.৯৪ মি: ১.৯১ ১.৮৯ ১.৯১
ক ০  ০ ০  ০  – ২  ০  ২
খ –  ০ –  ০ –  ২  ০ ০ ১
গ – ০  ০  ০  – ২   – ৩
ঘ  ০ ০  ০  ০  – ৩ – – – ৪
০ অতিক্রম করা  অকৃতকার্য – লাফ দেয়নি।
এখানে দেখা যাচ্ছে, ১.৯১ মি. উচ্চতা কেউই পার হতে পারেনি। ১.৮৮ মি. উচ্চতা সবাই দ্বিতীয় চেষ্টায় অতিক্রম করেছে। টাই সমাধানের ২নং সূত্রমতে দেখতে হবে ক্রস কম কার। ক্রসও তিনজনের ২টি করে অর্থাৎ ২নং সূত্রমতেও টাই ভাঙছে না। এখন ৩নং সূত্র অনুসরণ করতে হবে। ৩য় সূত্রমতে ঐ তিনজন প্রতিযোগীকে পুনরায় ১টি লাফ দিতে হবে।
এখানে দেখা যাচ্ছে, ১.৮৯ মি. উচ্চতা ক এবং খ অতিক্রম করেছে। এ দুজনের মধ্যে আবার টাই হয়েছে। বার উপরে তুলে ১.৯১ মি. উচ্চতায় ঐ দুই জন ১টি করে লাফ দিয়ে ক অকৃতকার্য হয়েছে এবং খ অতিক্রম করেছে। তাহলে ফলাফল হলো। খ-১ম, ক-২য়, গ-৩য় ও ঘ-৪র্থ।

 

প্রিয় জনের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply