তৃতীয় শ্রেণির বাংলা স্টিমারের সিটি অনুশীলনীর প্রশ্ন উত্তর ও মডেল টেস্ট

You are currently viewing তৃতীয় শ্রেণির বাংলা স্টিমারের সিটি অনুশীলনীর প্রশ্ন উত্তর ও মডেল টেস্ট

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীর প্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধুরা তোমাদের জন্য আমরা আজকে নিয়ে এলাম তৃতীয় শ্রেণির বাংলা স্টিমারের সিটি অনুশীলনীর প্রশ্ন উত্তর ও মডেল টেস্ট। এখানে তোমরা তৃতীয় শ্রেণীর ১৮ অধ্যায় স্টিমারের সিটি অনুশীলনীর সকল প্রশ্ন-উত্তর সেই সাথে অতিরিক্ত কিছু প্রশ্ন উত্তর এবং একটি মডেল টেস্ট পেয়ে যাবে।

তৃতীয় শ্রেণির বাংলা স্টিমারের সিটি

রচনাটির মূলভাব জেনে নিই
স্টিমারে চড়ে নদীপথে ভ্রমণের একটি বর্ণনা দেওয়া আছে রচনাটিতে। বাবা-মায়ের সাথে নদীপথে চাঁদপুর যায় লেখক ও তার ভাইবোনেরা। এর মাধ্যমে প্রথম নদীপথে ভ্রমণ এবং স্টিমারে চড়ার অভিজ্ঞতা লাভ করে তারা। স্টিমারের সাজসজ্জা ও নদীপথের নানা দৃশ্য দেখে সবাই মুগ্ধ হয়।
 বানানগুলো লক্ষ করি
পরীক্ষা, ভ্রমণ, অভিজ্ঞতা, স্টিমার, প্রশস্ত, ধলেশ্বরী, শীতলক্ষ্যা, বুড়িগঙ্গা, দৃশ্য, শ্যামল, বিস্তীর্ণ, ক্যামেরা, বাইনোকুলার, যাত্রীবাহী, কাপ্তান, পদ্মা, নদীবন্দর।

৩য় শ্রেণির বাংলা স্টিমারের সিটি অনুশীলনীর প্রশ্ন উত্তর

১. শব্দগুলো পাঠ থেকে খুঁজে বের করি। অর্থ বলি।
ভ্রমণ অভিজ্ঞতা প্রশস্ত শ্যামল শস্য কাপ্তান
উত্তর :
ভ্রমণ  বেড়ানো।
অভিজ্ঞতা  দেখা ও জানার মাধ্যমে লাভ করা জ্ঞান।
প্রশস্ত  চওড়া। প্রসারিত। বিস্তৃত।
শ্যামল  শ্যাম বা সবুজ বর্ণের।
শস্য  ফসল।
কাপ্তান  জাহাজের পরিচালক।
২. ঘরের ভিতরের শব্দগুলো খালি জায়গায় বসিয়ে বাক্য তৈরি করি।
অভিজ্ঞতা ভ্রমণে প্রশস্ত কাপ্তানের শ্যামল শস্য
উত্তর :
ক) নতুন নতুন জায়গা দেখলে অভিজ্ঞতা হয়।
খ) ভ্রমণে আনন্দ হয়।
গ) বাংলার প্রকৃতির রূপ শ্যামল ।
ঘ) মাঠে শস্য ফলে।
ঙ) ছাদে রয়েছে কাপ্তানের একটি ছোট ঘর।
চ) ঢাকার রাস্তাগুলো অনেক প্রশস্ত ।
৩. যুক্তবর্ণগুলো চিনে নিই। যুক্তবর্ণ দিয়ে তৈরি করা নতুন শব্দ পড়ি।
অভিজ্ঞতা বিজ্ঞ, বিজ্ঞান
স্টিমার ফাস্ট, লাস্ট
কাপ্তান সপ্ত, দীপ্ত
৪. ঠিক উত্তরটি বাছাই করে বলি ও লিখি।
ক) নদীপথে কোথায় যাওয়া ঠিক হলো?
১. বরিশাল ২. খুলনা
৩. চাঁদপুর ৪. মুন্সিগঞ্জ
খ) তনু সাথে করে কী নিয়ে এসেছিল?
১. বই ২. ক্যামেরা
৩. খাবার ৪. বাইনোকুলার
গ) হঠাৎ করে পানির ভেতর থেকে কী লাফ দিলো?
১. শুশুক ২. মাছ
৩. কুমির ৪. ইলিশ মাছ
ঘ) পদ্মা এবং মেঘনা যেখানে মিশেছে সেখানে দেখা যায় নাÑ
১. পানি ২. নৌকা
৩. তীর ৪. লঞ্চ
উত্তর : ক) ৩. চাঁদপুর; খ) ৪. বাইনোকুলার; গ) ১. শুশুক; ঘ) ৩. তীর।
৫. মুখে মুখে উত্তর বলি ও লিখি।
ক) চাঁদপুর কিসের জন্য বিখ্যাত?
উত্তর : চাঁদপুর ইলিশ মাছ ও নদীবন্দরের জন্য বিখ্যাত।
খ) তনু ও নিনা নদীতীরে কী কী দেখেছিল?
উত্তর : তনু ও নিনা নদীতীরের একপাশে দেখেছিল শ্যামল শস্যের বিস্তীর্ণ মাঠ। আরেক পাশে গাছপালায় ঘেরা গ্রাম।
গ) মেঘনা ও পদ্মার সংযোগস্থল দেখতে কেমন?
উত্তর : মেঘনা ও পদ্মার সংযোগস্থলে এক তীর থেকে আরেক তীর দেখা যায় না। কেবল পানি আর পানি।
ঘ) স্টিমারের পেছনে ঝাঁক বেঁধে ওড়ে কোন পাখি?
উত্তর : স্টিমারের পেছনে ঝাঁক বেঁধে ওড়ে সাদা গাংচিল।
ঙ) স্টিমারের সিটি বাজে কেমন করে?
উত্তর : স্টিমারের সিটি বাজে ভোঁ শব্দে।
৬. নদী পাড়ের দৃশ্য সম্পর্কে তিনটি বাক্য লিখি।
উত্তর : নিচে নদীপাড়ের দৃশ্য সম্পর্কে তিনটি বাক্য লেখা হলোÑ
(১) নদী পাড়ে মানুষের ঘরবাড়ি, হাটবাজার, বন্দর ইত্যাদি দেখা যায়।
(২) নদী পাড়ে হাঁস, বক, কচ্ছপ ইত্যাদি প্রাণীর দেখা পাওয়া যায়।
(৩) নদীর পাড়ে কোথাও গাছপালায় ঘেরা ঘন জঙ্গল, আবার কোথাও বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠ।
৭. ডান দিক থেকে ঠিক শব্দটি বেছে নিয়ে খালি জায়গায় বসাই।
ক) স্টিমারের সিটিটা হঠাৎ ………. করে বেজে উঠল।

খ) নদীপথে ভ্রমণের নতুন ………. লাভ করব।

গ) ……… মধ্যে আমরা পৌঁছে গেলাম ঢাকার সদরঘাটে।

ঘ) নদীর পানির ওপরে সাদা ………. উড়ে বেড়াচ্ছে।

ঙ) চাঁদপুর ………. ও নদীবন্দরের জন্য বিখ্যাত।

উত্তর :
ক) স্টিমারের সিটিটা হঠাৎ ভোঁ করে বেজে উঠল।
খ) নদীপথে ভ্রমণের নতুন অভিজ্ঞতা লাভ করব।
গ) আটটার মধ্যে আমরা পৌঁছে গেলাম ঢাকার সদরঘাটে।
ঘ) নদীর পানির ওপরে সাদা গাংচিল উড়ে বেড়াচ্ছে।
ঙ) চাঁদপুর ইলিশ মাছ ও নদীবন্দরের জন্য বিখ্যাত।
৮. জোড় লাগানো শব্দগুলো আলাদা করে পড়ি ও লিখি।
উত্তর :
নদী পথ
নীচ তলা
জল ধারা
ঘর বাড়ি
ছেলে মেয়ে
নদী বন্দর
৯. দুটি বাক্য জুড়ে একটা বাক্য তৈরি করি ও লিখি।
উত্তর :
ক) আমরা ডিম পরোটা খেলাম।
খ) আমরা চা খেলাম। আমরা ডিম পরোটা ও চা খেলাম।
ক) চাঁদপুর ইলিশ মাছের জন্য বিখ্যাত।
খ) চাঁদপুর নদীবন্দরের জন্য বিখ্যাত। চাঁদপুর ইলিশ মাছ ও নদীবন্দরের জন্য বিখ্যাত।
ক) নদীর ঘাটে ছেলেমেয়েরা সাঁতার কাটছে।
খ) নদীর ঘাটে মহিলারা কাপড় ধুচ্ছে। নদীর ঘাটে ছেলেমেয়েরা সাঁতার কাটছে ও মহিলারা কাপড় ধুচ্ছে।

তৃতীয় শ্রেণির বাংলা স্টিমারের সিটি অনুশীলনীর অতিরিক্ত প্রশ্ন উত্তর

 সঠিক উত্তরটি লেখ।
১. নদীপথে কিসে ভ্রমণ করার সিদ্ধান্ত হলো?
ক নৌকায় খ রকেট স্টিমারে
গ ট্রলারে ঘ লঞ্চে
২. সবাই কখন সদরঘাটে এসে পৌঁছল?
ক ছয়টার মধ্যে
খ সাতটার মধ্যে
গ আটটার মধ্যে
ঘ নয়টার মধ্যে
৩. স্টিমার কখন ছাড়বে?
ক সকাল আটটায় খ সকাল সাড়ে আটটায়
গ সকাল নয়টায় ঘ সকাল সাড়ে নয়টায়
৪. মুন্সিগঞ্জ এলে কোন নদীর মোহনা দেখা গেল?
ক বুড়িগঙ্গা খ শীতলক্ষ্যা
গ মেঘনা ঘ ধলেশ্বরী
৫. শীতলক্ষ্যা পার হয়ে স্টিমার কোন নদীতে পড়ল?
ক মেঘনা খ পদ্মা গ যমুনা ঘ ধলেশ্বরী
৬. স্টিমার যতই এগোচ্ছে নদী ততই কী হচ্ছে?
ক শান্ত খ গভীর গ প্রশস্ত ঘ সরু
৭. ক্যামেরা দিয়ে ছবি তুলছিল কে?
ক লেখক খ কাপ্তান
গ তনু ঘ নিনা
৮. স্টিমারের সিটি বাজান কে?
ক কাপ্তান খ মাঝি
গ ড্রাইভার ঘ নাবিক
৯. কোথায় এক তীর থেকে আরেক তীর দেখা যায় না?
ক বুড়িগঙ্গা ও ধলেশ্বরীর সংযোগস্থলে
খ ধলেশ্বরী ও শীতলক্ষ্যার সংযোগস্থলে
গ পদ্মা ও মেঘনার সংযোগস্থলে
ঘ শীতলক্ষ্যা ও মেঘনার সংযোগস্থলে
১০. চাঁদপুর কিসের জন্য বিখ্যাত?
ক শুশুক খ স্টিমার
গ ইলিশ মাছ ঘ সমুদ্রবন্দর
 নিচের শব্দগুলোর অর্থ লেখ।
বন্দর, ক্রমশ।
উত্তর : শব্দ অর্থ
বন্দর  নদী বা সমুদ্রের নিকটবর্তী স্থান যেখানে নৌকা বা জাহাজ নোঙর করা হয়।
ক্রমশ  ধীরে ধীরে।
 নিচের শব্দগুলো দিয়ে বাক্য রচনা কর।
স্টিমার, মোহনা, তীর, বিখ্যাত।
উত্তর :
শব্দ বাক্য
স্টিমার  স্টিমারে চড়ার মজাই আলাদা।
মোহনা  দূরে নদীর মোহনা দেখা যাচ্ছে।
তীর  নদীর তীরে ছেলেরা গোসল করছে।
বিখ্যাত  সদরঘাট বিখ্যাত নদীবন্দর।
 নিচের যুক্তবর্ণগুলো কোন কোন বর্ণ নিয়ে তৈরি ভেঙে দেখাও এবং প্রতিটি যুক্তবর্ণ দিয়ে একটি করে শব্দ গঠন করে বাক্যে প্রয়োগ দেখাও।
ভ্র, প্র, শ্ব, ঞ্চ, দ্ম, স্থ।
উত্তর :
ভ্র = ভ + র-ফলা ( ্র ) – শুভ্র
 মা শুভ্র শাড়ি পরেছেন।
প্র = প + র-ফলা ( ্র ) – প্রাণ
 গাছেরও প্রাণ আছে।
শ্ব = শ + ব-ফলা ( ¦ ) – অশ্ব
 অশ্ব খুব দ্রুত ছোটে।
ঞ্চ = ঞ + চ – বঞ্চনা
 গরিবরা অনেক বঞ্চনার শিকার হয়।
দ্ম = দ + ম – ছদ্মনাম
 অনেক লেখক ছদ্মনামে লেখেন।
স্থ = স + থ – স্থির
 নৌকাটি ঘাটে স্থির হয়ে আছে।
 ডান দিক থেকে উপযুক্ত শব্দ নিয়ে শূন্যস্থান পূরণ কর।
ক) ঠিক হলো, আমরা  চাঁদপুর যাব।
খ) ছাদে রয়েছে  একটি ছোট ঘর।
গ) নদীর পানির ওপরে সাদা  উড়ে বেড়াচ্ছে।
ঘ) নদীতে খুবই । উত্তাল স্রোত
নদীপথে
গাংচিল
কাপ্তানের
উত্তর : ক) নদীপথে; খ) কাপ্তানের; গ) গাংচিল; ঘ) স্রোত।
 ডান পাশের বাক্যাংশের সাথে বাম পাশের বাক্যাংশের মিল কর।
চাঁদপুরে বিখ্যাত চাঁদপুর এসে।
চাকার অর্ধেকটা পানির মধ্যে।
শীতলক্ষ্যা নদী দেখা গেল ইলিশ মাছ।
ভ্রমণ শেষ হলো নারায়ণগঞ্জ এলে।
উত্তর :
চাঁদপুরে বিখ্যাত  ইলিশ মাছ।
চাকার অর্ধেকটা  পানির মধ্যে।
শীতলক্ষ্যা নদী দেখা গেল  নারায়ণগঞ্জ এলে।
ভ্রমণ শেষ হলো  চাঁদপুরে এসে।
 নিচের শব্দগুলোর বিপরীত শব্দ লেখ।
আলাদা, প্রশস্ত, দৃশ্য, শেষ।
উত্তর : শব্দ বিপরীত শব্দ
আলাদা  একত্র
প্রশস্ত  সরু
দৃশ্য  অদৃশ্য
শেষ  শুরু
 নিচের শব্দগুলোর সমার্থক শব্দ লেখ।
ছুটি, ভ্রমণ, নদী, তীর।
উত্তর : শব্দ সমার্থক শব্দ
ছুটি  অবকাশ, বিরতি।
ভ্রমণ  বেড়ানো, ঘুরে ফিরে দেখা।
নদী  স্রোতস্বিনী, তটিনী।
তীর  ক‚ল, তট।
 নিচের শব্দগুলোর বানান শুদ্ধ করে লেখ।
পরিক্ষা, ষ্টিমার, বির্স্তিণ, ক্যামরা।
উত্তর : ভুল বানান শুদ্ধ বানান
পরিক্ষা  পরীক্ষা
ষ্টিমার  স্টিমার
বির্স্তিণ  বিস্তীর্ণ
ক্যামরা  ক্যামেরা
 নিচের কোনটি কোন পদ লেখ।
ধুচ্ছে, নদী, বিখ্যাত, ভিড়ল, মনোরম।
উত্তর : শব্দ পদ
ধুচ্ছে  ক্রিয়া
নদী  বিশেষ্য
বিখ্যাত  বিশেষণ
ভিড়ল  ক্রিয়া
মনোরম  বিশেষণ
 নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর লেখ।
ক) কিসের ছুটিতে চাঁদপুর ভ্রমণে যাওয়া ঠিক হলো?
উত্তর : বার্ষিক পরীক্ষার পর যে লম্বা ছুটি থাকে সেই ছুটিতেই চাঁদপুর ভ্রমণে যাওয়া ঠিক হলো।
খ) লেখকরা আটটার মধ্যে কোথায় পৌঁছালেন?
উত্তর : লেখকরা আটটার মধ্যে ঢাকার সদরঘাটে পৌঁছালেন।
গ) কে কে চাঁদপুর ভ্রমণে গিয়েছিলেন?
উত্তর : লেখক, লেখকের ছোট ভাই তনু, ছোট বোন নিনা এবং লেখকের বাবা-মা চাঁদপুর ভ্রমণে গিয়েছিলেন।
ঘ) স্টিমার ছাড়ার আগে লেখক ও তার ভাইবোনেরা কী করল?
উত্তর : স্টিমার ছাড়ার আগে লেখক ও তার ভাইবোনেরা নিচতলা ও দোতলার ডেকে ঘুরে বেড়াল।
ঙ) স্টিমারের সিটি কখন বেজে ওঠে?
উত্তর : স্টিমার ছাড়ার আগমুহূর্তে এবং কোনো গন্তব্যে পৌঁছানোর আগমুহূর্তে স্টিমারের সিটি বেজে ওঠে। তাছাড়া চলাচলের সময় সামনে কোনো নৌযান চলে এলে সতর্ক করার জন্য সিটি বাজানো হয়।
চ) স্টিমারের চাকা কোথায় থাকে?
উত্তর : স্টিমারের দুই পাশে দুটি চাকা থাকে। চাকাগুলোর অর্ধেক অংশ পানির মধ্যে ডুবে থাকে।
ছ) স্টিমার কীভাবে সচল হলো?
উত্তর : স্টিমারের দুই পাশে থাকা চাকা দুটি ঘুরে স্টিমারকে সচল করে তুলল।
জ) ঢাকার সদরঘাট কোন নদীর তীরে অবস্থিত?
উত্তর : ঢাকার সদরঘাট বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত।
ঝ) তনু ও নিনা সঙ্গে করে কী কী এনেছে?
উত্তর : তনু সঙ্গে এনেছে বাইনোকুলার। নিনা এনেছে ক্যামেরা।
ঞ) তনু বাইনোকুলার দিয়ে কী দেখছিল?
উত্তর : তনু বাইনোকুলার দিয়ে নদী ও নদীতীরের বিভিন্ন দৃশ্য দেখছিল।
ট) স্টিমারের কাপ্তান কী করছিলেন?
উত্তর : স্টিমারের কাপ্তান ছাদে বসে স্টিমারটি পরিচালনা করছিলেন। কখনো কখনো সিটি বাজাচ্ছিলেন।
ঠ) চাঁদপুর ঘাটে কারা হইচই করছিল?
উত্তর : চাঁদপুর ঘাটে লাল জামা পরা কুলিরা হইচই করছিল।

তৃতীয় শ্রেণির বাংলা স্টিমারের মডেল টেস্ট

নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ১, ২, ৩ ও ৪ নম্বর প্রশ্নের উত্তর লেখ
মেঘনা নদী যেখানে পদ্মার সঙ্গে মিশেছে সেখানে এক তীর থেকে আরেক তীর দেখা যায় না। শুধু পানি আর পানি। এর কাছেই চাঁদপুর। স্টিমার চলে এলো চাঁদপুরের কাছে। চাঁদপুর ইলিশ মাছ ও নদীবন্দরের জন্য বিখ্যাত। মেঘনা নদী থেকে স্টিমার ঢুকবে একটি ছোট নদীতে। নদীটির নাম ডাকাতিয়া। নদীতে খুবই স্রোত। স্টিমারের গতি কমে গেল। আবার বেজে উঠল স্টিমারের সিটি। ধীরে ধীরে ঘাটে এসে ভিড়ল স্টিমার। এর মধ্যে শুরু হলো লাল জামা পরা কুলিদের হইচই। এবার আমাদের নামার পালা। শেষ হলো আমাদের ভ্রমণ।
১. সঠিক উত্তরটি উত্তরপত্রে লেখ।
১) কুলিরা কী রঙের জামা পরে ছিল?
(ক) সাদা (খ) কালো
(গ) লাল (ঘ) নীল
২) চাঁদপুরের স্টিমার ঘাট কোন নদীর তীরে অবস্থিত?
(ক) পদ্মা (খ) মেঘনা
(গ) বুড়িগঙ্গা (ঘ) ডাকাতিয়া
৩) পদ্মা-মেঘনার সংযোগস্থলে নদীর পানি
(ক) নেই (খ) অনেক বেশি
(গ) অনেক কম (ঘ) কম
৪) কোন নদীতে প্রবেশের পর স্টিমারের গতি কমানো হলো?
(ক) মেঘনা (খ) ডাকাতিয়া
(গ) পদ্মা (ঘ) ধলেশ্বরী
৫) অনুচ্ছেদে বর্ণিত ভ্রমণের গন্তব্য
(ক) ঢাকা (খ) মুন্সিগঞ্জ
(গ) চাঁদপুর (ঘ) মেঘনা নদী
উত্তর : ১) (গ) লাল; ২) (ঘ) ডাকাতিয়া; ৩) (খ) অনেক বেশি; ৪) (খ) ডাকাতিয়া; ৫) (গ) চাঁদপুর।
২. নিচের শব্দগুলোর অর্থ লেখ।
হইচই, নদীবন্দর, ভ্রমণ, বিখ্যাত, কুলি।
উত্তর : শব্দ  অর্থ
হইচই  কোলাহল।
নদীবন্দর  নদীর তীরবর্তী বন্দর।
ভ্রমণ  বেড়ানো।
বিখ্যাত  নামকরা।
কুলি  মুটে।
৩. নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর লেখ।
ক) স্টিমারের সিটি কখন বেজে উঠল?
উত্তর : চাঁদপুর ঘাটের কাছাকাছি পৌঁছালে স্টিমারের সিটি বেজে উঠল।
খ) চাঁদপুর কোন মাছের জন্য বিখ্যাত?
উত্তর : চাঁদপুর ইলিশ মাছের জন্য বিখ্যাত।
গ) মেঘনা ও পদ্মার সংযোগস্থল দেখতে কেমন?
উত্তর : মেঘনা ও পদ্মার সংযোগস্থলে এক তীর থেকে আরেক তীর দেখা যায় না। কেবল পানি আর পানি।
৪. অনুচ্ছেদটির মূলভাব লেখ।
উত্তর : পদ্মা ও মেঘনা নদীর সংযোগস্থলে এক তীর থেকে আরেক তীর দেখা যায় না। মেঘনা নদী থেকে ডাকাতিয়া নামক একটি ছোট নদী হয়ে চাঁদপুর স্টিমার ঘাটে যেতে হয়। চাঁদপুুরের ইলিশ ও নদীবন্দর খুব নামকরা। স্টিমার ঘাটে ভেড়ানোর সময় স্টিমারের গতি কমিয়ে দেওয়া হয়। ঘাটে স্টিমার ভিড়লে কুলিরা হইচই শুরু করে।

এ অংশে পাঠ্য বই বহিভর্‚ত অনুচ্ছেদ/কবিতাংশ দেওয়া থাকবে। প্রদত্ত অনুচ্ছেদ/কবিতাংশ পড়ে ৩ ধরনের প্রশ্নের উত্তর করতে হবে। এখানে থাকবে- ৫. বহুনির্বাচনি প্রশ্ন, ৬. শূন্যস্থান পূরণ ও ৭. প্রশ্নের উত্তর লিখন। প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর করতে হবে।
পাঠ্য বই বহিভর্‚ত অনুচ্ছেদ/কবিতাংশ পরীক্ষায় কমন পড়বে না। তাই এটি এখানে দেওয়া হলো না। তবে পরীক্ষার প্রশ্নের পূর্ণাঙ্গ নমুনা (ঋড়ৎসধঃ) বোঝার সুবিধার্থে বইয়ের প্রথম দুটি অধ্যায়ে পাঠ্য বই বহিভর্‚ত অংশটি সংযোজন করা হয়েছে।
৮. নিচের যুক্তবর্ণগুলো কোন কোন বর্ণ নিয়ে গঠিত ভেঙে দেখাও এবং প্রতিটি যুক্তবর্ণ দিয়ে একটি করে শব্দ গঠন করে বাক্যে প্রয়োগ দেখাও।
জ্ঞ, শ্ব, ঞ্চ, প্ত, স্র।
উত্তর :
জ্ঞ = জ + ঞ  জিজ্ঞাসা
 ছাত্রটি শিক্ষককে জিজ্ঞাসা করল।
শ্ব = শ + ব-ফলা ( ¦ )  বিশ্ববিদ্যালয়
 আমার বড় ভাই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েন।
ঞ্চ = ঞ + চ  চঞ্চল
 বাচ্চাটি খুব চঞ্চল।
প্ত = প + ত  সপ্তাহ
 এক সপ্তাহ পর স্কুল খুলবে।
স্র = স + র-ফলা ( ্র )  স্রোত
 নদীর খুব স্রোত বইছে।
৯. সঠিক স্থানে বিরামচিহ্ন বসিয়ে অনুচ্ছেদটি আবার লেখ।
ঠিক হলো আমরা নদীপথে চাঁদপুর যাব নদীপথে ভ্রমণের নতুন অভিজ্ঞতা লাভ করব বাবা জানালেন আমাদের ভ্রমণ হবে রকেট স্টিমারে
উত্তর : ঠিক হলো, আমরা নদীপথে চাঁদপুর যাব। নদীপথে ভ্রমণের নতুন অভিজ্ঞতা লাভ করব। বাবা জানালেন, আমাদের ভ্রমণ হবে রকেট স্টিমারে।
১০. এককথায় প্রকাশ কর।
ক) দেখা ও জানার মাধ্যমে লাভ করা জ্ঞান; খ) জাহাজের পরিচালক; গ) বিশেষভাবে খ্যাত; ঘ) যে স্থানে দুটি বস্তু একত্রে যুক্ত হয়; ঙ) নদীর তীরবর্তী বন্দর।
উত্তর : ক) অভিজ্ঞতা; খ) কাপ্তান; গ) বিখ্যাত;
ঘ) সংযোগস্থল; ঙ) নদীবন্দর।
১১. নিচের শব্দগুলোর বিপরীত শব্দ লেখ।
খালি, ওঠা, ধীরে, অভিজ্ঞ, লাভ।
উত্তর : শব্দ বিপরীত শব্দ
খালি  ভরা/পূর্ণ
ওঠা  নামা
ধীরে  দ্রæত
অভিজ্ঞ  অনভিজ্ঞ
লাভ  ক্ষতি
১২. নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও।
(গদ্যের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়)

Share to help others:

Leave a Reply