নবম-দশম শ্রেণির ব্যবসায় উদ্যোগ দশম অধ্যায় ব্যবসায় উদ্যোগ উন্নয়নে সহায়ক সেবা সৃজনশীল ও জ্ঞানমূলক প্রশ্নোত্তর

দশম অধ্যায়
ব্যবসায় উদ্যোগ উন্নয়নে সহায়ক সেবা

উদ্যোগ উন্নয়নে সহায়ক সেবার ধারণা : নতুন ব্যবসায় বা শিল্প স্থাপন একটি সৃজনশীল ও গঠনমূলক কাজ। কিন্তু এর সাথে ঝুঁকিও জড়িত। ফলে সহজেই কেউ এ কাজে এগিয়ে আসতে চায় না। এজন্য প্রয়োজন বিভিন্ন ধরনের সহায়তা। উদ্যোগ গ্রহণের এসব সহায়তা একজন সম্ভাবনাময় উদ্যোক্তাকে ব্যবসায় বা শিল্প স্থাপন ও তা সফলভাবে পরিচালনায় অনুপ্রাণিত করে। প্রকৃতি অনুযায়ী এসব সহায়তাকে উদ্দীপনামূলক, সমর্থনমূলক ও সংরক্ষণমূলক এ তিন ভাগে ভাগ করা যায়।
 সহায়তার বিভিন্ন উৎস :
ক্স বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সংস্থা
ক্স বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড
ক্স বাণিজ্যিক ব্যাংক
ক্স বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা সংস্থা ক্স বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ
ক্স যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর
ক্স মহিলা অধিদপ্তর
ক্স বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা
 বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৫৭ সালে যুক্তফ্রন্ট সরকারের শ্রম, বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকালে গণপরিষদে একটি ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প করপোরেশন প্রতিষ্ঠার বিল উপস্থাপন করেন। এরই ফলে ১৯৫৭ সালের ৩০ মে পূর্ব পাকিস্তানের ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প করপোরেশন (ইপসিক) প্রতিষ্ঠিত হয়, যা স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সংস্থা (বিসিক) নাম ধারণ করে। বর্তমানে শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সংস্থা (বিসিক) দেশের ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পে নিয়োজিত সরকারি খাতের প্রধান সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করছে।
 বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড : বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড (বিডিবিএল) সম্পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন একটি বাণিজ্যিক ব্যাংক। বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংক ও বাংলাদেশ শিল্প ঋণ সংস্থা একত্র হয়ে ৩ জানুয়ারি ২০১০ সাল থেকে বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড নামে এর নতুন কার্যক্রম শুরু করে। বাণিজ্যিক ব্যাংকিং ছাড়াও বিডিবিএল সরকারি ও বেসরকারি শিল্পে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা প্রদান করে থাকে।
 বাণিজ্যিক ব্যাংক : দেশের চারটি রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংক (সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী) এবং বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক সারা দেশে বিরাজমান তাদের শাখাগুলোর মাধ্যমে শিল্প ও ব্যবসায় উদ্যোক্তাদের আর্থিক সেবা প্রদান করে আসছে। বিশেষ করে নিবিড় শ্রমঘন ও কর্মসংস্থানমুখী অর্থনৈতিক উন্নয়নের লক্ষ্যে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প এবং ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানসমূহের দ্রæত প্রসারের জন্য বিভিন্ন সহায়তা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। ব্যবসায় বা প্রকল্পের ধরন অনুযায়ী ঋণসীমা সর্বনি¤œ ৫০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ১০ কোটি টাকা। ঋণের মেয়াদ ব্যবসায় বা প্রকল্পের ওপর নির্ভর করে নির্ধারিত হয়।
 বেসিক ব্যাংক লিমিটেড : বেসিক ব্যাংক বাংলাদেশে প্রচলিত ১৯১৩ সালের কোম্পানি আইনের অধীনে ১৯৮৮ সালে নিবন্ধিত হয় এবং ১৯৮৯ সালের ৩১ জানুয়ারি থেকে ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু করে। বর্তমানে এটি ব্যাংকিং কোম্পানি আইন ১৯৯১ অনুযায়ী পরিচালিত হচ্ছে। ক্ষুদ্রশিল্পের অর্থায়নের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করে এ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হলেও বর্তমানে ব্যাংকটি বাণিজ্যিক ও উন্নয়নমূলক ব্যাংকিং কার্যক্রম উভয়ই পরিচালনা করে থাকে।
 বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সাহায্য কেন্দ্র : দেশের শিল্পায়ন এবং অর্থনৈতিক পরিবর্তন প্রক্রিয়ায় বিশেষ করে শিল্পক্ষেত্রে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সংস্থাটি প্রতিষ্ঠিত হয়। এ সংস্থাটির প্রদত্ত সহায়তাগুলো হলো কারিগরি ও ব্যবস্থাপনা দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণ, নতুন ডিজাইনের যন্ত্রপাতির সাথে পরিচিত করানোর ও যন্ত্রপাতি স্থাপনে উদ্ভূত সমস্যা সমাধানে উপদেশ প্রদান। চারটি আঞ্চলিক কেন্দ্রের মাধ্যমে বিটাক তার কার্যক্রম পরিচালনা করছে। কেন্দ্রগুলো হলো- ঢাকা, চট্টগ্রাম, চাঁদপুর ও খুলনা।
 বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ : জাতীয় শিল্পায়নে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের লক্ষ্যে ১৯৭৩ সালে বিসিএসআইআর প্রতিষ্ঠিত হয়। দেশে শিল্পকারখানা প্রতিষ্ঠা ও উন্নয়নের সাথে সম্পর্কযুক্ত বিজ্ঞান, শিল্প ও প্রযুক্তি বিষয়ক সমস্যাবলির ওপর গবেষণা করা, গবেষণায় উৎসাহিত করা ও গবেষণা পরিচালনায় পরামর্শ প্রদান করাও পরিষদের অন্যতম উদ্দেশ্য।
 যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর : যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অধীন যুব অধিদপ্তর যুবক ও যুব মহিলাদের আত্মকর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে নানা ধরনের কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে থাকে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অবস্থিত অনেকগুলো প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মাধ্যমে যুব অধিদপ্তর শিক্ষিত ও স্বল্প শিক্ষিত যুবকদেরকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়, কৃষি খামার, মৌমাছি পালন, গবাদিপশু পালন, মৎস্য চাষ, কম্পিউটার শিক্ষা, অফিস ব্যবস্থাপনা, সেলাই ও এমব্রয়ডারি ইত্যাদি ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে।
 মহিলা অধিদপ্তর : শহর ও গ্রামের মহিলাদের সৃজনশীলতা বিকাশ, আত্মকর্মসংস্থান ও ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে মহিলা অধিদপ্তর নারী ও উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ, ঋণ প্রদানসহ বিভিন্ন ধরনের সহায়তা প্রদান করে থাকে। প্রশিক্ষণের মধ্যে রয়েছে হাঁস-মুরগি ও গবাদিপশু পালন, হস্ত শিল্প, বুটিকের কাজ, বুনন শিল্প, সেলাই ইত্যাদি।
 বেসরকারি সংস্থা : উদ্যোক্তা উন্নয়নে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা পালন করছে। এ সংস্থাগুলো মূলত গ্রামীণ ও বিত্তহীন ও স্বল্পবিত্তদের উদ্যোগী হওয়ার ব্যাপারে সাহায্য-সহযোগিতা করে থাকে। বাংলাদেশে অসংখ্য এনজিওর মধ্যে ব্র্যাকের ভ‚মিকা সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।
 ব্র্যাক : স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে স্যার ফজলে হাসান আবেদের নেতৃত্বে এ সংস্থাটি প্রতিষ্ঠিত হয়। শুরুতে ত্রাণ ও পুনর্বাসন নিয়ে কাজ করলেও বর্তমানে দারিদ্র্য বিমোচন ও নারীর ক্ষমতায়নের লক্ষ্য নিয়ে এ সংস্থাটি দেশের ৬৪টি জেলায় এ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। ২০১০ সালের হিসাব মতে, বাংলাদেশ তথা পৃথিবীর সর্ববৃহৎ এনজিও বা বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা হচ্ছে ব্র্যাক।
 প্রশিকা : বাংলাদেশের ক্ষুদ্র ব্যবসায় বিকাশে প্রশিকা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। কৃষি শিল্প, তাঁত শিল্প, সিল্ক উৎপাদন, হস্ত শিল্প, গবাদিপশু পালন, মৌমাছি পালন, চারা উৎপাদনসহ অনেক নতুন পেশা তৈরি করছে প্রশিকা।
 ঠেঙ্গামারা মহিলা যুব সংঘ : উত্তরবঙ্গের জেলা বগুড়াকে কেন্দ্র করে ১৯৮০ সালে ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজ সংঘ কাজ শুরু করলেও বর্তমানে সারা দেশেই এই কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। মূলত দরিদ্র ও বিত্তহীন মহিলাদের ঋণ সহায়তা প্রদান, প্রশিক্ষণ ও আত্মকর্মসংস্থানে সহায়তা করার পাশাপাশি টিএমএসএস দোকান পরিচালনা, হাঁস-মুরগির খামার পরিচালনা, মাছ চাষ, নার্সারি পরিচালনা ও কুটির শিল্প পরিচালনাসহ ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ঋণ কর্মসূচি পরিচালনা করে থাকে।

অনুশীলনীর সৃজনশীল প্রশ্ন ও উত্তর

প্রশ্ন-১  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
ব্যবসায় স্থাপন ও পরিচালনা সংক্রান্ত জটিলতা ও ঝুঁকির কথা চিন্তা করে জনাব মেহরাজ এ কাজে এগিয়ে আসতে চায়নি। কিন্তু বিভিন্ন গণমাধ্যমে এ সংক্রান্ত সরকারি ও বেসরকারি সহায়তার কথা শুনে তিনি ঢাকার অদূরে সাভারে একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি স্থাপন করেন। কঠোর পরিশ্রম ও আন্তরিকতার সাথে কাজ করে অল্পদিনেই সফলতা লাভ করেন। স¤প্রতি প্রতিযোগী অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে উন্নতমানের যন্ত্রপাতির ব্যবহারের ফলে তাঁর পক্ষে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা দুরূহ হয়ে পড়েছে।
ক. বাংলাদেশের জনসংখ্যার শতকরা কত ভাগ নারী?
খ. বিসিক-এর প্রধান কাজটি কী? ব্যাখ্যা কর।
গ. জনাব মেহরাজ গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি স্থাপনে আগ্রহী হলেন কেন? ব্যাখ্যা কর।
ঘ. বর্তমান পরিস্থিতিতে জনাব মেহরাজের সহায়তার প্রয়োজন আছে কি? তোমার উত্তরের সপক্ষে যুক্তি দাও।
 ১নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. বাংলাদেশের জনসংখ্যার শতকরা প্রায় ৫০ ভাগ নারী।
খ. বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সংস্থা (বিসিক) এর প্রধান কাজ হলো ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পখাতের উন্নয়নের জন্য বিনিয়োগ পরামর্শ দান । শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ এই সংস্থাটি দেশের ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের স¤প্রসারণে নিয়োজিত সরকারি খাতের প্রধান সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করে। বর্তমানে বিসিক তার ৭৪টি শিল্পনগরী কার্যালয়ের মাধ্যমে তাদের এই বিনিয়োগ পরামর্শ দান কার্যক্রম পরিচালনা করছে।
গ. জনাব মেহরাজ সরকারি ও বেসরকারি সহায়তার কথা শুনে গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি স্থাপনে আগ্রহী হলেন।
নতুন ব্যবসায় বা শিল্প স্থাপন একটি সৃজনশীল ও গঠনমূলক কাজ। এ ধরনের কাজে নানা রকম ঝুঁকি বিদ্যমান থাকায় এ কাজ সফলভাবে পরিচালনা করতে বিভিন্ন ধরনের সহায়তা প্রয়োজন হয়। অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও এখন ব্যবসায় স্থাপন ও পরিচালনায় সহায়তা দান করতে বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। এসব প্রতিষ্ঠান ব্যবসায় বা শিল্পস্থাপনে উদ্যোগ গ্রহণ, শিল্প স্থাপন ও পণ্য দ্রব্যের বিপণনে প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা ও সহায়তা প্রদান করে থাকে। উদ্দীপকে জনাব মেহরাজ ব্যবসায় স্থাপন ও পরিচালনা সম্পর্কিত ঝুঁকি সম্পর্কে চিন্তিত ছিলেন। তাই এ কাজে তিনি এগিয়ে আসেননি। কিন্তু বিভিন্ন গণমাধ্যমে সরকারি ও বেসরকারি সহায়তার কথা শুনে তিনি ঢাকার অদূরে সাভারে একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি স্থাপন করেন। অর্থাৎ সরকারি ও বেসরকারি সহায়তাই মেহরাজকে ফ্যাক্টরি স্থাপনে আগ্রহী করে তুলেছে।
ঘ. জনাব মেহরাজের বর্তমান পরিস্থিতিতে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সমর্থনমূলক সহায়তার প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি।
শিল্প ও ব্যবসায় স্থাপনে আগ্রহী ব্যক্তির উদ্যোগ বাস্তবায়ন করার জন্য বিভিন্ন ধরনের সহায়তা প্রয়োজন হয়। এসব সহায়তা একজন উদ্যোক্তাকে শিল্প স্থাপন, পরিচালনা ও সম্পদের ব্যবহার ও বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা পেতে সাহায্য করে। উদ্দীপকে জনাব মেহরাজ কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে তার গার্মেন্টস ব্যবসায় সফলতা লাভ করেছেন। কিন্তু বর্তমানে তার প্রতিযোগী প্রতিষ্ঠানগুলো উন্নতমানের যন্ত্রপাতি ব্যবহার করায় তার পক্ষে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা দুরূহ হয়ে পড়েছে। এমতাবস্থায় তাকে তার ফ্যাক্টরিকে আধুনিকায়ন করতে হবে, নতুন যুগোপযোগী যন্ত্রপাতির ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে এবং ব্যবসায় স¤প্রসারণ করতে হবে। আর এসব কার্যাদি সুষ্ঠু ও সফলভাবে পরিচালনা করতে তার সমর্থনমূলক সহায়তা গ্রহণ করা প্রয়োজন। বিভিন্ন ধরনের সরকারি ও বেসরকারি সহায়তাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো শিল্প উদ্যোক্তাদেরকে ঋণ সহায়তা প্রদান করে শিল্প প্রকল্পগুলোর আধুনিকীকরণ, যন্ত্রপাতি পরিবর্তন ও স¤প্রসারণে সহায়তা করে থাকে। তাই জনাব মেহরাজ বাংলাদেশ ডেভলপমেন্ট ব্যাংক ও বাংলাদেশ কারিগরি সাহায্য কেন্দ্রের মতো সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠানসমূহ থেকে সমর্থনমূলক সহায়তা গ্রহণ করে ফ্যাক্টরিতে প্রয়োজনীয় আধুনিকায়ন আনয়ন করে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে পারেন।
সুতরাং বলা যায়, বর্তমান প্রতিযোগিতামূলক বাজারে টিকে থাকার জন্য জনাব মেহরাজের সহায়তার প্রয়োজন আছে।
প্রশ্ন-২  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
সায়মা হক ছোটবেলা থেকেই চ্যালেঞ্জিং কাজ করতে পছন্দ করতেন। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়া শেষ করে নারায়ণগঞ্জ বিসিক শিল্প এলাকায় ‘সায়মা ফুড প্রডাক্টস’ নামে একটি উন্নতমানের ও রপ্তানিমুখী কারখানা স্থাপন করেন। এজন্য তিনি একটি প্রতিষ্ঠান থেকে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা নিয়েছেন। বর্তমানে তার প্রতিষ্ঠানে ৩০০ জন কর্মচারী নিয়োজিত আছেন।
ক. বিসিকের পূর্ণরূপ কী?
খ. মহিলা অধিদপ্তরের প্রধান কাজটি ব্যাখ্যা কর।
গ. সায়মা হকের মতো উদ্যোক্তাদের উপরোক্ত সহায়তা দানে সরকারি কোন প্রতিষ্ঠান নিয়োজিত আছে? ব্যাখ্যা কর।
ঘ. দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে সায়মা হকের ভ‚মিকা মূল্যায়ন কর।
 ২নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. বিসিকের পূর্ণরূপ হলো বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সংস্থা।
খ. মহিলা অধিদপ্তরের প্রধান কাজ হলো নারী উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণপূর্বক ঋণদানের মাধ্যমে তাদের জন্য আত্মকর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা। এই অধিদপ্তর শহর ও গ্রামের মহিলাদের সৃজনশীলতার বিকাশ, আত্মকর্মসংস্থান ও ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে নারী উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ, ঋণ প্রদানসহ বিভিন্ন ধরনের সহায়তা প্রদান করে থাকে। প্রশিক্ষণের মধ্যে রয়েছে হাঁস-মুরগি ও গবাদি পশু পালন, হস্তশিল্প, বাটিকের কাজ, বুনন শিল্প, সেলাই ইত্যাদি।
গ. সায়মা হকের মতো উদ্যোক্তাদের আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা দানে সরকারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড (বিডিবিএল) নিয়োজিত আছে।
বিডিবিএল সম্পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন একটি বাণিজ্যিক ব্যাংক। বাণিজ্যিক ব্যাংকিং কার্যক্রম সম্পাদন করা ছাড়াও বিডিবিএল সরকারি ও বেসরকারি শিল্পে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা প্রদান করে থাকে। দ্রুত শিল্পায়নের লক্ষ্যে নতুন শিল্প প্রকল্প স্থাপন, চালু শিল্প প্রকল্পগুলোর আধুনিকীকরণ, যন্ত্রপাতির পরিবর্তন ও স¤প্রসারণের জন্য শিল্প উদ্যোক্তাদের ঋণ ও পরামর্শদান করা বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের প্রধান কাজ। উদ্দীপকের সায়মা হকের ‘সায়মা ফুড প্রডাক্টস’ নামের রপ্তানিমুখী কারখানাটি একটি শিল্প প্রতিষ্ঠান। তিনি তার প্রতিষ্ঠানকে স¤প্রসারিত করার জন্য একটি সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে সহায়তা নিয়েছেন। এ ধরনের সহায়তা বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক প্রদান করে থাকে। তাই বলা যায়, সায়মা হকের মতো উদ্যোক্তাদের বিডিবিএল আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা প্রদান করে থাকে।
ঘ. শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে সায়মা হকের ভ‚মিকা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়।
বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়নে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের ভ‚মিকা অনস্বীকার্য। এ খাতটি শ্রমঘন হওয়ায় জাতীয় আয় বৃদ্ধি ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে দ্রæত অবদান রাখতে সক্ষম। উদ্দীপকের সায়মা হক বিশ্ববিদ্যালয়ের লেখাপড়া শেষ করে ‘সায়মা ফুড প্রডাক্টস’ স্থাপন করেছেন। ফলে সায়মা হকের কর্মসংস্থান ও আয়ের পথ সৃষ্টি হয়েছে। একই সাথে তার প্রতিষ্ঠানে ৩০০ লোকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। এতে দেশে বেকার সমস্যা হ্রাস পেয়েছে এবং জাতীয় আয় বৃদ্ধি পেয়েছে। তাছাড়া তিনি লেখাপড়া শেষ করে আত্মকর্মসংস্থানে নিয়োজিত হয়ে সফল হওয়ায় অন্যান্যরা তাকে দেখে উৎসাহিত হয়ে আত্মকর্মসংস্থানে নিয়োজিত হবে, যা দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে সহায়তা করবে। বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের বেকার সমস্যা সমাধানের জন্য “সায়মা ফুড প্রোডাক্টস” এর মতো অসংখ্য শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা প্রয়োজন। তাহলে দেশ বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্ত হয়ে অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাবে।
সুতরাং বলা যায়, বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে শিল্প প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করে দেশের বেকারত্ব হ্রাসের মাধ্যমে অর্থনৈতিক উন্নয়নে সায়মা হকের অবদান অনস্বীকার্য।

প্রশ্ন-৩  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
নবীনগর গ্রামের পাট ব্যবসায়ী মি. রবি পাটের তৈরি বিভিন্ন পণ্যের ব্যাপক চাহিদা দেখে পাটজাত পণ্য তৈরির পাশাপাশি একটি পাটজাত পণ্যের প্রদর্শনী ও বিক্রয়কেন্দ্র স্থাপন করেন। মি. রবি তার ব্যবসায়ে সহযোগিতার জন্য এলাকার দশজন বেকার যুবক নিয়োগ করেন। বর্তমানে মি. রবি তার ব্যবসায়ে সংশ্লিষ্ট শিল্পের সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছেন।
ক. টেলিভিশনে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন কোন ধরনের ¯øাইড? ১
খ. মেধাসম্পদ বলতে কী বোঝায়? ব্যাখ্যা কর। ২
গ. মি. রবি কোন ধরনের ব্যবসায়ের সঙ্গে জড়িত? ব্যাখ্যা কর। ৩
ঘ. মি. রবির মতো ব্যবসায়ীদের উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট সরকারি সংস্থার অবদান মূল্যায়ন কর। ৪
 ৩নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. টেলিভিশনে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন হলো বিভিন্ন পণ্যের আকর্ষণীয় দর্শন শ্রবণযোগ্য ¯øাইড।
খ. মনন ও মেধা দ্বারা সৃষ্ট কাজই মেধাসম্পদ।
শিল্প বা ব্যবসায় উদ্যোক্তার মেধাসম্পদ বলতে ওই সব মূল্যবান সম্পদকে বোঝায় যা সে দীর্ঘদিন প্রচেষ্টা চালিয়ে উদ্ভাবন করেছে। শিল্পকর্ম, নকশা, প্রতীক, নাম ইত্যাদি মেধাসম্পদের অন্তর্ভুক্ত। সব উদ্ভাবন ও সৃজনশীল কর্মকাণ্ডের মূলে রয়েছে মেধাসম্পদ যা সৃষ্টির অনেক রহস্য জানতে সাহায্য করে।
গ. মি. রবি একমালিকানা ব্যবসায়ের সাথে জড়িত।
অসীম দায়ের ভিত্তিতে একজন ব্যক্তি কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত, পরিচালিত ও নিয়ন্ত্রিত যে বৈধ ব্যবসায়ের মুনাফা ও ঝুঁকি মালিক একাই বহন করে তাকে একমালিকানা ব্যবসায় বলে। এরূপ ব্যবসায়ে মালিকা পরিবর্তিত অবস্থা ও চাহিদা অনুযায়ী তার ব্যবসায় পরিচালনার নীতি ও কার্যপদ্ধতি অতি সহজে পরিবর্তন করতে পারে।
উদ্দীপকের মি. রবি একজন পাট ব্যবসায়ী। তিনি নিজ উদ্যোগে পুঁজির সংস্থান করেন ও ব্যবসায় পরিচালনা করেন। তিনি এককভাবে ব্যবসায়ের সকল ঝুঁকি, দায় লাভ ও লোকসান বহন করেন। মি. রবির ব্যবসায়ের স্থায়িত্ব তার ইচ্ছার ওপর নির্ভরশীল। তিনি তার ব্যবসায়ের প্রয়োজনে দশজন কর্মচারী নিয়োগ করেন। এসব বৈশিষ্ট্য থেকে সহজেই বোঝা যায়, মি. রবির ব্যবসায়টি একমালিকানা ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান।
ঘ. মি. রবির মতো ব্যবসায়ীদের উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট সরকারি সংস্থাটি হলো বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সাহায্য কেন্দ্র।
ব্যবসায় উদ্যোগ গ্রহণ ও উন্নয়নে সহায়তাকারী বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। যারা ব্যবসায়-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে অবদান রেখে চলেছে। সেইসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে একটি হলো বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সাহায্য কেন্দ্র। দেশের শিল্পায়ন এবং অর্থনৈতিক পরিবর্তন প্রক্রিয়ার বিশেষ করে শিল্প ক্ষেত্রে উৎপাদানশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সংস্থাটি প্রতিষ্ঠিত।
মি. রবির মতো ব্যবসায়ীদের উন্নয়নে বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সাহায্য কেন্দ্রটি কারিগরি ও ব্যবস্থাপনা দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণ, নতুন ডিজাইন ও যন্ত্রপাতির সাথে পরিচিত করানো ও যন্ত্রপাতি স্থাপনে উদ্ভূত সমস্যা সমাধানে উপদেশ প্রদান করে। এছাড়াও বিভিন্ন প্রকাশনা, সেমিনার, দলগত আলোচনা, প্রদর্শনী ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনের মাধ্যমে আধুনিক কারিগরি ও প্রযুক্তিগত জ্ঞান দান করে। সংস্থাটি মূলত চারটি আঞ্চলিক কেন্দ্রের মাধ্যমে তার এই সব কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে।
সুতরাং বলা যায়, মি. রবির মত ব্যবসায়ীদের উন্নয়নে বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সাহায্য কেন্দ্র গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা পালন করে থাকে।
প্রশ্ন-৪  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
মিস জেবা নিজস্ব দক্ষতায় বিভিন্ন অলঙ্কার ও শৌখিন দ্রব্যাদি তৈরি করে অনলাইনে বিক্রয় করেন। তার বিক্রয়ের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় ব্যবসায় স¤প্রসারণের জন্য অধিক পুঁজির প্রয়োজন দেখা দেওয়ায় আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শরণাপন্ন হয়ে সমস্যার সমাধান করেন।
ক. উপমহাদেশে কত সালে ট্রেডমার্কস আইন প্রণয়ন করা হয়? ১
খ. প্রত্যক্ষ সেবামূলক ব্যবসায় বলতে কী বোঝায়? ২
গ. ব্যবসায়ের কোন পরিবেশের সহায়তায় মিস জেবা পণ্য বিক্রয় করতে সক্ষম হয়েছেন? বর্ণনা কর। ৩
ঘ. মিস জেবার ব্যবসায় স¤প্রসারণে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ভ‚মিকা মূল্যায়ন কর। ৪
 ৪নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. উপমহাদেশে ১৯৪০ সালে ট্রেডমার্কস আইন প্রণয়ন করা হয়।
খ. যে ব্যবসায়ে জনগণকে সেবা প্রদানের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা হয় তাকে প্রত্যক্ষ সেবা বা সেবামূলক ব্যবসায় বলে।
অর্থ উপার্জনের উদ্দেশ্যে স্বাধীন পেশায় নিয়োজিত ডাক্তার, উকিল, প্রকৌশলী প্রভৃতি পেশাজীবীরা বিভিন্ন রকম সেবাকর্ম অর্থের বিনিময়ে প্রদান করে থাকেন। এ সকল সেবাকর্ম বা বৃত্তি প্রত্যক্ষ সেবা হিসেবে পরিচিত। যেমন : ডাক্তারি ক্লিনিক, আইন চেম্বার, প্রকৌশলী ফার্ম, অডিট ফার্ম ইত্যাদি।
গ. ব্যবসায়ের প্রযুক্তিগত পরিবেশের সহায়তায় মিস জেবা পণ্য বিক্রয় করতে সক্ষম হয়েছেন।
যে কোনো ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান কিংবা শিল্পকারখানা পরিচালনা করতে হলে আধুনিক কলাকৌশল ও প্রযুক্তিগত সাহায্য যে পরিবেশ থেকে পেয়ে থাকে তাকে প্রযুক্তিগত পরিবেশ বলে। যেমন ব্যবসায়ের আধুনিক কলাকৌশল, প্রযুক্তির জ্ঞান, উন্নত যন্ত্রপাতি ইত্যাদি।
উদ্দীপকের মিস জেবা নিজস্ব দক্ষতায় অলংকার ও শৌখিন দ্রব্যাদি তৈরি করেন। তিনি ইন্টারনেটের সহায়তায় অনলাইনে তার তৈরিকৃত দ্রব্যাদি বিক্রয় করেন। যা প্রযুক্তিগত পরিবেশের উপাদান তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির আওতাভুক্ত। এ ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহার করে ব্যবসায়ীরা তাদের পণ্য ভোক্তাদের নিকট তুলে ধরছে। ফলে পণ্যের চাহিদা সৃষ্টির সাথে সাথে বিক্রয়ও বেড়ে যায়। তাই মিস জেবা এই পরিবেশের সহায়তা গ্রহণ করায় তার তৈরিকৃত পণ্য বিক্রয় করতে সক্ষম হয়েছেন।
ঘ. মিস জেবার ব্যবসায় স¤প্রসারণে আর্থিক প্রতিষ্ঠান গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা পালন করেছে।
ব্যবসায় উদ্যোক্তাদের সাহায্য-সহযোগিতা করার জন্য বাংলাদেশে বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। এ সকল প্রতিষ্ঠান দেশে ব্যবসায় বা শিল্প স্থাপনে উদ্যোগ গ্রহণ, শিল্প স্থাপন ও পণ্য দ্রব্যের বিপণনে প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করে থাকে। উদ্দীপকের মিস জেবা একজন নারী উদ্যোক্তা। তিনি নিজস্ব দক্ষতায় বিভিন্ন অলংকার ও শৌখিন দ্রব্যাদি তৈরি করে বিক্রয় করেন। তার বিক্রয়ের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় ব্যবসায় স¤প্রসারণের জন্য অর্থের প্রয়োজন পড়ে। তিনি আর্থিক সহায়তা পাওয়ার জন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শরণাপন্ন হন। তার মত নারী উদ্যোক্তাদের সহায়তা করার জন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর ভ‚মিকা অপরিসীম। যেমন বাণিজ্যিক ব্যাংক ও বিডিবিএল ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগে নারী উদ্যোক্তাদের জন্য সহজ শর্তে অধিকতর প্রাতিষ্ঠানিক ঋণ সুবিধা প্রদান করছে। এছাড়াও বেসরকারি সংস্থাগুলো এ ধরনের উদ্যোক্তাদের আর্থিকভাবে সহায়তা করে থাকে।
সুতরাং বলা যায়, মিস জেবার ব্যবসায় স¤প্রসারণে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ভ‚মিকা অপরিসীম।

প্রশ্ন-৫  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
জনাব ইউসুফ পড়াশোনা শেষ করে পছন্দমতো চাকরি না পেয়ে আত্মকর্মসংস্থানে উদ্বুদ্ধ হন। তিনি পত্রিকায় বিসিক কর্তৃক আয়োজিত প্রশিক্ষণ কর্মশালার বিজ্ঞাপন দেখে উক্ত কর্মশালায় অংশ গ্রহণ করে বোর্ড তৈরির ওপর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। তিনি কর্মশালায় অংশ গ্রহণ করে এ কথাও বুঝতে পারেন যে অন্যের অধীনে চাকরি করার চেয়ে নিজেই নিজের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা অধিক আনন্দের এবং লাভজনক। তাই তিনি নিজ উদ্যোগে একটি বোর্ড তৈরির কারখানা স্থাপনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। তার এই সিদ্ধান্তটি বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন সহায়তা প্রয়োজন।
ক. ইওঞঅঈ এর পূর্ণরূপ কী? ১
খ. বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে এসএমই’র ভ‚মিকা লেখ। ২
গ. জনাব ইউসুফ বিসিক থেকে কোন ধরনের সহায়তা পাবেন? বর্ণনা কর। ৩
ঘ. জনাব ইউসুফের মতো উদ্যোক্তাদের জন্য বিসিক আর বিটাকের মধ্যে কোনটিকে তুমি অধিক উত্তম মনে কর। তোমার উত্তরের সপক্ষে যুক্তি দাও। ৪
 ৫নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. ইওঞঅঈ এর পূর্ণরূপ হলো ইধহমষধফবংয ওহফঁংঃৎরধষ ঞবপযহরপধষ অংংরংঃধহপব ঈবহঃৎব।
খ. বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়নে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের (এসএমই) ভ‚মিকা অনস্বীকার্য। এ খাতটি শ্রমঘন হওয়ায় জাতীয় আয় বৃদ্ধি ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে দ্রুত অবদান রাখতে সক্ষম। তাই এসএমইকে ‘ঊসঢ়ষড়ুসবহঃ এবহবৎধঃরহম গধপযরহব’ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আমাদের দেশে মাঝারি উদ্যোগ অপেক্ষা ক্ষুদ্র উদ্যোগের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টি, বেকারত্ব লাঘব ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের সম্ভাবনা বেশি।
গ. জনাব ইউসুফ তার বোর্ড তৈরির কারখানা স্থাপনের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে বিসিক থেকে মূলত উদ্দীপনামূলক ও সমর্থনমূলক সহায়তা পাবে।
বর্তমানে শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সংস্থা (বিসিক) দেশের ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের স¤প্রসারণে নিয়োজিত সরকারি খাতের প্রধান সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করছে। এ সংস্থার প্রধান কাজ হলো এ জাতীয় শিল্প খাতের উন্নয়নের জন্য বিনিয়োগে পরামর্শদান। এছাড়াও এ সংস্থা নিজস্ব উৎস এবং বাণিজ্যিক ব্যাংকের যৌথ উদ্যোগে প্রয়োজনীয় ঋণের ব্যবস্থা করে। উদ্দীপকের জনাব ইউসুফ একজন নতুন ক্ষুদ্র শিল্প উদ্যোক্তা। তাই বিসিক তাকে যেসব ক্ষেত্রে সহায়তা করতে পারবে সেগুলো হলো- শিল্পসংক্রান্ত তথ্য সরবরাহ, শিল্প উদ্যোগ উন্নয়ন, প্রকল্প নির্বাচন, প্রকল্প মূল্যায়ন, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, ব্যবস্থাপনা ও দক্ষতা উন্নয়ন, পণ্য ডিজাইন, কাঁচামাল সরবরাহ উৎপাদিত দ্রব্যসামগ্রী বিপণনে সহায়তা প্রভৃতি। তিনি তার জেলায় অবস্থিত বিসিকের শিল্প সহায়ক কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ করলে উল্লিখিত সুবিধাসমূহ ছাড়াও শিল্প স্থাপন সম্পর্কিত যে কোনো ধরনের পরামর্শ পাবেন।
ঘ. জনাব ইউসুফের মতো ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য বিটাক অপেক্ষা বিসিক সহায়তাদানকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে অধিক উত্তম হবে।
বিসিক দেশের ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের উন্নয়ন বিকাশে নিয়োজিত। অন্যদিকে দেশের শিল্পায়ন এবং অর্থনৈতিক পরিবর্তন প্রক্রিয়ায় শিল্পক্ষেত্রে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিটাক প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বিসিক ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগপূর্ব পরামর্শদান, শিল্পসংক্রান্ত তথ্য সরবরাহ, উদ্যোক্তা শনাক্তকরণ ও উন্নয়ন প্রকল্প নির্বাচন, প্রকল্পের যথার্থতা মূল্যায়ন, প্রকল্পের অর্থসংস্থান ও ঋণ সরবরাহ করে থাকে। অন্যদিকে বিটাকের প্রদত্ত সহায়তাগুলো হলো কারিগরি ও ব্যবস্থাপনা দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণ, নতুন ডিজাইন ও যন্ত্রপাতির সাথে পরিচিত করানো ও যন্ত্রপাতি স্থাপনে উদ্ভূত সমস্যা সমাধানে উপদেশ প্রদান। উদ্দীপকে জনাব ইউসুফ একজন নতুন ক্ষুদ্র শিল্প উদ্যোক্তা। তাই তার প্রয়োজন বিনিয়োগ প্রকল্প নির্বাচন করা, নির্বাচিত প্রকল্পের যথার্থতা মূল্যায়ন করা, বিনিয়োগপূর্ব পরামর্শসহ ঋণ সহযোগিতা। আর এসব সহায়তা তাকে বিটাক নয়, বিসিক দিতে পারবে।
সুতরাং, জনাব ইউসুফের মতো ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য সহায়তাদানকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিটাক অপেক্ষা বিসিক অধিক উত্তম।
প্রশ্ন-৬  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
স্বপন সাহা দীর্ঘ ১৫ বছর নাজ ফ্যাশনে হিসাবরক্ষক পদে কর্মরত ছিলেন। সময় অতিবাহিত হওয়ার সাথে সাথে তার অভিজ্ঞতা বাড়লেও বেতন তেমন বাড়েনি। তাই তিনি তার পেশা পরিবর্তনের কথা ভাবছিলেন। একদিন তিনি টেলিভিশনে কয়েকজন সফল উদ্যোক্তার সাক্ষাৎকার দেখে বন্ধুর সাথে এ ব্যাপারে আলোচনা করেন। বন্ধু তাকে ব্যবসায় স্থাপনে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রদত্ত সহায়তা সম্পর্কে জানালে তিনি তার এলাকায় একটি মুদি দোকান দেন। কিন্তু কিছুদিনের মধ্যে তার আশপাশে বেশ কয়টি বড় মুদির দোকান গড়ে উঠলে তাকে তীব্র প্রতিযোগিতার মুখোমুখি হতে হয়। এ অবস্থায় স্বপন সাহাকে তার বন্ধু মুদি দোকানটিকে ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে পরিণত করে ব্যবসায়ে আধুনিকীকরণের পরামর্শ দেন।
ক. প্রকৃতি অনুযায়ী সহায়তাকে কয় ভাগে ভাগ করা যায়? ১
খ. অর্থনীতির মূল স্রোতে নারীদের অংশগ্রহণ অপরিহার্য কেন? ২
গ. স্বপন সাহাকে ব্যবসায় করতে আগ্রহী করে তুলেছে কোন বিষয়টি? বর্ণনা কর। ৩
ঘ. তুমি কি মনে কর বর্তমান প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে স্বপন সাহাকে তার বন্ধুর পরামর্শ সহায়তা করবে? তোমার উত্তরের পক্ষে যুক্তি দাও। ৪
 ৬নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. প্রকৃতি অনুযায়ী সহায়তাকে তিন ভাগে ভাগ করা যায়।
খ. যদি কোনো নারী ব্যক্তিমালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে স্বত্ত¡াধিকারী হন কিংবা অংশীদারি প্রতিষ্ঠান বা জয়েন্ট স্টক কোম্পানিতে নিবন্ধিত প্রাইভেট কোম্পানির পরিচালক বা শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে ন্যূনতম ৫১% অংশের মালিক হন তাহলে তিনি নারী শিল্পোদ্যোক্তা হিসেবে পরিগণিত হবেন। বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৫০ শতাংশই নারী। জনসংখ্যার এই অবকাঠামোর কারণে টেকসই অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির জন্য অর্থনীতির মূল স্রোতে নারীদের অংশগ্রহণ একান্তভাবেই অপরিহার্য।
গ. স্বপন সাহাকে ব্যবসায় করতে আগ্রহী করে তুলেছে উদ্দীপনামূলক সহায়তা।
উদ্দীপনামূলক সহায়তা বলতে বোঝায় উদ্যোগ গ্রহণমূলক অনুপ্রেরণামূলক প্রশিক্ষণ, বিনিয়োগ, সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে অবহিতকরণ, শিল্প স্থাপনে সরকারি সাহায্য সহযোগিতা সম্পর্কে ব্যাপক প্রচার, কারিগরি ও অর্থনৈতিক তথ্য সরবরাহ ও পরামর্শ দান। এ ধরনের সহায়তা একজন সম্ভাবনাময় উদ্যোক্তাকে ব্যবসায় স্থাপন এবং তা সফলভাবে পরিচালনায় অনুপ্রাণিত করে। উদ্দীপকের স্বপন সাহা টেলিভিশনে স¤প্রচারিত সফল উদ্যোক্তাদের সাক্ষাৎকার এবং বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রদত্ত সহায়তা সম্পর্কে বন্ধুর দেয়া তথ্যাদি থেকে বুঝতে পেরেছেন যে স্বাধীনভাবে জীবিকা অর্জনের জন্য ব্যবসায়ের কোনো বিকল্প নেই এবং এখানে কঠোর পরিশ্রম করে অধিক মুনাফা অর্জন ও দ্রুত উন্নতি সাধন করা সম্ভব। তাছাড়া বর্তমানে ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে বিদ্যমান ঝুঁকিসমূহ মোকাবিলা করার জন্য সহায়তাদানকারী বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। এসব প্রতিষ্ঠান একজন উদ্যোক্তাকে ব্যবসায় বা শিল্পস্থাপন এবং তা সফলভাবে পরিচালনায় সাহায্য করে থাকে। গণমাধ্যম থেকে জানতে পারা এসব তথ্যাদি স্বপন সাহাকে ব্যবসায় করতে আগ্রহী করে তুলেছে।
ঘ. বন্ধুর পরামর্শ স্বপন সাহাকে উদ্ভূত প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে সাহায্য করবে বলে আমি মনে করি।
সমাজ-সভ্যতার ক্রমবিকাশ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উন্নয়নের ফলে বাজারে নানামুখী প্রতিযোগিতা সৃষ্টি হয়েছে। আর এই প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে উদ্যোক্তাকে ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী পণ্য সরবরাহ করতে হবে যার জন্য ব্যবসাকে আধুনিকীকরণ প্রয়োজন। স্বপন সাহা গণমাধ্যমে ব্যবসায় স্থাপন এবং পরিচালনার ক্ষেত্রে সরকারি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের প্রদত্ত সহায়তা সম্পর্কে জানতে পেরে ব্যবসায়ে আগ্রহী হয়ে একটি মুদি দোকান দেয়। কিন্তু অল্পদিনের মধ্যেই আশপাশে বেশ কয়েকটি বড় মুদি দোকান গড়ে ওঠায় তাকে তীব্র প্রতিযোগিতার সম্মুখীন হতে হয়। তাই তার বন্ধু তাকে ব্যবসায়ে আধুনিকায়ন ঘটিয়ে ক্রেতা আকর্ষণের মাধ্যমে এই প্রতিযোগিতা মোকাবিলা করার পরামর্শ দেন। স্বপন সাহা যদি এই পরামর্শ গ্রহণ করে তার
ব্যবসায়ে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করেন, নতুন নতুন ধারণা প্রয়োগ করেন, সেবার মান উন্নত করেন, বাহ্যিক কাঠামোর আধুনিকায়ন ঘটান তাহলে ক্রেতাদের মনে তা প্রভাব ফেলবে এবং তাদেরকে তার প্রতিষ্ঠানের পণ্য ও সেবা ক্রয় এবং ব্যবহার করতে আগ্রহী করে তুলবে। ফলে তার দোকানের বিক্রয় বৃদ্ধি পাবে অর্থাৎ তিনি বর্তমান প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে পারবেন।
সুতরাং বলা যায়, বর্তমান প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে স্বপন সাহাকে তার বন্ধুর পরামর্শ সহায়তা করবে।
প্রশ্ন-৭  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
বেলাল কিশোরগঞ্জের হাওড় এলাকায় বসবাস করেন। এলাকাটিতে প্রচুর ধান উৎপাদিত হওয়ায় তিনি একটি চাতাল কল স্থাপন করতে আগ্রহী হলেন। সম্পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন একটি সংস্থা থেকে তিনি ঋণ গ্রহণ করে চাতাল ব্যবসায় শুরু করলেন। এ সংস্থাটি তার চাতাল কলের জন্য ঋণ প্রদান ছাড়াও যন্ত্রপাতি পরিবর্তন করার পরামর্শ প্রদান করল। সংস্থাটি বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংক ও বাংলাদেশ শিল্প ঋণ সংস্থার একত্রিত রূপ যেটি বেলালের মতো অসংখ্য উদ্যোক্তা তৈরিতে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা প্রদান করে।
ক. গওউঅঝ-এর পূর্ণরূপ কী? ১
খ. উদ্দীপনামূলক সহায়তা ব্যাখ্যা কর। ২
গ. বেলালের চাতাল ব্যবসায়ে কোন সংস্থা সহায়তা প্রদান করেছে তা বর্ণনা কর। ৩
ঘ. বেলালের চাতাল ব্যবসায়ের সফলতায় সংস্থাটির ভ‚মিকা কতটা অপরিহার্য ছিল বলে তুমি মনে কর? ৪
 ৭নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. গওউঅঝ-এর পূর্ণরূপ হলো গরপৎড় ওহফঁংঃৎরবং উবাবষড়ঢ়সবহঃ অংংরংঃহধপব ঝবৎারপবং।
খ. শিল্প স্থাপন একটি সৃজনশীল, গঠনমূলক কিন্তু ঝুঁকিপূর্ণ কাজ। তাই সহজে এ কাজে কেউ এগিয়ে আসতে চায় না। এজন্য প্রয়োজন হয় উদ্দীপনামূলক সহায়তা। উদ্দীপনামূলক সহায়তা বলতে উদ্যোগ গ্রহণমূলক শিক্ষা, অনুপ্রেরণামূলক প্রশিক্ষণ, বিনিয়োগ সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে অবহিতকরণ, শিল্প স্থাপনে সরকারি সাহায্য-সহযোগিতা সম্পর্কে ব্যাপক প্রচার, কারিগরি ও অর্থনৈতিক তথ্য সরবরাহ ও পরামর্শ দানকে বোঝায়।
গ. বেলালের চাতাল কল স্থাপনে বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড (বিডিবিএল) সহায়তা প্রদান করেছে।
বাংলাদেশে উদ্যোক্তা উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকার প্রতিষ্ঠান জড়িত আছে। এগুলোর মধ্যে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান বিডিবিএল অন্যতম। দ্রæত শিল্পায়নের লক্ষ্যে নতুন শিল্প প্রকল্প স্থাপন, চালু শিল্প প্রকল্পগুলোর আধুনিকীকরণ, যন্ত্রপাতি পরিবর্তন ও স¤প্রসারণের জন্য উদ্যোক্তাদের ঋণ ও পরামর্শদান এ প্রতিষ্ঠানের প্রধান কাজ। উদ্দীপকে বেলালের ব্যবসায়ে সম্পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থা হিসেবে সহায়তা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানটি হলো বিডিবিএল। বাংলাদেশ শিল্প ঋণ সংস্থা ও বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংককে একত্রিত করে ২০১০ সালে বিডিবিএল গঠন করা হয়। এটি সরকারি ও বেসরকারি শিল্পের আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা প্রদান করে। উদ্দীপকে বেলালের চাতাল ব্যবসায়ের জন্য রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানটি আর্থিক এবং কারিগরি সহায়তা প্রদান করে এবং ব্যবসায় স¤প্রসারণে পরামর্শ প্রদান করে যা বাংলাদেশ বিডিবিএল এর কার্যের অন্তর্ভুক্ত।
ঘ. উদ্দীপকে বেলালের চাতাল ব্যবসায়ের সফলতায় বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের সহায়তা অপরিহার্য ছিল।
বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংক ও বাংলাদেশ শিল্প ঋণ সংস্থা একত্রিত হয়ে বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড (বিডিবিএল) কার্যক্রম শুরু করে। প্রতিষ্ঠানটি উদ্যোক্তা উন্নয়নে কার্যক্রম চালায়। উদ্দীপকে বেলালের এলাকায় প্রচুর ধান উৎপাদিত হওয়ায় তিনি একটি চাতাল কল স্থাপন করতে আগ্রহী হন। ব্যবসায়টি শুরু করার জন্য তার পুঁজি এবং পরামর্শের প্রয়োজন ছিল। তিনি নিজ উৎস হতে এ অর্থসংস্থান করতে পারছিলেন না। তখন বিডিবিএল বেলালকে ঋণ সুবিধা প্রদান করে, যা দিয়ে তিনি চাতাল ব্যবসায় শুরু করেন। তাছাড়া বিডিবিএল বেলালকে চাতাল ব্যবসায়ের যন্ত্রপাতি পরিবর্তন এবং স¤প্রসারণ করার পরামর্শ দিল। গ্রাহকদের বহুমুখী চাহিদা পূরণে বিডিবিএল এর সহায়তা বেলালের ব্যবসায়কে গতিশীল করে তুলেছে। বিডিবিএলের ঋণ সহায়তা না পেলে তিনি চাতাল ব্যবসায় উন্নয়ন করতে পারতেন না। এছাড়া বিডিবিএলের প্রয়োজনীয় পরামর্শে তিনি চাতালটিকে আধুনিকায়ন করেন, যা তাকে সফলতা দান করেছে।
সুতরাং বলা যায়, বেলালের চাতাল ব্যবসায়ে বিডিবিএল-এর সহায়তা একান্ত আবশ্যক ছিল।
প্রশ্ন-৮  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
মেহেদী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ পাস করে অন্যদের মতো চাকরির পিছনে না ছুটে যশোরের দড়াটানা মোড়ে একটি ফুলের দোকান স্থাপনের মাধ্যমে ব্যবসায় উদ্যোগ উন্নয়নে সচেষ্ট হলেন। পরবর্তীতে ব্যবসায়ের আয়তন বৃদ্ধির প্রয়োজনীয়তা দেখা দিলে তিনি বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণ করে পুঁজির সংস্থান করলেন। ব্যবসায় উদ্যোগ উন্নয়নে এ ধরনের সহায়তা খুব বেশি প্রয়োজন বলেই তিনি মনে করেন।
ক. কত সালে ইপসিক প্রতিষ্ঠিত হয়? ১
খ. শিল্পায়নে অগ্রগতির ক্ষেত্রে শিল্পনীতির ভ‚মিকা কীরূপ? ব্যাখ্যা কর। ২
গ. মেহেদীর ঋণ গ্রহণ কোন ধরনের সহায়তার অন্তর্গত? বর্ণনা কর। ৩
ঘ. ঋণ সহায়তা ছাড়া কি মেহেদীর ব্যবসার উদ্যোগ উন্নয়ন সম্ভব? উত্তরের পক্ষে যুক্তি দাও। ৪
 ৮নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. ১৯৫৭ সালে ইপসিক প্রতিষ্ঠিত হয়।
খ. যেকোনো দেশের শিল্পখাতকে এগিয়ে নিতে সেদেশের শিল্পনীতি গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা পালন করে। শিল্পনীতি শিল্পায়ন স¤প্রসারণে দিক-নির্দেশনা প্রদান করে। তাছাড়া অনুন্নত এলাকাকে শিল্পে উন্নত করার জন্য শিল্প নীতিতে কর অবকাশের ব্যবস্থা করা হয়। শিল্পায়নের অগ্রগতির জন্য প্রয়োজনের প্রেক্ষিতে শিল্পনীতি সংশোধন করা হয়।
গ. মেহেদীর ঋণ গ্রহণ সমর্থনমূলক সহায়তার অন্তর্গত।
যে সহায়তা একটি শিল্প ব্যবসায়ের স¤প্রসারণ, টিকে থাকা ও আধুনিকায়নে সহায়তা করে সেটি সমর্থনমূলক সহায়তা। সমর্থনমূলক সহায়তার মাধ্যমে উদ্যোক্তা শিল্প স্থাপন, পরিচালনা, সম্পদের ব্যবহার ও বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা পেয়ে থাকেন। উদ্দীপকে মেহেদী যশোরের দড়াটানা মোড়ে ফুলের ব্যবসায় স্থাপন করেছিলেন। ব্যবসায়ের আয়তন বৃদ্ধির প্রয়োজনীয়তা দেখা দিলে তিনি বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণ করেন। উদ্দীপনামূলক সহায়তা পেয়ে একজন উদ্যোক্তা ব্যবসায় উদ্যোগ গ্রহণ করতে সচেষ্ট হয়। কিন্তু সমর্থনমূলক সহায়তা উদ্যোক্তার ঐ প্রচেষ্টাকে বাস্তবায়ন করে। সমর্থনমূলক সহায়তার মাধ্যমে উদ্যোক্তা শিল্প স্থাপন, পরিচালনা, নিবন্ধিকরণ, পুঁজির সংস্থান, কর অবকাশ, ভর্তুকি ইত্যাদি সুবিধা পেয়ে থাকে। মেহেদী বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণ করে তার ব্যবসায়ের পুঁজির সংস্থান করেছেন। পুঁজির সংস্থান একটি সমর্থনমূলক সহায়তা।
ঘ. মেহেদী ঋণ সহায়তা ছাড়া উদ্যোগ উন্নয়ন সফল করতে পারতেন না।
ব্যবসায় স্থাপনে যে সকল সহযোগিতার প্রয়োজন হয় তার মধ্যে ঋণ সহায়তা অন্যতম। এটি ব্যবসায়ের স¤প্রসারণ ও গতিশীলতা বাড়িয়ে দেয়। উদ্দীপকে মেহেদী যশোরের দড়াটানা মোড়ে ফুলের ব্যবসায় স্থাপন করেছিলেন। তার উদ্যোগটি সফল করার জন্য স¤প্রসারণ অপরিহার্য হয়ে পড়েছিল। স¤প্রসারণের জন্য প্রয়োজনীয় মূলধন তিনি নিজস্ব তহবিল থেকে যোগান দিতে না পারায় ঋণ সহায়তা গ্রহণ করেন। একজন উদ্যোক্তাকে তখনই সফল উদ্যোক্তা বলা যায় যখন তিনি উদ্যোগটিকে কাক্সিক্ষত পর্যায়ে নিয়ে যান। ঋণ সহায়তা না পেলে মেহেদী তার ব্যবসায়ের আয়তন বাড়াতে পারতেন না। ফলে ক্রেতারা চাহিদামতো পণ্য সংগ্রহ করতে পারত না। এতে ব্যবসায়ের সুনাম হ্রাস পেত এবং তিনি প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়তেন। একসময় ব্যবসায় স¤প্রসারণের অভাবে তার উদ্যোগটি থেমে যেত।
সুতরাং বলা যায়, মেহেদীর ব্যবসায় উদ্যোগ উন্নয়নে ঋণ সহায়তা অপরিহার্য ছিল।
প্রশ্ন-৯  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
মিসেস অনিকা ছোটবেলায় মায়ের কাছে নকশিকাঁথা সেলাই শিখেছিলেন। ঢাকায় বিভিন্ন শপিং মলে নকশিকাঁথার চাহিদা দেখে তিনি নকশিকাঁথা সেলাই করে বিক্রি করা শুরু করেন। তার এই কাজে তাকে তার পরিবারের সদস্যরা সহায়তা করে। গুণগত মান ভালো হওয়ায় দিন দিন তার তৈরি নকশিকাঁথার চাহিদা বৃদ্ধি পেতে থাকে। এরূপ পরিস্থিতিতে তিনি প্রশিকা থেকে ঋণ গ্রহণের পরিকল্পনা নিলেন।
ক. ব্যবসায় উদ্যোগ কী ধরনের কাজ? ১
খ. বাণিজ্যিক ব্যাংকের ঋণপ্রাপ্তির তিনটি যোগ্যতা উল্লেখ কর। ২
গ. মিসেস অনিকা কোন ধরনের শিল্পের সাথে জড়িত? বর্ণনা কর। ৩
ঘ. মিসেস অনিকা কেন ব্যাংক ঋণের কথা ভাবলেন তা বিশ্লেষণ কর। ৪
 ৯নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. ব্যবসায় উদ্যোগ একটি সৃজনশীল ও গঠনমূলক কাজ।
খ. বাণিজ্যিক ব্যাংকের ঋণপ্রাপ্তির তিনটি যোগ্যতা নি¤œরূপ:
১. ঋণ প্রার্থী উদ্যোক্তাকে ন্যূনতম ২ বছরের ব্যবসায়িক অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।
২. উদ্যোক্তাকে সুস্থ, শিক্ষিত এবং ১৮ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে হতে হবে।
৩. উদ্যোক্তাকে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে।
গ. মিসেস অনিকা কুটির শিল্পের সাথে জড়িত।
কুটির শিল্প বলতে পরিবারের সদস্যদের দ্বারা পূর্ণ বা খণ্ডকালীন সময়ে উৎপাদন অথবা সেবামূলক কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত শিল্প প্রতিষ্ঠানকে বোঝায়। উদ্দীপকে মিসেস অনিকা ঘরে বসে নকশিকাঁথা সেলাই করেন। তাকে এই কাজে তার পরিবারের সদস্যরা সহায়তা করেন। তাই মিসেস অনিকার শ্রম প্রধান কাজটি কুটির শিল্পের অন্তর্গত। এ ধরনের শিল্পে গ্রামের মহিলাদের কাজ করার সুযোগ সবচেয়ে বেশি থাকে। তারা কাজের অবসরে কুটির শিল্পে কাজ করে পরিবারের আয় বৃদ্ধির মাধ্যমে আর্থিক সচ্ছলতা আনয়ন করতে পারেন।
ঘ. কুটির শিল্পের সাথে জড়িত আনিকা তার ব্যবসায় স¤প্রসারণের জন্য ব্যাংক ঋণের কথা ভাবলেন।
ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প স্থাপন এবং বিকাশে পুঁজির প্রয়োজন। কিন্তু উদ্যোক্তারা সবসময় নিজস্ব তহবিল থেকে প্রয়োজনীয় পুঁজির সংস্থান করতে পারে না। তাই তাদের ঋণের প্রয়োজন হয়। উদ্দীপকের অনিকা একজন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা। ঘরে বসে তিনি নকশিকাঁথা তৈরি করে বিক্রি করেন। এ কাজে তাকে তার পরিবারের লোকজন সাহায্য করে। কিন্তু তার তৈরি নকশিকাঁথার মান ভালো হওয়ায় বাজারে তার তৈরি নকশিকাঁথার চাহিদা দিন দিন বৃদ্ধি পেতে থাকে। তাই তিনি বাজারের বর্ধিত চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে তার নকশিকাঁথার উৎপাদন সংখ্যা বাড়ানোর কথা ভাবছেন। কিন্তু নকশিকাঁথা তৈরির উপকরণ ক্রয় এবং পর্যাপ্ত পরিমাণ নকশিকাঁথা উৎপাদনের পর তা সংরক্ষণের ব্যবস্থা করার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ অর্থের প্রয়োজন। কুটির শিল্পের উদ্যোক্তাদের পক্ষে নিজস্ব তহবিল থেকে এরূপ বিশাল অঙ্কের মূলধন সরবরাহ করা সম্ভব হয় না বলে তারা ব্যাংক থেকে ঋণ সহায়তা গ্রহণ করে থাকে না।
সুতরাং বলা যায়, মিসেস অনিকার পক্ষে নিজস্ব তহবিল দ্বারা ব্যবসায়ের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থের সংস্থান করা সম্ভব না হওয়ায় তিনি ব্যাংক হতে ঋণ নেয়ার কথা ভাবলেন।
প্রশ্ন-১০  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
জনাব মামুন এমএ পাস করার পর বিভিন্ন স্থানে চাকরির জন্য পরীক্ষা দিয়ে কোথাও চাকরি না পেয়ে হতাশাপূর্ণ জীবন কাটাচ্ছিল। এ সময় চ্যানেল আই স¤প্রচারিত হাঁস পালনের ওপর নির্মিত একটি প্রামাণ্যচিত্র জনাব মামুনের দৃষ্টি আকর্ষণ করল। এই প্রামাণ্যচিত্রটি দেখার পর জনাব মামুন যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর থেকে হাঁস পালনের ওপর প্রশিক্ষণ নিয়ে একটি হাঁসের খামার গড়ে তোলেন। কঠোর পরিশ্রম ও দৃঢ় মনোবল নিয়ে খামারটি পরিচালনা করায় তিনি দ্রুত সফলতা লাভ করেন।
ক. ১৯৫৭ সালে কে যুক্তফ্রন্ট সরকারের শ্রম, বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রী ছিলেন? ১
খ. সমর্থনমূলক সহায়তা বলতে কী বোঝ? ২
গ. জনাব মামুনের হাঁস খামার স্থাপনে চ্যানেল আই’র স¤প্রচারিত প্রামাণ্যচিত্রটি কোন ধরনের সহায়তা প্রদান করেছে? বর্ণনা কর। ৩
ঘ. জনাব মামুনের ব্যবসায় উদ্যোগ গ্রহণের ক্ষেত্রে চ্যানেল আই’র প্রামাণ্যচিত্রের ভূমিকা মূল্যায়ন কর। ৪
 ১০নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. ১৯৫৭ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুক্তফ্রন্ট সরকারের শ্রম, বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রী ছিলেন।
খ. শিল্প ও ব্যবসায় স্থাপনে আগ্রহী কোনো ব্যক্তির উদ্যোগকে বাস্তবায়ন করার জন্য যে সাহায্যের প্রয়োজন হয়, তাকে সমর্থনমূলক সহায়তা বলে। এ ধরনের সাহায্য উদ্যোক্তাকে শিল্পস্থাপন, পরিচালনা ও সম্পদের ব্যবহার ও বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা পেতে সাহায্য করে। উলে­খযোগ্য সমর্থনমূলক সহায়তাগুলো হলো : শিল্প প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধিকরণ, মূলধন সংস্থান, মেশিনারি সংগ্রহে সাহায্য, কাঁচামাল সরবরাহ, কর অবকাশ ও ভর্তুকি প্রদান।
গ. জনাব মামুনের হাঁসের খামার স্থাপনে চ্যানেল আই স¤প্রচারিত প্রামাণ্যচিত্রটি উদ্দীপনামূলক সহায়তা প্রদান করেছে।
উদ্দীপনামূলক সহায়তা বলতে বিভিন্ন প্রকার অনুপ্রেরণামূলক প্রশিক্ষণ, বিনিয়োগের সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে অবহিতকরণ, শিল্পস্থাপনে সরকারি সাহায্য সহযোগিতা সম্পর্কে ব্যাপক প্রচার, কারিগরি ও অর্থনৈতিক তথ্য সরবরাহ ও পরামর্শদানকে বোঝায়। উদ্দীপকে চ্যানেল আই’র প্রামাণ্যচিত্রটি হাঁসের খামার স্থাপন ও পরিচালনার বিভিন্ন বিষয় উপস্থাপন করে জনাব মামুনকে হাঁসের খামার স্থাপনে আগ্রহী করে তুলেছে। কীভাবে হাঁসের খামার পরিচালনা করলে সফলতা লাভ করা যায় তা প্রামাণ্যচিত্রে পরিষ্কারভাবে ফুটিয়ে তোলায় জনাব মামুনও তার খামারটি সেইভাবে পরিচালনা করে সফল হতে পেরেছেন। তাই চ্যানেল আই’র স¤প্রচারিত প্রামাণ্যচিত্রটি জনাব মামুনকে হাঁসের খামার স্থাপনে উদ্দীপনা প্রদান করায় একে উদ্দীপনামূলক সহায়তা বলা যায়।
ঘ. উদ্দীপকের জনাব মামুনের উদ্যোগ গ্রহণের ক্ষেত্রে চ্যানেল আই’র প্রামাণ্যচিত্রটি গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা পালন করেছে।
ব্যবসায় স্থাপন ও পরিচালনায় ঝুঁকি বিদ্যমান থাকায় কেউ সহজে ব্যবসায় উদ্যোগ গ্রহণ করতে চায় না। কিন্তু দেশে কর্মসংস্থান সৃষ্টি, দেশের মানুষের জীবনযাত্রার মানোন্নয়ন, দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য জনগণকে নতুন নতুন ব্যবসায় ও শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে উদ্বুদ্ধ করা প্রয়োজন। উদ্দীপকের চ্যানেল আই’র প্রামাণ্যচিত্রটি একটি উদ্দীপনামূলক সহায়তা। প্রামাণ্যচিত্রটি হাঁস পালনের ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে। কীভাবে হাঁসের খামার স্থাপনের মাধ্যমে বেকার জীবনের অবসান ঘটানো যায় তা-ই প্রামাণ্যচিত্রে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। তাছাড়া হাঁসের খামার স্থাপন ও পরিচালনায় যেসব সমস্যা বিদ্যমান রয়েছে সেগুলো কীভাবে সমাধান করে সফলতা লাভ করা যায় তাও প্রামাণ্যচিত্রে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে যা জনাব মামুনকে হাঁসের খামার স্থাপনে আগ্রহী করে তুলেছে। পরবর্তীতে প্রামাণ্যচিত্রটিকে দিক-নির্দেশনা হিসেবে ব্যবহার করে জনাব মামুন একটি হাঁসের খামার গড়ে তোলেন এবং যথাযথভাবে খামারটি পরিচালনা করে তিনি সফলতা লাভ করেন। সুতরাং বলা যায়, জনাব মামুনের হাঁসের খামার স্থাপনে আগ্রহী হওয়ার পেছনে চ্যানেল আই’র প্রামাণ্যচিত্রটির ভূমিকা অপরিসীম।
প্রশ্ন-১১  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
বিপুল ঘোষ নিজস্ব পুঁজি ও আত্মীয়স্বজনের নিকট থেকে ঋণ নিয়ে একটি চামড়ার ব্যাগ তৈরির কারখানা স্থাপন করেন। দেশি যন্ত্রপাতি দ্বারা তৈরি ব্যাগের গুণগতমান ভালো না হওয়ায় তিনি জাপান থেকে মেশিন আমদানি করেন। এতে তার চলতি মূলধনে ঘাটতি দেখা দেয় এবং উৎপাদন কার্য ব্যাহত হয়।
ক. ব্র্যাক কী ধরনের সংস্থা? ১
খ. যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের কার্যাবলি লিখ। ২
গ. বিপুল ঘোষ চলতি মূলধনের জন্য কোন ধরনের ব্যাংকের দ্বারস্থ হতে পারেন? ব্যাখ্যা কর। ৩
ঘ. বাংলাদেশের শিল্পোন্নয়নে উক্ত রূপ ব্যাংকের ভূমিকা মূল্যায়ন কর। ৪
 ১১নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. ব্র্যাক বাংলাদেশ তথা পৃথিবীর সর্ববৃহৎ বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা।
খ. যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অধীন যুব অধিদপ্তর দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অবস্থিত অনেকগুলো প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মাধ্যমে যুব অধিদপ্তর শিক্ষিত ও স্বল্প শিক্ষিত যুবকদের ক্ষুদ্র ব্যবসায়, কৃষি খামার, মৌমাছি পালন, গবাদি পশু পালন, মৎস চাষ, কম্পিউটার শিক্ষা, অফিস ব্যবস্থাপনা, সেলাই ও এমব্রয়ডারি ইত্যাদি ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে। প্রশিক্ষণের সাথে সাথে সম্ভাব্য উদ্যোক্তাদের স্বল্প সুদে প্রারম্ভিক পুঁজি সরবরাহের ব্যবস্থাও করে থাকে।
গ. বিপুল ঘোষ তার প্রতিষ্ঠানের চলতি মূলধনের জন্য বাণিজ্যিক ব্যাংকের দ্বারস্থ হতে পারেন।
বাণিজ্যিক ব্যাংক শিল্প ও ব্যবসায় উদ্যোক্তাদের স্বল্প সুদে এবং সহজ শর্তে বিভিন্ন মেয়াদে ঋণ প্রদান করে থাকে। বিশেষ করে নিবিড় শ্রমঘন ও কর্মসংস্থানমুখী অর্থনৈতিক উন্নয়নের লক্ষ্যে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প ও ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান সমূহের দ্রæত প্রসারের জন্য বিভিন্ন সহায়তা কর্মসূচি গ্রহণ করছে। উদ্দীপকে বিপুল ঘোষ তার পণ্যের গুণগত মান উন্নত করার জন্য জাপান থেকে মেশিন আমদানি করেছেন। চলতি মূলধন দিয়ে স্থায়ী সম্পত্তি ক্রয় করায় তার চলতি মূলধনে ঘাটতি দেখা দিয়েছে যার ফলে তার উৎপাদন কার্য ব্যাহত হচ্ছে। তাই চলতি মূলধনে ঘাটতি পূরণের লক্ষ্যে তিনি অর্থ সংস্থানের চেষ্টা করছেন। স্থানীয় এনজিও থেকে চলতি মূলধন সংগ্রহ করা গেলেও সেক্ষেত্রে সুদের হার অনেক বেশি হয়। তাই তিনি বাণিজ্যিক ব্যাংক হতে ঋণ গ্রহণ করতে পারেন। কারণ বাণিজ্যিক ব্যাংক হতে তিনি সহজ শর্তে এবং স্বল্প সুদে ঋণ গ্রহণের পাশাপাশি প্রয়োজনীয় পরামর্শ নিতে পারবেন।
ঘ. নতুন শিল্প বা ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান স্থাপন ও পরিচালনায় উদ্যোক্তাদের আর্থিক সহায়তা প্রদানের ক্ষেত্রে এরূপ ব্যাংক তথা বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর ভূমিকা অপরিসীম।
আমাদের দেশে বর্তমানে চারটি রাষ্ট্রায়ত্ত ও বাণিজ্যিক ব্যাংক (সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী) এবং বাংলাদেশ কৃষিব্যাংক সারা দেশে বিরাজমান তাদের শাখাগুলোর মাধ্যমে শিল্প ও ব্যবসায় উদ্যোক্তাদের আর্থিক সেবা প্রদান করছে।
বাণিজ্যিক ব্যাংক ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প এবং ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানসমূহের দ্রুত প্রসারের জন্য বিভিন্ন সহায়তামূলক কর্মসূচি চালু করেছে। বাংলাদেশের প্রধান বাণিজ্যিক ব্যাংক সোনালী ব্যাংক লিমিটেড সরকারের উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে এসএমই খাতের উন্নয়নে একমালিকানা, অংশীদারি, প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি এবং পাবলিক লিমিটেড কোম্পানিকে বিভিন্ন ধরনের সহায়তা প্রদান করে আসছে। ব্যবসায় বা প্রকল্পের ধরন অনুযায়ী ঋণসীমা সর্বনিম্ন ৫০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ১০ কোটি টাকা। ঋণের মেয়াদ ব্যবসায় বা প্রকল্পের ওপর নির্ভর করে নির্ধারণ করা হয়। তবে চলতি মূলধনের ক্ষেত্রে ১ বৎসর এবং মেয়াদি ঋণের ক্ষেত্রে ৩-৭ বছর পর্যন্ত বিবেচিত হয়। সরকারি ব্যাংকের পাশাপাশি বিভিন্ন বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক শিল্পোদ্যোক্তাদের স্বল্পমেয়াদি পুঁজির অভাব মেটাতে অগ্রণী ভ‚মিকা পালন করছে। একজন শিল্পোদ্যোক্তা মূলধন ছাড়াও বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে শিল্প স্থাপন সংক্রান্ত বিনিয়োগপূর্ব পরামর্শ দান, পণ্য নির্বাচন এবং বাজারজাতকরণ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পরামর্শ নিতে পারেন।
সুতরাং বলা যায়, বাংলাদেশের শিল্পোন্নয়নে বাণিজ্যিক ব্যাংকের ভূমিকা অপরিসীম।
প্রশ্ন-১২  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
পড়াশোনা শেষ করে জাহিদ একটি পছন্দসই চাকরি পাওয়ার আশায় দীর্ঘ পাঁচ বছর বেকার জীবন কাটায়। তারপর এই বেকার জীবনের অবসান ঘটাতে তিনি যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ একটি সংস্থা থেকে এমব্রয়ডারির ওপর প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজ এলাকায় রংপুরের গাইবান্ধায় একটি এমব্রয়ডারি কারখানা স্থাপন করেন। জাহিদকে কারখানা স্থাপনে সংস্থাটি স্বল্পসুদে ঋণপ্রদানসহ প্রয়োজনীয় পরামর্শ দান করেছে। তার কারখানাটি পৌরসভা এলাকায় অবস্থিত হওয়ায় তিনি বেশ কিছু সরকারি সুবিধাও ভোগ করেন। জাহিদের কঠোর পরিশ্রম আর আন্তরিক প্রচেষ্টা, সংস্থাটির প্রশিক্ষণ ও আর্থিক সাহায্য এবং সরকারি সহায়তা তাকে সাফল্যের চ‚ড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে দেয়।
ক. ইঈঝওজ-এর পূর্ণরূপ কী? ১
খ. ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প প্রতিষ্ঠায় বঙ্গবন্ধুর অবদান ব্যাখ্যা কর। ২
গ. জাহিদ কোন সংস্থার সহায়তায় তার বেকার জীবনের অবসান ঘটাতে পেরেছেন? বর্ণনা কর। ৩
ঘ. জাহিদ তার কারখানাটি রংপুরের গাইবান্ধা জেলায় স্থাপন করায় অতিরিক্ত কোনো সুবিধা ভোগ করতে পারবে কি? তোমার উত্তরের পক্ষে যুক্তি দাও। ৪
 ১২নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. ইঈঝওজ-এর পূর্ণরূপ হলো ইধহমষধফবংয ঈড়ঁহপরষ ভড়ৎ ঝপরবহঃরভরপ ধহফ ওহফঁংঃৎরধষ জবংবধৎপয।
খ. ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প প্রতিষ্ঠায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদান অবিস্মরণীয়। তিনি ১৯৫৭ সালে যুক্তফ্রন্ট সরকারের শ্রম, বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকালে গণপরিষদে একটি ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন প্রতিষ্ঠায় বিল উপস্থাপন করেন। এরই ফলশ্রæতিতে ১৯৫৭ সালের ৩০ মে পূর্ব পাকিস্তানের ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প করপোরেশন (ইপসিক) প্রতিষ্ঠিত হয় যা স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সংস্থা (বিসিক) নামধারণ করে।
গ. জাহিদ যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সহায়তায় তার বেকার জীবনের অবসান ঘটাতে পেরেছেন।
যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর দেশের বেকার সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে যুবক ও যুব মহিলাদের জন্য কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে নানা ধরনের কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মাধ্যমে সংস্থাটি শিক্ষিত ও স্বল্প শিক্ষিত যুবক ও যুব মহিলাদের ক্ষুদ্র ব্যবসায়, কৃষি খামার, মৌমাছি পালন, গবাদিপশু পালন, মৎস্য চাষ, কম্পিউটার শিক্ষা, অফিস ব্যবস্থাপনা, সেলাই ও এমব্রয়ডারি ইত্যাদি ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে এবং প্রশিক্ষণ শেষে স্বল্প সুদে প্রারম্ভিক পুঁজি সরবরাহ করে তাদের ব্যবসায় বা শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনে সহায়তা করে থাকে। জাহিদ যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ একটি সাহায্যকারী সংস্থা থেকে এমব্রয়ডারি কারখানা স্থাপন করেছে। জাহিদের সহায়তা দানকারী প্রতিষ্ঠানের বৈশিষ্ট্যসমূহ যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরকেই নির্দেশ করে। তাই বলা যায়, জাহিদ যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সহায়তায় তার বেকার জীবনের অবসান ঘটিয়েছেন।
ঘ. জাহিদের শিল্প কারখানাটি রংপুর বিভাগে অবস্থিত হওয়ায় অতিরিক্ত সুবিধা হিসেবে তিনি সরকার কর্তৃক প্রদত্ত সমর্থনমূলক সহায়তার অন্তর্গত কর অবকাশ সুবিধা ভোগ করবেন।
দেশের শিল্পোদ্যোক্তাদের নতুন নতুন শিল্পপ্রতিষ্ঠায় উদ্বুদ্ধ করার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে শিল্প কারখানা স্থাপন এবং পরিচালনায় বিভিন্ন ধরনের সহায়তা প্রদান করা হয়। তাই শিল্পোদ্যোক্তাগণ শিল্প স্থাপনের পূর্বে সরকারের বিভিন্ন নীতিমালা বিচার বিশ্লেষণ করে যে স্থানে শিল্পস্থাপন করলে অধিক সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে পারবেন সে স্থানে শিল্প কারখানা স্থাপন করেন। উদ্দীপকে জাহিদ যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর থেকে প্রশিক্ষণ ও ঋণ নিয়ে রংপুরের গাইবান্ধা এলাকায় একটি এমব্রয়ডারি কারখানা স্থাপন করেছেন। উক্ত এলাকায় কারখানা স্থাপন করায় তিনি অতিরিক্ত সুবিধা হিসেবে সরকারকর্তৃক প্রদত্ত সমর্থনমূলক সহায়তা ভোগ করতে পারবেন। কারণ জাতীয় শিল্পনীতি ২০১০ অনুসারে রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল ও রংপুর বিভাগ এবং তিন পার্বত্য জেলায় স্থাপিত শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য ৭ বছর মেয়াদি কর অবকাশের মধ্যে প্রথম ৩ বছর কর অবকাশের হার ১০০%, পরবর্তী ৩ বছর ৫০% এবং শেষের বছর (৭ম বছর) ২৫%।
সুতরাং, রংপুরে শিল্প কারখানা স্থাপন করায় জাহিদ সরকার কর্তৃক প্রদত্ত সমর্থনমূলক সহায়তা হিসেবে প্রথম ১০ বছর বিভিন্ন হারে কর অবকাশ সুবিধা ভোগ করবেন।

প্রশ্ন-১৩  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
ফারুক একটি ইলেক্ট্রনিকস সামগ্রী উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানে দীর্ঘদিন ধরে চাকরি করেছেন। বর্তমানে তিনি নিজেই এ রকম প্রতিষ্ঠান স্থাপনের চিন্তা করছেন কিন্তু ঝুঁকির কথা চিন্তা করে অগ্রসর হতে ভয় পাচ্ছেন। এমতাবস্থায় ব্যাংকে কর্মরত তার এক বন্ধু তাকে ঐ কাজে উৎসাহিত করলেন এবং ব্যাংক থেকে সহজ শর্তে ঋণের ব্যবস্থা করতে ও মেশিনারি সংগ্রহে সাহায্য করতে পারবেন বলে আশ্বস্ত করায় ফারুক ইলেক্ট্রনিকস কারখানা স্থাপন করলেন।
ক. গঠনমূলক কাজ বলা হয় কোনটিকে? ১
খ. বিসিক কেন গঠিত হয়? ২
গ. জনাব ফারুককে কারখানা স্থাপনে আগ্রহী করতে কোন ধরনের সহায়তা প্রয়োজন হয়েছিল? বর্ণনা কর। ৩
ঘ. জনাব ফারুকের ইলেক্ট্রনিকস কারখানা স্থাপনের আশা বাস্তবায়নে তার বন্ধুর ভ‚মিকা মূল্যায়ন কর। ৪
 ১৩নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. নতুন ব্যবসায় বা শিল্প স্থাপনকে গঠনমূলক কাজ বলা হয়।
খ. জাতীয় শিল্পখাতের উন্নয়নের জন্য পরামর্শ প্রদান এবং ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পকে সুসংহত করতে বিসিক গঠিত হয়। বর্তমানে এ সংস্থাটি শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনে দেশের ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের স¤প্রসারণে নিয়োজিত সরকারি খাতের প্রধান সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করছে। এ সংস্থার প্রধান কাজ হলো ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পখাতের উন্নয়নের জন্য বিনিয়োগ পরামর্শ দান।
গ. জনাব ফারুককে কারখানা স্থাপনে আগ্রহী করতে উদ্দীপনামূলক সহায়তার প্রয়োজন হয়েছিল।
উদ্দীপনামূলক সহায়তা বলতে বিভিন্ন প্রকার অনুপ্রেরণামূলক প্রশিক্ষণ, বিনিয়োগ সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে অবহিতকরণ, শিল্প স্থাপনে সরকারি সাহায্য-সহযোগিতা সম্পর্কে ব্যাপক প্রচার, কারিগরি ও অর্থনৈতিক তথ্য সরবরাহ ও পরামর্শ দানকে বোঝায়। শিল্প স্থাপন একটি সৃজনশীল গঠনমূলক কিন্তু ঝুঁকিপূর্ণ কাজ। তাই এ ধরনের কাজে কাউকে উৎসাহিত করতে উদ্দীপনামূলক সহায়তা দান করা প্রয়োজন। উদ্দীপকের ফারুক একটি নতুন শিল্প স্থাপনে আগ্রহী, কিন্তু ঝুঁকির কথা ভেবে ভয় পাচ্ছিলেন। এই ভয় কাটিয়ে ওঠতে তার উদ্দীপনামূলক সহায়তার প্রয়োজন ছিল। তাই তার বন্ধু যখন তাকে ব্যাংক থেকে সহজ শর্তে ঋণের ব্যবস্থা করতে ও মেশিনারি সংগ্রহ সাহায্য করতে পারবেন বলে আশ্বস্ত করলেন তখন তিনি তার ইলেক্ট্রনিকস কারখানা স্থাপন করলেন।
ঘ. জনাব ফারুকের ইলেক্ট্রনিকস কারখানা স্থাপনের আশা বাস্তবায়নে তার বন্ধু উদ্দীপনামূলক সহায়তা প্রদান করে গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা পালন করেছেন।
একজন নতুন উদ্যোক্তার শিল্প স্থাপনে পূর্ব অভিজ্ঞতা থাকে না বলে উদ্যোগ গ্রহণের প্রাথমিক পর্যায় থেকে শুরু করে প্রতিষ্ঠান পরিচালনা সংক্রান্ত সকল স্তরে বিভিন্ন সাহায্য সহায়তার প্রয়োজন হয়। আর বিভিন্ন রকম সহায়তা একজন উদ্যোক্তাকে ব্যবসায় বা শিল্প স্থাপন ও সফলভাবে পরিচালনায় অনুপ্রাণিত করে। উদ্দীপকে ফারুকের বন্ধু প্রথমে তাকে ব্যবসায় করার জন্য অনুপ্রাণিত করল। অনুপ্রাণিত হওয়ার পরও অনেকে ব্যবসায়ের প্রাথমিক কার্যাবলি সম্পাদনের জটিলতার কারণে আবার পিছিয়ে যায়। ফারুকের বন্ধু একজন ব্যাংক কর্মকর্তা। সে কারণে সহজেই তিনি ব্যাংক থেকে অর্থসংস্থান করতে এবং মেশিনারি সংগ্রহে সাহায্য করবেন বলে আশ্বস্ত করলেন। যার ফলে ফারুক ইলেক্ট্রনিকস কারখানা স্থাপনে আগ্রহী হন। অর্থাৎ ফারুকের ইলেক্ট্রনিকস কারখানা স্থাপনের আশা বাস্তবায়নে তার বন্ধু তাকে এ কাজে উৎসাহিত করেছেন, কারখানার যন্ত্রপাতি সংগ্রহে সাহায্য করতে পারবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন এবং বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে প্রাপ্য সুবিধার কথা বলেছেন। যার কারণে তিনি উৎসাহিত হয়ে ইলেকক্ট্রনিকস কারখানা স্থাপন করেন।
সুতরাং, জনাব ফারুকের আশা বাস্তবায়নে তার বন্ধুর ভ‚মিকা অনস্বীকার্য।
প্রশ্ন-১৪  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
জনাব রহিম মিয়া কৃষিকাজ করেন। কিন্তু এতে তার সংসার ঠিকমতো চলছিল না। তার বাড়ির পাশে একটি পুকুর পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিল। তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন তাতে তিনি মাছ চাষ করবেন। যাবতীয় পরামর্শের জন্য তিনি বিডিবিএল-এর শরণাপন্ন হলেন। বিডিবিএলের সহায়তায় তিনি কৃষি ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে মাছের চাষ শুরু করলেন এবং ধীরে ধীরে তার পরিবারে সচ্ছলতা আসতে শুরু করল।
ক. বিডিবিএল-এর পূর্ণরূপ কী? ১
খ. বেসিক ব্যাংক কখন থেকে নিবন্ধিত ও পরিচালিত? ২
গ. জনাব রহিম মিয়া কীভাবে তার পরিবারের সচ্ছলতা আনতে সমর্থ হলেন তা ব্যাখ্যা কর। ৩
ঘ. পারিবারিক সচ্ছলতায় বিডিবিএল-এর ভ‚মিকা অপরিসীম- কথাটির তাৎপর্য ব্যাখ্যা কর। ৪
 ১৪নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. বিডিবিএল-এর পূর্ণরূপ হলো বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড।
খ. বেসিক ব্যাংক সরকারের আওতাধীন একটি বাণিজ্যিক ব্যাংক। ব্যাংকটি বাংলাদেশে প্রচলিত ১৯১৩ সালের কোম্পানি আইনের অধীন ১৯৮৮ সালে নিবন্ধিত হয় এবং ১৯৮৯ সালের ৩১ শে জানুয়ারি থেকে ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু করে। বর্তমানে এটি ব্যাংকিং কোম্পানি আইন ১৯৯১ অনুযায়ী পরিচালিত হচ্ছে।
গ. বিডিবিএল-এর সমর্থনমূলক সহায়তায় মাছ চাষের ফলে রহিম মিয়া তার পরিবারে সচ্ছলতা আনতে সমর্থ হলেন।
শিল্প ও ব্যবসায় স্থাপনে আগ্রহী কোনো ব্যক্তিকে তার আশা বাস্তবায়িত করার জন্য যে সাহায্যের প্রয়োজন হয় তাকে সমর্থনমূলক সহায়তা বলে। সমর্থনমূলক সাহায্য উদ্যোক্তাকে শিল্প স্থাপন, পরিচালনা ও সম্পদের ব্যবহার সম্পর্কে সাহায্য করে।
জনাব রহিম মিয়া একজন কৃষক। কৃষিকাজ করে যে আয় করতেন তা দিয়ে তার সংসার ঠিকমতো চলছিল না। তার বাড়ির পাশে একটি পরিত্যক্ত পুকুর ছিল। তিনি সিদ্ধান্ত নেন তাতে মাছ চাষ করবেন। কিন্তু তার কাছে পর্যাপ্ত পরিমাণ টাকা ছিল না। তিনি অর্থের যোগানের জন্য বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের শরণাপন্ন হন। বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের সহযোগিতায় রহিম মিয়া মাছ চাষের জন্য বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক হতে সহজ শর্তে ঋণ পান এবং ঋণের টাকা দিয়ে পুকুরে মাছ চাষ করেন। এর দ্বারা তিনি তার পরিবারে সচ্ছলতা আনতে সমর্থ হন।
ঘ. বিভিন্ন পরামর্শ ও সহজ শর্তে ঋণ প্রদানের মাধ্যমে বিডিবিএল পারিবারিক সচ্ছলতায় ভ‚মিকা রাখছে।
বিডিবিএল বা বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক যার প্রধান কাজ হলো সহায়তা করা। মূলত বিডিবিএল হলো একটি সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়নে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের ভ‚মিকা অনস্বীকার্য।
উদ্যোক্তাদের মধ্যে কর্মসংস্থান সৃষ্টি, বেকারত্ব লাঘব ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যে বিডিবিএল এসএমই খাতে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের মাঝে ৪০% ঋণ বিতরণ করে থাকে। যারা সহজ শর্তে ঋণ প্রদানের মাধ্যমে বেকারদের কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেয়।
আমাদের দেশের অনেক শিক্ষিত বা স্বল্পশিক্ষিত বেকার আছে যারা প্রাপ্ত অর্থের অভাবে কোনো ব্যবসায় করতে পারে না। বিডিবিএলের প্রধান কাজ হলো এসব যুবককে সাহায্য করা। এসব বেকার যুবকরা কোনো না কোনো পরিবারের অন্তর্ভুক্ত। বেকার যুবকরা বিডিবিএলের মাধ্যমে বিভিন্ন ঋণ সহায়তা পায়, যার ফলে তাদের পারিবারিক সচ্ছলতা আসে। এছাড়া পরিবারের স্বল্প আয়ের কর্মক্ষম ব্যক্তির পারিবারিক অসচ্ছলতা কাটাতেও বিডিবিএল ব্যাপক ভ‚মিকা পালন করে থাকে। উদ্দীপকে রহিম মিয়ার পরিবারের অসচ্ছলতা দূর করে বিডিবিএল তারই প্রমাণ রেখেছে।
প্রশ্ন-১৫  নিচের উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :
জনাব রিয়াজ বিশ্বের সর্ববৃহৎ এনজিও বা বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। সংস্থাটি স্বাধীনতার পর বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত হয়ে বর্তমানে বিশ্বের বহু দেশে কার্যক্রম পরিচালনা করছে। প্রথমে ত্রাণ ও পুনর্বাসন নিয়ে কাজ করলেও বর্তমানে দারিদ্র্য নিরসন ও উদ্যোক্তা উন্নয়নে সংস্থাটি আর্থিক ও অনার্থিক সহায়তা প্রদান করছে। জনাব রিয়াজ মনে করেন তার সংস্থার মতো প্রত্যেকটি বেসরকারি সংস্থা যদি একটু বেশি দায়িত্বশীল হয় তাহলে বাংলাদেশে কোনো উদ্যোগ ব্যর্থতায় পর্যবসিত হবে না।
ক. সম্ভাবনাময় উদ্যোক্তার কী প্রয়োজন হয়? ১
খ. মাইডাস সম্পর্কে ব্যাখ্যা কর। ২
গ. জনাব রিয়াজ কোন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থায় নিয়োজিত আছেন তা বর্ণনা কর। ৩
ঘ. জনাব রিয়াজ উদ্যোক্তা উন্নয়নে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার যে ভ‚মিকা প্রত্যাশা করেছেন তা কতটা যৌক্তিক বলে তুমি মনে কর। ৪
 ১৫নং প্রশ্নের উত্তর 
ক. সম্ভাবনাময় উদ্যোক্তার সহায়তা প্রয়োজন হয়।
খ. মাইডাস একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা যেটি ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের আর্থিক কারিগরি ও ব্যবস্থাপনা জাতীয় সহায়তা প্রদান করে। সংস্থাটি জাতীয়, বহুজাতিক, সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহকে আর্থিক, প্রশিক্ষণ, তথ্য ও পরামর্শ সেবা প্রদান করে। এছাড়া ব্যবসায় উদ্যোক্তাদের মধ্যে সহযোগিতার নেটওয়ার্ক বাড়ায় এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উৎপাদিত পণ্যের স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে বিপণনে সহায়তা করে।
গ. জনাব রিয়াজ ব্র্যাক নামক বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থায় নিয়োজিত আছেন।
উদ্যোক্তা উন্নয়নে বাংলাদেশে অনেক দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা নিয়োজিত আছে। এদের মধ্যে ব্র্যাক অন্যতম। ব্র্যাক বিশ্বের সর্ববৃহৎ এনজিও বা বেসরকারি সংস্থা। বাংলাদেশে এ সংস্থাটি ১৯৭২ সালে স্বাধীনতার পর জনাব ফজলে হোসেন আবেদের নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠিত হয়। ২০১০ সালের হিসাব মতে বাংলাদেশ তথা বিশ্বের সর্ববৃহৎ এনজিও বা বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা হচ্ছে ব্র্যাক। শুরুতে ত্রাণ ও পুনর্বাসন নিয়ে কাজ করলেও বর্তমানে এটি উদ্যোক্তা উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। উদ্দীপকে জনাব রিয়াজ বিশ্বের সর্ববৃহৎ এনজিওতে চাকরি করেন। যা প্রথমে ত্রাণ ও পুনর্বাসন নিয়ে কাজ করলেও বর্তমানে দারিদ্র্য নিরসনও উদ্যোক্তা উন্নয়নে আর্থিক ও অনার্থিক সহায়তা প্রদান করছে। প্রতিষ্ঠানটি সম্পাদিত এসব কার্যাবলি প্রতিষ্ঠানটিকে ব্র্যাক বলেই ঘোষণা করছে।
ঘ. জনাব রিয়াজ উদ্যোক্তা উন্নয়নে বেসরকারি সংস্থার যে দায়িত্বশীল ভ‚মিকা প্রত্যাশা করেছেন তা অত্যন্ত যৌক্তিক এবং সমর্থনযোগ্য।
উদ্যোক্তা উন্নয়নে বেসরকারি সংস্থা গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা পালন করে। এ সংস্থা মূলত গ্রামীণ বিত্তহীন ও স্বল্পবিত্তদের উদ্যোগী হবার ব্যাপারে সাহায্য সহযোগিতা করে থাকে। বাংলাদেশে অসংখ্য এনজিওর মধ্যে ব্র্যাক এর ভ‚মিকা সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। উদ্দীপকে জনাব রিয়াজ প্রত্যাশা করেন বেসরকারি সংস্থাসমূহ উদ্যোক্তা উন্নয়নে দায়িত্বশীল হবে। তারা বিভিন্ন প্রতিযোগিতার মাধ্যমে মেধাবী ও সৃজনশীল উদ্যোক্তা খুঁজে বের করবে। বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ও পরামর্শ সহায়তার মাধ্যমে এসকল উদ্যোক্তাদের সফল উদ্যোক্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে কাজ করবে।

 জ্ঞানমূলক প্রশ্ন ও উত্তর 
প্রশ্ন \ ১ \ নতুন ব্যবসায় বা শিল্পস্থাপন কী ধরনের কাজ?
উত্তর : নতুন ব্যবসায় বা শিল্পস্থাপন সৃজনশীল ও গঠনমূলক কাজ।
প্রশ্ন \ ২ \ ২০১২ সালে বিসিকের কততম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্যাপিত হয়?
উত্তর : ২০১২ সালে বিসিকের ৫৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্যাপিত হয়।
প্রশ্ন \ ৩ \ কোনটিকে ঊসঢ়ষড়ুসবহঃ এবহবৎধঃরহম গধপযরহব হিসেবে বিবেচনা করা হয়?
উত্তর : এসএমইকে ঊসঢ়ষড়ুসবহঃ এবহবৎধঃরহম গধপযরহব হিসেবে বিবেচনা করা হয়।
প্রশ্ন \ ৪ \ বাণিজ্যিক ব্যাংকের ঋণপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে কারা অগ্রাধিকার পায়?
উত্তর : বাণিজ্যিক ব্যাংকের ঋণপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে মহিলা উদ্যোক্তারা অগ্রাধিকার পায়।
প্রশ্ন \ ৫ \ বাণিজ্যিক ব্যাংকের ঋণসীমা কত?
উত্তর : বাণিজ্যিক ব্যাংকের ঋণসীমা সর্বনিম্ন ৫০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ১০ কোটি টাকা।
প্রশ্ন \ ৬ \ বিটাক প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য কী?
উত্তর : বিটাক প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য হলো শিল্পক্ষেত্রে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি।
প্রশ্ন \ ৭ \ বাংলাদেশের কয়টি জেলায় ব্র্যাকের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে?
উত্তর : বাংলাদেশের ৬৪টি জেলায় ব্র্যাকের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।
প্রশ্ন \ ৮ \ ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজসংঘ কোন জেলাকে কেন্দ্র করে কাজ শুরু করে?
উত্তর : ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজসংঘ বগুড়া জেলাকে কেন্দ্র করে কাজ শুরু করে।
প্রশ্ন \ ৯ \ শিল্পনগরী প্রতিষ্ঠা করে কোনটি?
উত্তর : শিল্পনগরী প্রতিষ্ঠা করে বিসিক।
প্রশ্ন \ ১০ \ ২০১২ সালের এপ্রিল পর্যন্ত সারা দেশে কয়টি শিল্পনগরী কার্যালয় স্থাপন করা হয়েছে?
উত্তর : ২০১২ সালের এপ্রিল পর্যন্ত সারা দেশে ৭৪টি শিল্পনগরী কার্যালয় স্থাপন করা হয়েছে।
প্রশ্ন \ ১১ \ ঘএঙ-এর পূর্ণরূপ কী?
উত্তর : ঘএঙ-এর পূর্ণরূপ হলো ঘড়হ-এড়াবৎহসবহঃ ঙৎমধহরুধঃরড়হ।
প্রশ্ন \ ১২ \ ভর্তুকি প্রদান কোন ধরনের সহায়তা?
উত্তর : ভর্তুকি প্রদান একটি সমর্থনমূলক সহায়তা।
প্রশ্ন \ ১৩ \ অনুপ্রেরণামূলক প্রশিক্ষণ কোন ধরনের সহায়তা?
উত্তর : অনুপ্রেরণামূলক প্রশিক্ষণ উদ্দীপনামূলক সহায়তা।
প্রশ্ন \ ১৪ \ সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান কত প্রকার?
উত্তর : সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান দুই প্রকার।
প্রশ্ন \ ১৫ \ ব্র্যাক কত সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল?
উত্তর : ব্র্যাক ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।
প্রশ্ন \ ১৬ \ ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা কে?
উত্তর : ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা হলেন স্যার ফজলে হোসেন আবেদ।
প্রশ্ন \ ১৭ \ ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজ সংঘ কত সালে প্রতিষ্ঠিত হয়?
উত্তর : ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজ সংঘ ১৯৮০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।
প্রশ্ন \ ১৮ \ বাংলাদেশের জাতীয় শিল্পনীতি কত সালের?
উত্তর : বাংলাদেশের জাতীয় শিল্পনীতি ২০১০ সালের।
প্রশ্ন \ ১৯ \ পার্বত্য অঞ্চলে শিল্প প্রতিষ্ঠানে ১০০% কর অবকাশ পাওয়া যায় কত বছর?
উত্তর : পার্বত্য অঞ্চলে শিল্প প্রতিষ্ঠানে ১০০% কর অবকাশ পাওয়া যায় প্রথম তিন বছর।
প্রশ্ন \ ২০ \ ঋণপ্রার্থী উদ্যোক্তাকে কত বছরের ব্যবসায়িক অভিজ্ঞতা থাকতে হবে?
উত্তর : ঋণপ্রার্থী উদ্যোক্তাকে ন্যূনতম ২ বছরের ব্যবসায়িক অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

 অনুধাবনমূলক প্রশ্ন ও উত্তর 
প্রশ্ন \ ১ \ ব্যাংক ঋণকে সমর্থনমূলক সহায়তা বলা হয় কেন?
উত্তর : সমর্থনমূলক সহায়তা হলো এমন সহায়তা যেটি ব্যবসায় উদ্যোগকে প্রতিষ্ঠিত করে তা সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করতে সহায়তা করে। ব্যাংক ঋণ একটি আর্থিক সহায়তা। এটি উদ্যোক্তাকে অবকাঠামোগত নির্মাণ, যন্ত্রপাতি ক্রয় ও স্থাপনসহ দৈনন্দিন কার্যক্রম পরিচালনা করতে সহায়তা করে। পুঁজি ছাড়া ব্যবসায় উদ্যোগ টিকে থাকে না। ব্যাংক ঋণ পুঁজির সংস্থান করে ব্যবসায় উদ্যোগকে টিকিয়ে রাখে বলে এটিকে সমর্থনমূলক সহায়তা বলা হয়।
প্রশ্ন \ ২ \ শিল্প নগরীর ধারণা দাও।
উত্তর : যন্ত্রের সাহায্যে রূপগত উপযোগ সৃষ্টি করাই হলো শিল্প। সমজাতীয় শিল্পসমূহ নিয়ে যে নগর গড়ে ওঠে তাকে শিল্প নগরী বলে। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সংস্থা সারা দেশে ৭৪টি শিল্প নগরী গড়ে তুলেছে। এ নগরীতে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের সকল সুবিধা নিশ্চিত করা হয়েছে। বিসিক কর্তৃক গঠিত এ নির্দিষ্ট শিল্প এলাকাকে শিল্প নগরী বলা হয়।
প্রশ্ন \ ৩ \ এসএমই-এর ধারণা দাও।
উত্তর : এসএমই-এর পূর্ণরূপ হলো স্মল এন্ড মিডিয়াম এন্টারপ্রাইজ অর্থাৎ ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প। যে ব্যবসায়ের আয়তন ক্ষুদ্র, পুঁজি কম এবং স্বল্প পরিসরে উৎপাদন বা সেবামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে তাকে এসএমই বলা হয়। মুদির দোকান থেকে শুরু করে পার্লার, বিস্কুট তৈরির কারখানা, বরফ তৈরির কারখানাসমূহ এসএমই-এর আওতাভুক্ত। বাংলাদেশ ব্যাংক এসএমই খাতকে ঋণ প্রদান করে।
প্রশ্ন \ ৪ \ বাণিজ্যিক ব্যাংকের কার্যক্রম ব্যাখ্যা কর।
উত্তর : যে ব্যাংক বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে জনসাধারণের অর্থ আমানত হিসেবে গচ্ছিত রাখে এবং সেখান থেকে স্বল্পমেয়াদে ঋণদান করে থাকে, তাকে বাণিজ্যিক ব্যাংক বলে। বাণিজ্যিক ব্যাংক প্রধানত স্বল্পমেয়াদি ঋণ নিয়ে কারবার করে। দেশের অর্থনীতিতে বাণিজ্যিক ব্যাংক আমানত গ্রহণের মাধ্যমে সঞ্চয় সংগ্রহ করে। এছাড়াও বাণিজ্যিক ব্যাংক ঋণদান বিনিময়ের মাধ্যম সৃষ্টি করা ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে সহায়তা করাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাজ সম্পাদন করে থাকে।
প্রশ্ন \ ৫ \ বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদের লক্ষ্য ব্যাখ্যা কর?
উত্তর : জাতীয় শিল্পোন্নয়নে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের লক্ষ্যে ১৯৭৩ সালে বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ প্রতিষ্ঠিত হয়। দেশে শিল্পকারখানা প্রতিষ্ঠা ও উন্নয়নের সাথে সম্পর্কযুক্ত বিজ্ঞান, শিল্প ও প্রযুক্তিবিষয়ক সমস্যাবলির ওপর গবেষণা করা, গবেষণায় উৎসাহিত করা ও গবেষণা পরিচালনায় পরামর্শ প্রদান করা এ পরিষদের অন্যতম উদ্দেশ্য।
প্রশ্ন \ ৬ \ যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের কার্যাবলি লিখ।
উত্তর : যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অধীনে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর যুবক ও যুব মহিলাদের আত্মকর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে নানা রকম কর্মকাণ্ড পরিচালনা

করে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অবস্থিত অনেকগুলো প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মাধ্যমে যুব অধিদপ্তর শিক্ষিত ও স্বল্প শিক্ষিত যুবকদের ক্ষুদ্র ব্যবসায়, কৃষি খামার, মৌমাছি পালন, গবাদিপশু পালন, কম্পিউটার শিক্ষা, অফিস ব্যবস্থাপনা ইত্যাদি ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে।
প্রশ্ন \ ৭ \ মহিলা অধিদপ্তর কীভাবে আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সহায়তা করে? ব্যাখ্যা কর।
উত্তর : গ্রামের ও শহরের মহিলাদের আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে মহিলা অধিদপ্তরের ভ‚মিকা গুরুত্বপূর্ণ। এ অধিদপ্তরটি গ্রামের ও শহরের বেকার মহিলাদের স্বল্পমূল্য নানা প্রশিক্ষণ যেমন : হস্ত শিল্প, বুনন শিল্প, বুটিকের কাজ, ঋণদান প্রভৃতি নিয়মিতই প্রদান করে আসছে। এর ফলে বেকার মহিলারা আত্মবিশ্বাসী হয়ে নিজেরাই নিজেদের কর্মসংস্থানে উদ্যোগী হচ্ছে। এভাবেই মহিলা অধিদপ্তর আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সহায়তা করছে।
প্রশ্ন \ ৮ \ বিটাক প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য ব্যাখ্যা কর।
উত্তর : দেশের শিল্পায়ন এবং অর্থনৈতিক পরিবর্তন প্রক্রিয়ায় বিশেষ করে শিল্পক্ষেত্রে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিটাক প্রতিষ্ঠিত হয়। বিটাক দেশের শিল্পায়ন ও শিল্পক্ষেত্রে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে যে কার্যাবলি সম্পাদন করে তার মধ্যে কারিগরি ও ব্যবস্থাপনার দক্ষতার জন্য প্রশিক্ষণদান, নতুন ডিজাইন ও যন্ত্রপাতির সাথে পরিচিত করা, যন্ত্রপাতি স্থাপনে উদ্ভূত সমস্যা নিরসনে উপদেশ প্রদান, বিভিন্ন প্রকাশনা, সেমিনার প্রদর্শনী, চলচ্চিত্র ইত্যাদির মাধ্যমে কারিগরি ও প্রযুক্তিগত জ্ঞানদান প্রভৃতি উলে­খযোগ্য।
প্রশ্ন \ ৯ \ প্রশিকা ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের কীভাবে সহায়তা করে?
উত্তর : বাংলাদেশের ক্ষুদ্র ব্যবসায় বিকাশে প্রশিকা ঋণ ও প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। কৃষিশিল্প, তাঁতশিল্প, সিল্ক উৎপাদন, গবাদিপশু পালন, মৌমাছি পালন, চারা উৎপাদনসহ অনেক নতুন পেশা তৈরি করছে প্রশিকা। প্রশিকা উদ্যোক্তাদের ঋণ ও প্রশিক্ষণ প্রদান করে থাকে। ফলে উদ্যোক্তাগণের সফলতার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়।
প্রশ্ন \ ১০ \ ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজসংঘের কার্যক্রম ব্যাখ্যা কর।
উত্তর : দরিদ্র ও বিত্তহীনদের সহায়তার উদ্দেশ্য নিয়েই ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজসংঘ গঠিত হয়। ঠেঙ্গামারা মহিলা সবুজ সংঘের কার্যক্রমগুলোর মধ্যে দরিদ্র ও বিত্তহীন মহিলাদের ঋণ সহায়তা প্রদান, প্রশিক্ষণ ও আত্মকর্মসংস্থানে সহায়তা করা উলে­খযোগ্য। এছাড়াও হাঁস-মুরগির খামার পরিচালনা, মাছ চাষ, নার্সারি পরিচালনা ও কুটিরশিল্প পরিচালনাসহ ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ঋণ কর্মসূচি পরিচালনা করে থাকে।

 

প্রিয় জনের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply