এইচএসসি ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং প্রথম অধ্যায় অর্থায়নের সূচনা সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

অধ্যায়-১: অর্থায়নের সূচনা

গুরুত্বপূর্ণ সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর

মমমপ্রশ্ন„১ মি. রাকিব একজন সফল ব্যবসায়ী। তিনি বিভিন্ন খাতে যেমন: টেক্সটাইল, ভোগ্যপণ্য, ফার্মাসিউটিক্যাল, স্টীল ইত্যাদিতে বিনিয়োগ করেন। গত বছর তিনি একটি সিমেন্ট ফ্যাক্টরি প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে চিন্তা করেছিলেন। ব্যবসা শুরু করার জন্য তার ৪০ কোটি টাকা প্রয়োজন ছিল। তার নিয়োগকৃত আর্থিক ব্যবস্থাপক তাঁকে দ্রুত বিনিয়োগ ফেরত পাওয়া এবং মুনাফা সর্বোচ্চকরণের ব্যাপারে নজর দেয়ার পরামর্শ দিলেন। কিন্তু মি. রাকিব আর্থিক ব্যবস্থাপকের পরামর্শ গ্রহণ করেননি। তার মূল লক্ষ্য ছিল সম্পদ সর্বোচ্চকরণ, মুনাফা সর্বোচ্চকরণ নয়। তিনি এ লক্ষ অর্জনে প্রয়োজনে কিছু মুনাফা ত্যাগ করতেও প্রস্তুত ছিলেন। [ঢা. বো. ১৭]
অ ক. ব্যবসায় অর্থায়ন কী? ১
অ খ. অর্থায়নের সামাজিক দায়বদ্ধতা বলতে কী বোঝায়? ২
অ গ. কোন নীতি অনুযায়ী মি. রাকিব নতুন ব্যবসায় শুরু করতে চেয়েছিলেন? ব্যাখ্যা করো। ৩
অ ঘ. মি. রাকিব কর্তৃক গৃহীত সম্পদ সর্বোচ্চকরণ সিদ্ধান্তটির সাথে তুমি কি একমত? উক্তির সাথে যুক্তি দেখাও। ৪
১ নং প্রশ্নের উত্তর অ
ক সুষ্ঠুভাবে ব্যবসা পরিচালনা করতে প্রয়োজনীয় অর্থ কোন উৎস থেকে সংগ্রহ করা হবে এবং কোন খাতে বিনিয়োগ করা হবে তার সিদ্ধান্তকে ব্যবসায় অর্থায়ন বলে।
খ সমাজের বিভিন্ন পক্ষের (যেমন- শেয়ারহোল্ডার, ভোক্তা, কর্মকর্তা-কর্মচারী, সরকার) প্রতি দায়িত্ব পালন করাকে অর্থায়নের সামাজিক দায়বদ্ধতা বলা হয়।
সমাজের দিকে দৃষ্টি রেখে প্রতিষ্ঠানে প্রয়োজনীয় দ্রব্য বা সেবার উৎপাদন এবং তা সঠিক মূল্যে বিতরণ করা উচিত। বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণের সময় সম্পদ সর্বাধিকরণের পাশাপাশি সামাজিক কল্যাণের বিষয়টি বিবেচনা করা গুরুত্বপূর্ণ। এরূপ দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের সুনাম বৃদ্ধি পায়।
গ পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়নের নীতি অনুযায়ী মি. রাকিব নতুন ব্যবসায় শুরু করতে চেয়েছিলেন।
পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়নের নীতি ব্যবহার করে ব্যবসায়ীরা একই সাথে একাধিক পণ্যের ব্যবসা করে থাকেন। এতে তাদের ব্যবসায়ের ঝুঁকি হ্রাস পায়।
উদ্দীপকে মি. রাকিব একজন সফল ব্যবসায়ী। তিনি বিভিন্ন খাতে যেমন: টেক্সটাইল, ভোগ্যপণ্য, ফার্মাসিউটিক্যাল, স্টিল ইত্যাদিতে বিনিয়োগ করেন। গত বছর তিনি একটি সিমেন্ট ফ্যাক্টরি প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে চিন্তা করেছিলেন। সিমেন্ট ফ্যাক্টরি প্রতিষ্ঠা করলে মি. রাকিবের পোর্টফোলিও সংখ্যা বৃদ্ধি পেত। অধিকসংখ্যক পোর্টফোলিও ঝুঁকির মাত্রা সর্বনিæকরণে সহায়ক। কারণ এর মাধ্যমে যেকোনো একটি বিনিয়োগে ক্ষতির সম্মুখীন হলেও তা অন্য বিনিয়োগের মুনাফার সাথে সমন্বয় করে নেয়া সম্ভব। এজন্যই উদ্দীপকে মি. রাকিব নতুন ব্যবসায় হিসেবে সিমেন্ট ফ্যাক্টরি প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন, যা পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়নের নীতির যথাযথ প্রয়োগ।
ঘ মি. রাকিব কর্তৃক গৃহীত সম্পদ সর্বোচ্চকরণ সিদ্ধান্তের সাথে আমি একমত।
সম্পদ সর্বোচ্চকরণ সিদ্ধান্তে প্রতিষ্ঠানের স্বল্পমেয়াদি মুনাফাকে গুরুত্ব না দিয়ে দীর্ঘমেয়াদি সুবিধা লাভকে গুরুত্ব দেয়া হয়। প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের মূল্যবৃদ্ধির মাধ্যমে সম্পদ সর্বোচ্চকরণ নিশ্চিত হয়।
উদ্দীপকে সফল ব্যবসায়ী মি. রাকিব টেক্সটাইল, ভোগ্যপণ্য, ফার্মাসিউটিক্যাল ও স্টীল ব্যবসায়ের সাথে জড়িত। তিনি একটি সিমেন্ট ফ্যাক্টরি প্রতিষ্ঠার কথা চিন্তা করছিলেন। ব্যবসায় শুরু করতে তার ৪০ কোটি টাকা প্রয়োজন। তার নিয়োগকৃত আর্থিক ব্যবস্থাপক তাকে দ্রুত বিনিয়োগ ফেরত পাওয়া ও মুনাফা সর্বোচ্চকরণের পরামর্শ দিলেন। তিনি উক্ত পরামর্শ বর্জন করে সম্পদ সর্বোচ্চকরণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।
মুনাফা সর্বোচ্চকরণের মাধ্যমে ব্যবসায়ের স্বল্পমেয়াদি লক্ষ্য অর্জিত হলেও দীর্ঘমেয়াদি লক্ষ্য অর্জন বাধাগ্রস্ত হয়। অন্যদিকে সম্পদ সর্বোচ্চরণের ফলে ব্যবসায়ের দীর্ঘমেয়াদি লক্ষ্য বাস্তবায়িত হয়। একই সাথে ব্যবসায়িক ও আর্থিক ঝুঁকি হ্রাস পায়। কারণ এটি অর্থের সময়মূল্য, বিনিয়োগ ঝুঁকি ও নগদ প্রবাহকে বিবেচনা করে, যা মুনাফা সর্বোচ্চকরণে গণ্য করা হয় না। এজন্যই উদ্দীপকে মি. রাকিব সম্পদ সর্বোচ্চকরণের সিদ্ধান্তটি বেছে নিয়েছেন।

মমমপ্রশ্ন„২ জনাব আলী তার সঞ্চিত ১০ লক্ষ টাকা ব্যাংকে জমা না রেখে ঝুঁকিমুক্ত কোনো বিনিয়োগ প্রকল্পে বিনিয়োগ করতে চান এবং নির্দিষ্ট হারে নিশ্চিত মুনাফা আশা করেন। কিন্তু জনাব হক অধিক মুনাফার আশায় অধিক ঝুঁকি নিতেও প্রস্তুত। [রা. বো. ১৭]
অ ক. তারল্য কী? ১
অ খ. হস্তান্তরযোগ্য ঝুঁকি বলতে কী বোঝ? ২
অ গ. জনাব আলী যদি আর্থিক বাজারের সিকিউরিটিজে বিনিয়োগ করতে চান, তবে তিনি কোন ধরনের সিকিউরিটিজ ক্রয় করবেন তা ব্যাখ্যা করো। ৩
অ ঘ. উদ্দীপকের জনাব হক-এর গৃহীত বিনিয়োগ সিদ্ধান্তটি অর্থায়নের কোন নীতির অন্তর্ভুক্ত? জনাব আলী ও জনাব হক-এর বিনিয়োগ সিদ্ধান্তের তুলনামূলক চিত্র বিশ্লেষণ করো। ৪
২ নং প্রশ্নের উত্তর অ
ক কোনো দ্রব্য বা সম্পদ বিক্রয়ের মাধ্যমে দ্রুত নগদ অর্থে রূপান্তরযোগ্যতাকে তারল্য বলে ।
খ মোট ঝুঁকি থেকে অপরিহারযোগ্য ঝুঁকি বাদ দেয়ার পর যে ধরনের ঝুঁকি অবশিষ্ট থাকে তাকে হস্তান্তরযোগ্য ঝুঁকি বলে।
হস্তান্তরযোগ্য ঝুঁকি পরিহারযোগ্য। সাধারণত পোর্টফোলিও গঠনের মাধ্যমে কোম্পানি ঝুঁকি পরিহার করা যায়। বিশেষ কোনো প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানির সাথে এ ধরনের ঝুঁকি সম্পর্কিত।
সহায়ক তথ্য
কোম্পানি ঝুঁকি : কোম্পানির সাথে সম্পর্কিত ঝুঁকিকে কোম্পানি ঝুঁকি বলে। ব্যবসায়িক ঝুঁকি, তারল্য ঝুঁকি প্রভৃতি উৎস থেকে কোম্পানি ঝুঁকি সংঘটিত হতে পারে।
গ উদ্দীপকের জনাব আলী যদি আর্থিক বাজারের সিকিউরিটিজে বিনিয়োগ করতে চান, তবে তিনি ট্রেজারি বিল ক্রয় করবেন।
মুদ্রা বাজারের অন্যতম জনপ্রিয় হাতিয়ার হচ্ছে ট্রেজারি বিল। এটি সরকারের ট্রেজারি বিভাগ হতে ইস্যু করা হয়। আর্থিক বাজারে ঝুঁকিমুক্ত সিকিউরিটিজ বলতে ট্রেজারি বিলকেই বোঝানো হয়।
উদ্দীপকে জনাব আলীর নিকট ১০ লক্ষ টাকা সঞ্চিত আছে। তিনি তার এই সঞ্চিত টাকা ব্যাংকে জমা রাখতে আগ্রহী নন। বরং তিনি কোনো ঝুঁকিমুক্ত বিনিয়োগ প্রকল্পে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী। ট্রেজারি বিলের দেউলিয়াত্ব ঝুঁকি না থাকায় এটিকে ঝুঁকিমুক্ত সিকিউরিটিজ বলা হয়। যেহেতু জনাব আলী ঝুঁকিমুক্ত কোনো বিনিয়োগ প্রকল্পে বিনিয়োগ করতে চান সেহেতু তার জন্য ট্রেজারি বিলে বিনিয়োগ করাই উত্তম।
সহায়ক তথ্য
দেউলিয়াত্ব ঝুঁকি: আর্থিকভাবে সর্বস্বান্ত হওয়ার বা দায় পরিশোধে অপরাগতার ঝুঁকিই হলো দেউলিয়াত্ব ঝুঁকি।
ঘ উদ্দীপকে জনাব হক-এর গৃহীত বিনিয়োগ সিদ্ধান্তটি অর্থায়নের ঝুঁকি-মুনাফা নীতির অন্তর্ভুক্ত।
বিনিয়োগ হতে প্রাপ্ত নগদ সুবিধা হচ্ছে মুনাফা। আর বিনিয়োগ হতে প্রত্যাশিত মুনাফা অপেক্ষা প্রকৃত মুনাফা কম হওয়ার সম্ভাবনাই হচ্ছে ঝুঁকি। ঝুঁকি-মুনাফা নীতি অনুসারে বিনিয়োগ যত ঝুঁকিপূর্ণ হবে প্রত্যাশিত মুনাফার হার তত বেশি হবে।
উদ্দীপকের জনাব হক একজন অধিক মুনাফা প্রত্যাশী বিনিয়োগকারী। অধিক ঝুঁকি গ্রহণের মাধ্যমে হলেও তিনি অধিক মুনাফা অর্জন করতে চান। তার এই সিদ্ধান্তটি ঝুঁকি-মুনাফা নীতি অনুসরণ করছে। সাধারণত ঝুঁকি ও মুনাফার মধ্যে সমমুখী সম্পর্ক বিদ্যমান। তাই জনাব হক যত বেশি ঝুঁকিযুক্ত প্রকল্পে বিনিয়োগ করবেন, তিনি তত বেশি মুনাফা প্রত্যাশা করবেন।
উদ্দীপকের জনাব আলী ঝুঁকিমুক্ত প্রকল্পে বিনিয়োগে উৎসাহী। অন্যদিকে, জনাব হক অধিক মুনাফার আশায় ঝুঁকিযুক্ত প্রকল্পে বিনিয়োগে আগ্রহী। জনাব আলী অধিক মুনাফা প্রত্যাশী নন বরং নির্দিষ্ট হারে নিশ্চিত মুনাফা আশা করছেন। যেহেতু জনাব আলী ঝুঁকিমুক্ত প্রকল্পে বিনিয়োগ করতে চান সেহেতু তার মুনাফাও কম হবে। অন্যদিকে, জনাব হক যেহেতু অধিক ঝুঁকিপূর্ণ প্রকল্পে বিনিয়োগ করবেন তাই তার মুনাফা অর্জনের সম্ভাবনা বেশি হবে। সুতরাং বলা যায়, তুলনামূলক ঝুঁকি বিবেচনায় জনাব আলী অপেক্ষা জনাব হক অধিক মুনাফা প্রত্যাশী বিনিয়োগকারী, তাই তিনি বেশি ঝুঁকি গ্রহণ করেছেন।

মমমপ্রশ্ন„৩ জেনিম কোং লি. আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন একটি তৈরি পোশাক রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটি কর্মীদের ভবিষ্যৎ তহবিল, চিকিৎসা সুবিধা, সন্তানদের শিক্ষার ব্যবস্থাসহ নানা ধরনের সেবা প্রদান করে থাকে। এছাড়াও প্রতিষ্ঠানটি তার স্থায়ী সম্পদের অবচয় হিসাব যথোপযুক্তভাবে সংরক্ষণ করে। পক্ষান্তরে হানিম কোং লি. একটি বিখ্যাত ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটির কর্মীদের সুযোগ-সুবিধার দিকে তেমন মনোযোগ নেই। তবে প্রতি বছর শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ সঠিকভাবে প্রদান করে থাকে। উভয় কোম্পানি নতুন প্রকল্প চিহ্নিত করে ব্যবসা সম্প্রসারণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এবং মূলধনের চাহিদার সৃষ্টি হচ্ছে। [রা. বো. ১৭]
অ ক. অবচয় কী? ১
অ খ. ট্রেজারি বন্ডে কেন কোনো ঝুঁকি নেই? ব্যাখ্যা করো। ২
অ গ. উদ্দীপকের হানিম কোং লি. তার নতুন প্রকল্পের জন্য মূলধন কীভাবে সংগ্রহ করবে তা ব্যাখ্যা করো। ৩
অ ঘ. দু’টি কোম্পানির মধ্যে কার মূলধন সংগ্রহ করা সুবিধাজনক এবং সেই সাথে ব্যয় কম হবে বলে তুমি মনে করো? উদ্দীপকের আলোকে তা ব্যাখ্যা করো। ৪
৩ নং প্রশ্নের উত্তর অ
ক সম্পত্তির ব্যবহারজনিত ক্ষতিকে অবচয় বলা হয়।
খ ট্রেজারি বন্ডে দেউলিয়াত্বের ঝুঁকি না থাকায় একে ঝুঁকিমুক্ত সিকিউরিটিজ বলা হয়।
ট্রেজারি বন্ড সরকার কর্তৃক ইস্যু করা হয়। এক্ষেত্রে একটি দেশের সরকারের কখনোই দেউলিয়া হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তাই বিনিয়োগকারীদের অর্থ প্রাপ্তির অনিশ্চয়তা সংক্রান্ত কোনো ঝুঁকি থাকে না। তাই বলা হয়, ট্রেজারি বন্ডে বিনিয়োগে কোনো ঝুঁকি নেই।
গ উদ্দীপকের হানিম কোং লি. তার নতুন প্রকল্পের জন্য সাধারণ শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে মূলধন সংগ্রহ করবে।
সাধারণ শেয়ারের মালিকগণ অধিকার, দায়িত্ব ও কর্তব্যের বিভিন্ন দিক বিচারে অধিক মর্যাদা ও সুবিধা ভোগ করে। কিন্তু লভ্যাংশ বণ্টন ও কোম্পানির বিলোপের সময় শেয়ার মালিকগণ মূলধন প্রত্যাবর্তনে অগ্রাধিকার পায় না।
উদ্দীপকের হানিম কোং লি. একটি বিখ্যাত ঔষধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটি প্রতিবছর শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ সঠিকভাবে প্রদান করে থাকে। ব্যবসায় সম্প্রসারণের জন্য প্রতিষ্ঠানটির মূলধন প্রয়োজন। নিয়মিত লভ্যাংশ প্রদানের কারণে বাজারে প্রতিষ্ঠানটির সুনাম রয়েছে এবং পাশাপাশি ব্যবসায় পরচালনায়ও খ্যাতি অর্জন করেছে। তাই প্রতিষ্ঠানটির প্রতি জনগণের ইতিবাচক মনোভাব প্রতিষ্ঠানটিকে সাধারণ শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে মূলধন সংগ্রহকে সহজ করবে। তাই প্রতিষ্ঠানটির সাধারণ শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে মূলধন সংগ্রহ করতে পারবে।
ঘ দু’টি কোম্পানির মধ্যে জেনিম কোং লি. সামাজিক দায়বদ্ধতা পূরণে সচেষ্ট। তাই এই প্রতিষ্ঠানের পক্ষে মূলধন সংগ্রহ করা সুবিধাজনক হবে।
সামাজিক দায়বদ্ধতা হলো ব্যবসায়ের স্বার্থসংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের স্বার্থরক্ষা করে প্রতিষ্ঠানের সম্পদ সর্বাধিকরণের চেষ্টা। এখানে প্রতিষ্ঠানের স্বার্থসংশ্লিষ্ট পক্ষসমূহ হলোÑ শেয়ার মালিক, ব্যবস্থাপক, ভোক্তা, কাঁচামাল সরবরাহকারী, কর্মকর্তা কর্মচারী, সরকার ও ঋণ দাতা।
জেনিম কোং লি. আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন একটি তৈরি পোশাক রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটি কর্মীদের ভবিষ্যৎ তহবিল, চিকিৎসা সুবিধা, সন্তানদের শিক্ষার ব্যবস্থা করে সামাজিক দায়বদ্ধতা পূরণের চেষ্টা করছে। অন্যদিকে হানিম কোং লি. ঔষধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটি তার কর্মীদের প্রতি সামাজিক দায়বদ্ধতা পূরণের ব্যাপারে উদাসীন।
উদ্দীপকের জেনিম কোং লি. প্রতিষ্ঠানের সকল স্বার্থসংশ্লিষ্ট পক্ষের স্বার্থরক্ষায় সচেষ্ট, যা বাজারে প্রতিষ্ঠানটির সুনাম বৃদ্ধি করেছে। অন্যদিকে, হানিম কোং লি.-এর সামাজিক দায়বদ্ধতা পূরণে উদাসীনতা বাজারে প্রতিষ্ঠানটির সুনাম ক্ষুণœ করছে। মূলধন সংগ্রহের ক্ষেত্রে সুনাম একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। জেনিম কোং লি. এর সুনাম বেশি হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটি মানুষের আস্থা খুব সহজেই অর্জন করতে পারবে। ফলে এই প্রতিষ্ঠানের জন্য মূলধন সংগ্রহ করা সহজতর হবে। তাছাড়াও জেনিম কোং লি. স্থায়ী সম্পদের অবচয় যথোপযুক্তভাবে সংরক্ষণ করে। এই অবচয় সংরক্ষিত তহবিলকে বৃদ্ধি করে যা প্রয়োজনে স্বল্প ব্যয়ে মূলধন হিসেবে ব্যবহার করতে পারবে। অর্থাৎ সকল দিক বিবেচনায় দু’টি কোম্পানির মধ্যে জেনিম কোং লি.-এর মূলধন সংগ্রহ করা সুবিধাজনক হবে এবং সেই সাথে ব্যয় কম হবে।

মমমপ্রশ্ন„৪ অঞ লিমিটেড একটি চামড়া প্রক্রিয়াজাতকারী প্রতিষ্ঠান। এ কাজে ব্যবহৃত ক্যামিক্যাল এবং বর্জসমূহ বুড়িগঙ্গা নদীতে গিয়ে মিশে। প্রতিষ্ঠানটি নদীর পানি, মাটি ও পরিবেশের কথা বিবেচনা করে ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট স্থাপনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। এজন্য তাদের ২৫ লক্ষ টাকা প্রয়োজন। প্রতিষ্ঠানটি মূলধন সংগ্রহের জন্য এমন উৎসের কথা বিবেচনা করছে যেখান থেকে কর সুবিধা পাওয়া যাবে এবং মূলধন সরবরাহকারীগণ কোম্পানির প্রকৃত মালিক হতে পারবে না। [দি. বো. ১৭]
অ ক. অর্থায়ন কী? ১
অ খ. “মুনাফা ও তারল্যের মধ্যে সমমুখী সম্পর্ক বিদ্যমান” তুমি কি একমত? ব্যাখ্যা করো। ২
অ গ. উদ্দীপকে উলি­খিত অঞ লিমিটেড কোন ধরনের মূলধন সংগ্রহের কথা ভাবছে? ৩
অ ঘ. উদ্দীপকে উলি­খিত প্রকল্পের বিনিয়োগটি অর্থায়নের কোন ধারণার সাথে সম্পর্কযুক্ত এবং কেন? মূল্যায়ন করো। ৪
৪ নং প্রশ্নের উত্তর অ
ক অর্থায়ন হলো একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ, বিনিয়োগ এবং নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত কার্যাবলি সম্পন্ন করা হয়।
খ মুনাফা ও তারল্যের মধ্যে সমমুখী সম্পর্ক নয় বরং বিপরীতমুখী সম্পর্ক বিদ্যমান ।
একটি প্রতিষ্ঠানের দৈনন্দিন খরচ নির্বাহের জন্য তারল্য সংরক্ষণ করতে হয়। এতে প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগের পরিমাণ কমে যায়। অর্থাৎ তারল্য বাড়লে মুনাফা কমবে। বিপরীতভাবে তারল্য কম রাখলে বিনিয়োগের পরিমাণ বাড়বে। ফলে মুনাফাও বাড়বে। অর্থাৎ তারল্য কমলে মুনাফাও কমবে। সুতরাং ‘মুনাফা ও তারল্যের মধ্যে সমমুখী সম্পর্ক বিদ্যমান’Ñ এ বক্তব্যের সাথে আমি একমত নই।
গ উদ্দীপকে উলি­খিত অঞ লিমিটেড ঋণ মূলধন সংগ্রহের কথা ভাবছে।
ঋণ মূলধন বলতে অন্য কোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা বিনিয়োগকারী হতে ঋণ গ্রহণ করে মূলধন সংগ্রহ করাকে বোঝায়। ঋণ মূলধনের বিপরীতে নির্দিষ্ট হারে সুদ প্রদান করতে হয়।
উদ্দীপকে অঞ লিমিটেড একটি চামড়া প্রক্রিয়াজাতকারী প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটি পরিবেশের কথা বিবেচনা করে ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়। এজন্য প্রয়োজনীয় ২৫ লক্ষ টাকা মূলধন সংগ্রহের জন্য প্রতিষ্ঠানটি একটি উৎসের কথা ভাবছে। এরূপ উৎস হতে মূলধন সংগ্রহ করলে কর সুবিধা পাওয়া যাবে কিন্তু মূলধন সরবরাহকারীরা কোম্পানির প্রকৃত মালিক হতে পারবে না। ঋণ মূলধন সরবরাহকারীরা কখনোই প্রতিষ্ঠানের মালিক হতে পারবে না। এখানেও ঋণ মূলধন উৎসের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটি কর সুবিধা পাবে। সুতরাং প্রতিষ্ঠানটি ঋণ মূলধন উৎসটি হতেই মূলধন সংগ্রহ করবে।
ঘ উদ্দীপকে উলি­খিত প্রকল্পের বিনিয়োগটি অর্থায়নের সামাজিক দায়বদ্ধতা ধারণার সাথে সম্পর্কিত।
সামাজিক দায়বদ্ধতা বলতে সমাজের প্রতি প্রতিষ্ঠানের যে দায়িত্ব তাকে বোঝায়। সমাজের সকল পক্ষের প্রতি দায়িত্ব পালনই অর্থায়নের সামাজিক দায়িত্ব হিসেবে বিবেচিত।
উদ্দীপকে অঞ লিমিটেড একটি চামড়া প্রক্রিয়াজাতকারী প্রতিষ্ঠান। পরিবেশ দূষণ রক্ষার্থে প্রতিষ্ঠানটি ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়। এজন্য প্রতিষ্ঠানটি ২৫ লক্ষ টাকা ঋণ মূলধন উৎস হতে সংগ্রহ করে।
পরিবেশকে দূষণমুক্ত রাখার লক্ষ্যে অঞ লিমিটেড এই পদক্ষেপ গ্রহণ করে। অর্থাৎ প্রতিষ্ঠানটি মুনাফা অর্জনের জন্য নয়, সামাজিক কল্যাণ সাধনের উদ্দেশ্যে অর্থায়ন করবে। তাই বলা যায়, উলি­খিত প্রকল্পের বিনিয়োগটি অর্থায়নের সামাজিক দায়বদ্ধতা ধারণার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

মমমপ্রশ্ন৫ একতা লি. বিগত কয়েক বছর যাবৎ তাদের ব্যবসায় সুনামের সাথে পরিচালনা করছে। প্রতিষ্ঠানটি তাদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলে। গত বছর প্রতিষ্ঠানটি শ্রেষ্ঠ করদাতা নির্বাচিত হয়। এছাড়াও একতা লি. তাদের শ্রমিকদের বিনামূল্যে চিকিৎসার জন্য একটি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেছে। শ্রমিক সন্তুষ্টির মাধ্যমে একতা লি. এর উৎপাদন ও মুনাফা বৃদ্ধি পায়। যার মাধ্যমে কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি লভ্যাংশের পরিমাণ বৃদ্ধি করে। এর ফলে কোম্পানির শেয়ারের মূল্য পূর্বের তুলনায় বৃদ্ধি পেয়েছে। [কু. বো. ১৭]
ক. অর্থায়ন কাকে বলে? ১
খ. তারল্য ও মুনাফা নীতি ব্যাখ্যা করো। ২
গ. একতা লি. অর্থায়নের কোন লক্ষ্য অর্জন করতে পেরেছে? ব্যাখ্যা করো। ৩
ঘ. ‘একতা লি. হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করে সামাজিক দায়বদ্ধতা পালন করেছে।’ তুমি কি একমত? যুক্তিসহ মতামত দাও। ৪
৫ নং প্রশ্নের উত্তর অ
মক প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয় অর্থের পরিকল্পনা, অর্থসংস্থান, ব্যবহার এবং নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কিত সকল কার্যাবলিকে অর্থায়ন বলে।
মখ ব্যবসায়ে তারল্য সংরক্ষণ ও মুনাফা অর্জন সংক্রান্ত নীতিকে তারল্য ও মুনাফার নীতি বলে। তারল্য ও মুনাফার মধ্যে ঋণাÍক বা বিপরীতমুখী সম্পর্ক বিদ্যমান। অর্থাৎ তারল্য হ্রাস পেলে মুনাফা বৃদ্ধি পায় এবং তারল্য বৃদ্ধি পেলে মুনাফা হ্রাস পায়।
সাধারণত ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে নগদ অর্থ বা তারল্য যত বেশি থাকবে বিনিয়োগের পরিমাণ তত কম হবে। বিনিয়োগ কম হলে বিনিয়োগ হতে অর্জিত মুনাফাও হ্রাস কম হবে। অন্যদিকে, তারল্য কম হলে বিনিয়োগ বাড়বে এবং মুনাফাও বৃদ্ধি পাবে।
মগ একতা লি. অর্থায়নের সম্পদ সর্বাধিকরণের লক্ষ্য অর্জন করতে পেরেছে।
সম্পদ সর্বাধিকরণ বলতে শেয়ার মূল্যের বৃদ্ধিকরণ বা সর্বাধিকরণকে বোঝায়। শেয়ারহোল্ডারদের সম্পদ সর্বাধিকরণ করা ফার্ম বা কোম্পানির একটি উলে­খযোগ্য লক্ষ্য।
উদ্দীপকের একতা লি. বিগত কয়েক বছর যাবৎ সুনামের সাথে তাদের ব্যবসায় পরিচালনা করছে। শ্রমিক সন্তুষ্টির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি উৎপাদন ও মুনাফা বৃদ্ধিতে সফল হয়েছে। এর ফলে প্রতিষ্ঠানের শেয়ার প্রতি লভ্যাংশের পরিমাণ এবং শেয়ারের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। সাধারণত শেয়ারের মূল্য দ্বারা ফার্মের মালিকদের সম্পদ পরিমাপ করা হয়। যেহেতু একতা লি. এর শেয়ারের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে সেহেতু ফার্মের মালিকদের সম্পদও বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই বলা যায়, শেয়ারের মূল্য বৃদ্ধির মাধ্যমে একতা লি. সম্পদ সর্বাধিকরণের লক্ষ্য অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।
মঘ একতা লি. হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সামাজিক দায়বদ্ধতা পালন করেছে Ñ বক্তব্যটি যথার্থ।
অর্থায়নের সামাজিক দায়বদ্ধতা হলো প্রতিষ্ঠানের স্বার্থসংশ্লিষ্ট পক্ষের স্বার্থরক্ষা করে প্রতিষ্ঠানের সম্পদ সর্বাধিকরণ। এই স্বার্থসংশ্লিষ্ট পক্ষসমূহ হলোÑ শেয়ারমালিক, ব্যবস্থাপক, ভোক্তা, কাঁচামাল সরবরাহকারী, কর্মকর্তা-কর্মচারি, সরকার, পাওনাদার ইত্যাদি।
উদ্দীপকের একতা লি. একটি সফল ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটি সুনামের সাথে ব্যবসায় পরিচালনা করছে। প্রতিষ্ঠানটি তাদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলে। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটি শ্রমিকদেরকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দেয়ার জন্য হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেছে।
একতা লি.-এর গুরুত্বপূর্ণ স্বার্থসংশ্লিষ্ট পক্ষ হচ্ছে শ্রমিক-কর্মচারী। এই পক্ষের স্বার্থরক্ষা করা প্রতিষ্ঠানের সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ। প্রতিষ্ঠানটি বিনামূল্যে চিকিৎসার জন্য হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করে শ্রমিক পক্ষের স্বার্থরক্ষায় সচেষ্ট। ফলে কোম্পানির পক্ষে শ্রমিকদের সন্তুষ্টি অর্জন করা সম্ভব হয়েছে। অর্থাৎ একতা লি. শ্রমিক পক্ষের স্বার্থরক্ষায় সক্ষম হয়েছে, যা সামাজিক দায়বদ্ধতার একটি অংশ। তাই বলা যায়, একতা লি. হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সামাজিক দায়বদ্ধতা পালন করেছে বলে আমি মনে করি।

মমমপ্রশ্ন৬ জনাব কুয়াশা ও জনাব শিশির দু’জন পাইকারী ব্যবসায়ী। জনাব কুয়াশা শুধু কাপড়ের ব্যবসায় করেন। অন্যদিকে জনাব শিশির কাপড়ের পাশাপাশি জুতার ব্যবসায় করেন। কেননা শিশির মনে করেন কাপড়ের ব্যবসায় যদি কোনো ক্ষতি হয়, জুতার ব্যবসা থেকে মুনাফা অর্জন করা যাবে। জনাব কুয়াশা অধিক মুনাফার আশায় সর্বদা নগদ অর্থ হাতে কম রেখে অধিক বিনিয়োগ করেন। [চ. বো. ১৭]
ক. ব্যবসায় অর্থায়ন কী? ১
খ. তারল্য বলতে কি বোঝায়? ২
গ. জনাব শিশির অর্থায়নের কোন নীতি অনুসরণ করেছেন? উদ্দীপকের আলোকে ব্যাখ্যা করো। ৩
ঘ. জনাব কুয়াশার অধিক অর্থ বিনিয়োগ তার ব্যবসায় কী প্রভাব ফেলতে পারে? বিশ্লেষণ করো। ৪
৬ নং প্রশ্নের উত্তর অ
মক ব্যবসায় অর্থায়ন বলতে একটি ব্যবসা সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করতে কী পরিমাণ মূলধনের প্রয়োজন, কোন কোন উৎস হতে তা সংগ্রহ করা হবে এবং কোন কোন খাতে তা বিনিয়োগ করা হবে তাকে বুঝায়।
মখ তারল্য বলতে যে কোন দ্রব্য, সম্পদ বা সিকিউরিটি যুক্তিসঙ্গত মূল্যে বিক্রি করে নগদ অর্থ পাওয়াকে বোঝায়।
যথাযথ তারল্য বজায় রাখা একটি প্রতিষ্ঠানের সফলতার অন্যতম শর্ত। তারল্য বেশি হলে প্রতিষ্ঠানের মুনাফা হ্রাস পায়। আবার তারল্য কম থাকলে মুনাফা বৃদ্ধি পেলেও প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম ব্যাহত হয়।
মগ জনাব শিশির অর্থায়নের পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়ণের নীতি অনুসরণ করেছেন।
পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়ণের নীতি বলতে বোঝায় ব্যবসায়ী বা বিনিয়োগকারী তার সকল অর্থ একটি সম্পদে বিনিয়োগ না করে একাধিক সম্পদে বিনিয়োগ করবে। এতে ঝুঁকি হ্রাস পাবে। একাধিক সম্পদে বিনিয়োগ করার ফলে ঝুঁকিও বণ্টিত হয়। ফলে শুধু একটি সম্পদের ঝুঁকি অন্য সম্পদ বা বিনিয়োগের আয়কে প্রভাবিত করবে না।
জনাব শিশির একইসাথে কাপড় ও জুতার ব্যবসায়ী। তিনি মনে করেন যে, যদি কাপড়ের ব্যবসায়ে ক্ষতি হয় তবে জুতার ব্যবসা হতে প্রাপ্ত মুনাফা এই ক্ষতিকে সমন্বিত করবে। একইভাবে জুতার ব্যবসায় ক্ষতি হলে তা কাপড়ের ব্যবসায়ের মুনাফা হতে পুষিয়ে নেয়া যাবে। অর্থাৎ বৈশিষ্ট্যের বিচারে বলা যায় , শিশির পোর্টফোলিও বৈচিত্রায়ণের নীতি অনুসরণ করেছেন।
মঘ জনাব কুয়াশার অধিক অর্থ বিনিয়োগ ব্যবসায়ে তারল্য সংকট সৃষ্টি করতে পারে।
তারল্য ও মুনাফা নীতি অনুসারে ব্যবসায়ের প্রতিটি আর্থিক সিদ্ধান্ত এমনভাবে গ্রহণ করা উচিত যাতে তারল্য ও মুনাফা উভয়ই বজায় থাকে। এই দুটি বিষয়ের যে কোনো একটিতে বেশি গুরুত্বারোপ করলে অপরটি প্রভাবিত হবে।
উদ্দীপকের জনাব কুয়াশা একজন পাইকারী ব্যবসায়ী। তিনি অধিক মুনাফার আশায় কম অর্থ হাতে রাখেন এবং অধিক অর্থ বিনিয়োগ করেন। অর্থাৎ তিনি মুনাফার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন।
জনাব কুয়াশার বিবেচনায় অধিক মুনাফা অর্জন জরুরি। তাই তিনি প্রতিষ্ঠানের অধিক পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করেন। এতে যদিও তিনি অধিক হারে মুনাফা অর্জন করতে পারবেন কিন্তু তার প্রতিষ্ঠানের তারল্য অর্থাৎ নগদ অর্থ কমে যাবে। এর ফলে নগদ অর্থের অভাবে তার প্রতিষ্ঠানে তারল্য সংকট সৃষ্টি হবে। এই তারল্য সংকট প্রতিষ্ঠানের স্বাভাবিক কার্যক্রমকে ব্যাহত করবে।

মমমপ্রশ্ন৭ সাঈদ হাসান তার নিজ এলাকায় একটি দাতব্য চিকিৎসা কেন্দ্র গড়ে তোলেন। সমাজের বিভিন্ন ধনী ব্যক্তিদের সহযোগিতায় সেবা কেন্দ্রটি পরিচালিত হয়ে আসছে। সেবা কেন্দ্রটি যাতে আরও ভালোভাবে পরিচালিত হতে পারে তার জন্য বিভিন্ন বিদেশি সংস্থার কাছে তিনি সহযোগিতা চান। উক্ত প্রতিষ্ঠানের সম্পূর্ণ আয় মানব সেবায় ব্যয় করা হয়। [সি. বো. ১৭]
ক. তহবিলের বণ্টন কী? ১
খ. ‘সম্পদ সর্বাধিকরণ কোম্পানির মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত’  ব্যাখ্যা করো। ২
গ. উদ্দীপকে উলি­খিত সেবা প্রতিষ্ঠানে অর্থায়নের ফলে সমাজে কীরূপ প্রভাব পড়ে? ব্যাখ্যা করো। ৩
ঘ. উদ্দীপকে উলি­খিত আয় মানব সেবায় খরচ করা অর্থায়নের সামাজিক দায়বদ্ধতার আলোকে বিশ্লেষণ করো। ৪
৭ নং প্রশ্নের উত্তর অ
মক তহবিলের বণ্টন বলতে প্রতিষ্ঠানের অর্জিত মুনাফা থেকে শেয়ার মালিকদের লভ্যাংশ, ঋণদাতাদের সুদ ও সরকারকে কর প্রদান কার্যক্রমকে বোঝায়।
মখ শেয়ারের মূল্য বৃদ্ধিকরণই হলো সম্পদ সর্বাধিকরণ। শেয়ারের বর্তমান বাজারমূল্য দ্বারা কোম্পানির মালিকদের সম্পদ পরিমাপ করা হয়।
সাধারণত শেয়ারের মূল্য তিনটি বিষয়ের ওপর নির্ভরশীল; যথা: (ক) মুনাফা অর্জনের সময়, (খ) নগদ প্রবাহের পরিমাণ এবং (গ) ঝুঁকি। এই তিনটি বিষয় সঠিকভাবে সম্পদ পরিমাপে সাহায্য করে, যা মুনাফা সর্বাধিকরণের ক্ষেত্রে বিবেচনা করা হয় না। তাই প্রতিটি কোম্পানির মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত সম্পদ সর্বাধিকরণ।
মগ উদ্দীপকে উলি­খিত সেবা প্রতিষ্ঠানের অর্থায়ন প্রক্রিয়া হলো অব্যবসায়ী অর্থায়ন, যা সমাজের কল্যাণে গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা রাখে।
অব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের (হাসপাতাল, এতিমখানা) তহবিল সংগ্রহ ও এর সুষ্ঠু ব্যবহার করার প্রক্রিয়াই হলো অব্যবসায়ী অর্থায়ন।
উদ্দীপকে সাঈদ হাসান একটি দাতব্য চিকিৎসা কেন্দ্র গড়েছেন। এই প্রতিষ্ঠানটি বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে। সমাজের বিভিন্ন ধনী ব্যক্তিদের অনুদানে এটি পরিচালিত হয়। তাছাড়াও বিভিন্ন বিদেশি সংস্থাও এই প্রতিষ্ঠানটির জন্য আর্থিক সহায়তা প্রদান করে থাকে। এ সকল অর্থ সংগ্রহ ও সুষ্ঠুভাবে তা চিকিৎসা সেবা প্রদানে ব্যয় হয়, যা একটি অব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের অর্থায়নের উৎস। আর এই অব্যবসায়ী অর্থায়নের ফলে সমাজে মানুষের কল্যাণ সাধিত হচ্ছে। এভাবেই উক্ত সেবা প্রতিষ্ঠানের অব্যবসায়ী অর্থায়ন প্রকিয়া সামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা রাখছে।
মঘ উদ্দীপকে উলি­খিত প্রতিষ্ঠানের আয় মানব সেবায় খরচ করা অর্থায়নের সামাজিক দায়বদ্ধতার অন্তর্গত।
অর্থায়নের সামাজিক দায়বদ্ধতা বলতে প্রতিষ্ঠানের স্বার্থসংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের স্বার্থরক্ষার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের সম্পদ সর্বাধিকরণকে বোঝায়। এই স্বার্থসংশ্লিষ্ট পক্ষসমূহ হলোÑ শেয়ারমালিক, ব্যবস্থাপক, ভোক্তা, কাঁচামাল সরবরাহকারী, কর্মকর্তা-কর্মচারী, সরকার, ঋণদাতা ইত্যাদি।
উদ্দীপকে সাঈদ হাসান তার নিজ এলাকায় একটি দাতব্য চিকিৎসা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেন। বিভিন্ন সম্পদশালী ব্যক্তি ও বৈদেশিক সংস্থা এই প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনায় আর্থিক সাহায্য প্রদান করে। এই প্রতিষ্ঠানের আয় জনাব সাঈদ হাসান সম্পূর্ণভাবে মানব সেবায় ব্যয় করেন।
সাঈদ হাসানের প্রতিষ্ঠানটি একটি অব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান। ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের ন্যায় এই ধরনের প্রতিষ্ঠানেরও কিছু সামাজিক দায়বদ্ধতা রয়েছে। সমাজ তথা সমাজের মানুষের কল্যাণে নিয়োজিত হওয়ার মাধ্যমে সামাজিক দায়বদ্ধতা পূরণে সফল হওয়া যায়। উদ্দীপকে সাঈদ হাসানের দাতব্য চিকিৎসা কেন্দ্র হতে প্রাপ্ত আয় মানব সেবায় অর্থাৎ সামাজিক কল্যাণে ব্যয় করে থাকে। তাই বলা যায়, প্রতিষ্ঠানটি অর্থায়নের দ্বারা সামাজিক দায়বদ্ধতাই পালন করছে।

মমমপ্রশ্ন৮ জনাব শাহীন একজন নতুন বিনিয়োগকারী। তিনি ২৫,০০,০০০ টাকা মূলধন নিয়ে শেয়ার ব্যবসায় আরম্ভ করেন। ২৫,০০,০০০ টাকা দিয়ে তিনি আশা কোম্পানির শেয়ার ক্রয় করেন। পোশাক শিল্পে অগ্নিকাণ্ডের ফলে জনাব শাহীনের লাভের পরিবর্তে মূলধন হ্রাস পেল। আর্থিক অবস্থার কথা ভেবে একজন বিনিয়োগ পরামর্শদাতার নিকট পরামর্শ চাইলে তিনি পরবর্তীতে তাকে একাধিক প্রকল্পে বিনিয়োগ করার পরামর্শ দেন। [য. বো. ১৭]
ক. অর্থায়ন কী? ১
খ. মুনাফা সর্বোচ্চকরণ বলতে কী বোঝ? ২
গ. শাহীনের বিনিয়োগে অর্থায়নের কোন নীতিটি লঙ্ঘিত হয়েছে? ব্যাখ্যা করো। ৩
ঘ. জনাব শাহীনকে একাধিক প্রকল্পে বিনিয়োগের পরামর্শ কতটা যৌক্তিক বলে তুমি মনে করো? ৪
৮ নং প্রশ্নের উত্তর অ
মক প্রতিষ্ঠানের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থের পরিকল্পনা, অর্থসংস্থান, ব্যবহার এবং নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত কার্যাবলিকে অর্থায়ন বলে।
মখ মুনাফা সর্বোচ্চকরণ বলতে কোনো ফার্ম বা প্রতিষ্ঠানের মুনাফা বৃদ্ধি করাকে বোঝায়।
মুনাফাকে প্রতিষ্ঠানের আর্থিক দক্ষতার মাপকাঠি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সাধারণত বিক্রয় বৃদ্ধি করে, খরচ কমিয়ে এবং পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি করে প্রতিষ্ঠানের মুনাফা সর্বোচ্চ করা যায়। মুনাফা সর্বোচ্চকরণ ধারণাটিতে অর্থের সময়মূল্যের বিষয়টি বিবেচনা করা হয় না।
মগ উদ্দীপকে শাহীনের বিনিয়োগে অর্থায়নের বৈচিত্র্যায়নের নীতিটি লঙ্ঘিত হয়েছে।
বৈচিত্র্যায়নের নীতি বলতে বিনিয়োগকারীর সব অর্থ একটি সম্পদে বিনিয়োগ না করে একাধিক সম্পদে বিনিয়োগ করাকে বোঝায়। এই নীতি অনুসরণ করা হলে ব্যবসায়ের ঝুঁকি হ্রাস পায়।
উদ্দীপকে জনাব শাহীন একজন নতুন বিনিয়োগকারী। তিনি ২৫,০০,০০০ টাকা মূলধন নিয়ে শেয়ার ব্যবসায় শুরু করেন। তিনি এই মূলধন দিয়ে আশা কোম্পানির শেয়ার ক্রয় করেন। অর্থাৎ তিনি তার সকল অর্থ একটি প্রকল্পে বিনিয়োগ করেন। সুতরাং, তিনি এক্ষেত্রে অর্থায়নের বৈচিত্র্যায়নের নীতিটি অনুসরণ করেননি। কেননা, একাধিক প্রকল্পে বিনিয়োগ করার সুযোগ থাকলেও তিনি একটিমাত্র কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়োগ করেছেন।
মঘ উদ্দীপকে অর্থায়নের বৈচিত্র্যায়নের নীতি অনুযায়ী জনাব শাহীনকে একাধিক প্রকল্পে বিনিয়োগের পরামর্শ দেয়া সম্পূর্ণ যৌক্তিক।
অর্থায়নের বৈচিত্র্যায়নের নীতি অনুযায়ী একজন বিনিয়োগকারীকে একটি প্রকল্পে বিনিয়োগের পরিবর্তে একাধিক প্রকল্পে বিনিয়োগ করার উৎসাহ দেয়া হয়। এর ফলে কোনো একটি প্রকল্পে লোকসান হলেও অন্যগুলোর অর্জিত মুনাফা দিয়ে তা পুষিয়ে নেয়া যায়।
উদ্দীপকে জনাব শাহীন শুধু আশা কোম্পানির শেয়ারেই বিনিয়োগ করেন। আশা কোম্পানিতে অগ্নিকাণ্ডের ফলে জনাব শাহীনকে লোকসানের শিকার হতে হয়। তাই তিনি একজন বিনিয়োগ পরামর্শকের কাছে পরামর্শ চান। ঐ পরামর্শক তাকে একাধিক প্রকল্পের বিনিয়োগ করতে বলেন।
বৈচিত্র্যায়নের নীতি অনুযায়ী একাধিক প্রকল্পে বিনিয়োগ করলে জনাব শাহীনের বিনিয়োগের ঝুঁকি হ্রাস পাবে। কেননা, একটি প্রকল্পের ক্ষতি হলেও অন্যগুলোতে মুনাফা হতে পারে। এতে সামগ্রিকভাবে জনাব শাহীন ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না। সুতরাং, জনাব শাহীনকে এরূপ পরামর্শ দেয়া যুক্তিযুক্ত হয়েছে।

মমমপ্রশ্ন৯ মি. রাকিব ও মি. সাকিব দুইজনই চাকরিজীবী। রাকিবের কর্মরত প্রতিষ্ঠানটি মূলত জনকল্যাণের উদ্দেশ্যে পরিচালিত। জনগণের জন্য প্রতিষ্ঠানটি সেতু, রাস্তাঘাট, ফ্লাইওভার নির্মাণ করে। এই প্রতিষ্ঠানের আয়ের উৎস জনগণের পরিশোধিত ভ্যাট, ট্যাক্স, শুল্ক ইত্যাদি। অন্যদিকে, সাকিবের কর্মরত প্রতিষ্ঠানটি স্বনামধন্য ঔষধ উৎপাদক। সাকিব উক্ত প্রতিষ্ঠানের আর্থিক ব্যবস্থাপক। সম্প্রতি সাকিব ঔষধ উৎপাদনের পাশাপাশি খাদ্যপণ্য, তেল, সাবান ও শ্যাম্পু উৎপাদনেও গুরুত্বারোপ করেন। [ব. বো. ১৭]
ক. অর্থায়ন কাকে বলে? ১
খ. মুনাফা ও তারল্যের মধ্যে কী ধরনের সম্পর্ক বিদ্যমান? ব্যাখ্যা করো। ২
গ. উদ্দীপকের মি. রাকিবের প্রতিষ্ঠানের অর্থায়নের ধরন ব্যাখ্যা করো। ৩
ঘ. উদ্দীপকের মি. সাকিবের প্রস্তাবটি অর্থায়নের নীতিমালার আলোকে বিশ্লেষণ করো। ৪
৯ নং প্রশ্নের উত্তর অ
মক অর্থায়ন হলো একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ, বিনিয়োগ এবং নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত কার্যাবলি সম্পন্ন করা হয়।
মখ মুনাফা ও তারল্যের মধ্যে বিপরীতমুখী সম্পর্ক বিদ্যমান।
প্রতিষ্ঠানে অধিক তারল্য সংরক্ষণ করা হলে বিনিয়োগের পরিমাণ কমে যায়। ফলে মুনাফার পরিমাণও কমে যায়। আবার কম তারল্য সংরক্ষণ করলে প্রতিষ্ঠান দায় পরিশোধে ব্যর্থ হতে পারে। তবে এক্ষেত্রে বিনিয়োগের পরিমাণ বাড়ে বিধায় মুনাফার পরিমাণও বাড়ে। অর্থাৎ তারল্য ও মুনাফার মধ্যে বিপরীতমুখী বা ঋণাÍক সম্পর্ক রয়েছে।
সহায়ক তথ্য
তারল্য : যেকোনো পণ্য, সম্পদ বা সিকিউরিটি বিক্রয় করে দ্রুত নগদ অর্থে রূপান্তরযোগ্যতাকে তারল্য বলে।
মগ উদ্দীপকে মি. রাকিবের প্রতিষ্ঠানের অর্থায়নের ধরনটি হলো সরকারি অর্থায়ন।
সরকারি অর্থায়ন বলতে রাষ্ট্র বা সরকারের অর্থ সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যের সমষ্টিকে বুঝায়। অর্থাৎ সরকারের বার্ষিক ব্যয় কোন কোন খাতে কি পরিমাণ হবে এবং সেই অর্থ কোন কোন উৎস হতে সংগ্রহ করা হবে তা নির্ধারণ করাই হলো সরকারি অর্থায়ন। এরূপ অর্থায়নের মূল লক্ষ্য হলো সমাজকল্যাণ বা জনকল্যাণ।
উদ্দীপকে মি. রাকিব একজন চাকরিজীবি। তার প্রতিষ্ঠানটি মূলত জনকল্যাণের উদ্দেশ্যে পরিচালিত। জনগণের জন্য প্রতিষ্ঠানটি প্রায়ই সেতু, রাস্তাঘাট ও ফ্লাইওভার নির্মাণ করে। অর্থাৎ রাকিবের প্রতিষ্ঠানটির মূল লক্ষ্য হলো সমাজকল্যাণ। আবার এই প্রতিষ্ঠানটির আয়ের উৎস হলো জনগণের পরিশোধিত ভ্যাট, ট্যাক্স , শুল্ক ইত্যাদি। অর্থাৎ দেশের সার্বিক উন্নয়নে প্রতিষ্ঠানটি অর্থায়ন করছে বিধায় প্রতিষ্ঠানের অর্থায়নটি নিঃসন্দেহে সরকারি অর্থায়ন।
মঘ উদ্দীপকে মি. সাকিবের প্রস্তাবটি অর্থায়নের পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়নের নীতির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।
পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়নের নীতি বলতে বিনিয়োগযোগ্য সকল অর্থ একটি সম্পদে বিনিয়োগ না করে একাধিক সম্পদে বিনিয়োগ করাকে বোঝায়।
উদ্দীপকে মি. সাকিব একজন চাকরিজীবী। তার প্রতিষ্ঠানটি হলো একটি স্বনামধন্য ঔষধ কোম্পানি। সম্প্রতি সাকিব ঔষধ উৎপাদনের পাশাপাশি খাদ্যপণ্য, তেল, সাবান ও শ্যাম্পু উৎপাদনে গুরুত্বারোপ করেন।
অর্থাৎ সাকিব একটি পণ্য উৎপাদনের পরিবর্তে একাধিক পণ্য উৎপাদনের প্রস্তাব দেয়। এতে একটি পণ্যের ওপর ক্ষতি হলেও অন্যান্য পণ্যের মুনাফা দ্বারা এ ক্ষতি পুষিয়ে নেয়া সম্ভব। ফলশ্র“তিতে ব্যবসায়ের ঝুঁকি হ্রাস পাবে। এভাবে একটি সম্পদের পরিবর্তে একাধিক সম্পদে বিনিয়োগের প্রস্তাব করায় সাকিবের প্রস্তাবটি অর্থায়নের পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়নের নীতি অনুযায়ী যৌক্তিক।

মমমপ্রশ্ন১০ আশা লি. খেলনা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপক জনাব হাসান ব্যবসায় সম্প্রসারণের জন্য নতুন তিনটি বিনিয়োগ ক্ষেত্র চিহ্নিত করেছেন; সেগুলো হলো বারবিডল, টমক্যাট ও মিকিমাউস। প্রকল্পে বিনিয়োগের জন্য জনাব হাসান ১৩% চক্রবৃদ্ধি সুদে ১০ বছরের জন্য ৩০ লক্ষ টাকা ‘ক’ ব্যাংক হতে ঋণ করেন। তিনি ঋণকৃত সম্পূর্ণ টাকা টমক্যাট প্রকল্পে বিনিয়োগের জন্য পরিচালনা পর্ষদে প্রস্তাব উপস্থাপন করেন। পরিচালনা পর্ষদ জনাব হাসানের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে তিনটি প্রকল্পেই বিনিয়োগের সুপারিশ করে। [ঢা. বো. ১৬]
অ ক. তারল্য কী? ১
খ. ঝুঁকি ও মুনাফার সম্পর্ক ব্যাখ্যা করো। ২
গ. উদ্দীপকে বর্ণিত জনাব হাসান অর্থায়নের কোন উৎস হতে অর্থ সংগ্রহ করেছেন? ব্যাখ্যা করো। ৩
ঘ. উদ্দীপকে বর্ণিত পরিচালনা পর্ষদ জনাব হাসানের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে অর্থায়নের যে নীতি গ্রহণের সুপারিশ করেছে তা বিশ্লেষণ করো। ৪
১০ নং প্রশ্নের উত্তর অ
মক প্রতিষ্ঠানে যেসব স্বল্পমেয়াদি দায়ের সৃষ্টি হয় তা পরিশোধ করার ক্ষমতাকে তারল্য বলে।
মখ কোনো প্রকল্পে অর্থ বিনিয়োগ করে বাড়তি উপার্জন করাই মুনাফা।
আর মুনাফা পাওয়ার অনিশ্চয়তা হলো ঝুঁকি। ঝুঁকি ও মুনাফা ওতপ্রোতভাবে জড়িত। অধিক মুনাফা অর্জন করতে হলে অধিক ঝুঁকি গ্রহণ করতে হয়। আবার ঝুঁকি কম গ্রহণে মুনাফা হ্রাস পায়। এজন্য প্রতিষ্ঠানকে ঝুঁকি ও মুনাফা সহনীয় মাত্রায় রাখতে হয়। সুতরাং বলা যায়, ঝুঁকি ও মুনাফার মাঝে ধনাÍক বা সমমুখী সম্পর্ক বিদ্যমান।
মগ উদ্দীপকে বর্ণিত জনাব হাসান অর্থায়নের দীর্ঘমেয়াদি উৎস হতে অর্থ সংগ্রহ করেছেন।
পাঁচ বছরের অধিক সময়ের জন্য প্রতিষ্ঠান যে অর্থায়ন করে তাকে দীর্ঘমেয়াদি অর্থায়ন বলে। দীর্ঘমেয়াদি সম্পদ ক্রয়ের জন্য দীর্ঘমেয়াদি অর্থায়নের সহায়তা গ্রহণ করা হয়।
উদ্দীপকে আশা লি. তার বিনিয়োগ সম্প্রসারণের জন্য চক্রবৃদ্ধি সুদে ১০ বছরের জন্য ৩০ লক্ষ টাকা ব্যাংক হতে ঋণ গ্রহণ করে। যেহেতু উক্ত অর্থায়নের সময় ৫ বছরের অধিক এবং এ অর্থ ব্যবসা সম্প্রসারণে (দীর্ঘমেয়াদি সম্পদ) ব্যবহৃত হবে, সেহেতু এটি দীর্ঘমেয়াদি অর্থায়ন।
মঘ উদ্দীপকে বর্ণিত পরিচালনা পর্ষদ জনাব হাসানের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে অর্থায়নের বৈচিত্র্যায়ন বা বহুমুখীকরণ নীতি গ্রহণের সুপারিশ করেছে।
সমুদয় অর্থ একটি ব্যবসায় বা প্রকল্পে বিনিয়োগ না করে একাধিক ব্যবসায়ে বিনিয়োগ করাকে বৈচিত্র্যায়নের নীতি বলে।
ভবিষ্যতে সৃষ্ট ঝুঁকি হ্রাস করতে উদ্দীপকে বর্ণিত পরিচালনা পর্ষদ অর্থায়নের বৈচিত্র্যায়ন নীতির আলোকে পরামর্শ দিয়েছে। এক্ষেত্রে জনাব হাসান তার সমুদয় অর্থ একটি প্রকল্পে বিনিয়োগ না করে একাধিক প্রকল্পে বিনিয়োগ করতে পারেন। এতে তার একটি প্রকল্পের সফলতার সাথে অন্য প্রকল্পের ব্যর্থতা সমন্বিত হবে।
উদ্দীপকে আশা লি. একটি খেলনা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান। এটি তিনটি বিনিয়োগ প্রকল্পের কথা ভাবছেÑ বারবিডল, টমক্যাট ও মিকিমাউস। এজন্য প্রতিষ্ঠানটি ৩০ লক্ষ টাকার ঋণ গ্রহণ করে। কিন্তু প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপক জনাব হাসান ঋণকৃত সম্পূর্ণ অর্থ টমক্যাট প্রকল্পে বিনিয়োগ করার প্রস্তাব করে, যা অর্থায়নের বৈচিত্র্যায়নের নীতিকে লঙ্ঘন করে। তাই পরিচালনা পর্ষদ জনাব হাসানের প্রস্তাবটি প্রত্যাখ্যান করে তিনটি প্রকল্পে বিনিয়োগের সুপারিশ করে।

মমমপ্রশ্ন১১ ‘অ’ কোম্পানি শুধু মিনিপ্যাক শ্যাম্পু বিপণন করে থাকে এবং সুনাম বৃদ্ধি ও ব্যবসায় সম্প্রসারণের লক্ষ্যে তারা তাদের মোট লাভের ২৫% লভ্যাংশ হিসেবে শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে বণ্টন করে থাকে। অপরদিকে ‘ই’ কোম্পানি মিনিপ্যাক শ্যাম্পুর পাশাপাশি ফ্যামিলি সাইজ শ্যাম্পু, বোতলজাত শ্যাম্পু, হারবাল শ্যাম্পু বিপণন করে এবং তাদের মোট লাভের ৮% লভ্যাংশ হিসেবে শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে বণ্টন করে থাকে। [রা. বো. ১৬]
অ ক. তারল্য ও মুনাফা নীতি কী? ১
অ খ. অর্থায়ন বলতে তহবিল সংগ্রহ করাকেই বোঝায়? বুঝিয়ে লেখো। ২
অ গ. কোম্পানি ‘ই’ ঝুঁকি হ্রাসকরণে অর্থায়নের কোন নীতিটি অনুসরণ করেছে? ব্যাখ্যা করো। ৩
অ ঘ. উদ্দীপকের কোন কোম্পানিটি অর্থায়নের সম্পদ সর্বাধিকরণের লক্ষ্যটি অর্জনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে তা বিশ্লেষণপূর্বক আলোচনা করো। ৪
১১ নং প্রশ্নের উত্তর অ
মক ব্যবসায়ের প্রতিটি আর্থিক সিদ্ধান্ত এমনভাবে গ্রহণ করা উচিত যাতে তারল্য ও মুনাফা উভয়ই বজায় থাকে, এটিই তারল্য ও মুনাফা নীতি।
মখ ব্যবসায় অর্থায়ন শুধু তহবিল সংগ্রহের কাজেই সীমাবদ্ধ নয়। অর্থায়ন হচ্ছে অর্থ সংগ্রহ এবং সংগৃহীত অর্থের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত কার্যাবলি। অর্থাৎ তহবিল সম্পর্কে পরিকল্পনা, অর্থ সংস্থান, সংরক্ষণ, ব্যবহার এবং নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কিত কাজকে অর্থায়ন বলে।
মগ উদ্দীপকে কোম্পানি ‘ই’ ঝুঁকি হ্রাসকরণে অর্থায়নের পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়নের নীতিটি অনুসরণ করেছে।
যে নীতি অনুযায়ী বিনিয়োগকারী ঝুঁকি হ্রাসের লক্ষ্যে সব অর্থ একটি প্রকল্পে বিনিয়োগ না করে একাধিক প্রকল্পে বিনিয়োগ করে তাকে পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়ন নীতি বলে।
উদ্দীপকে ‘ই’ কোম্পানি মিনিপ্যাক শ্যাম্পুর পাশাপাশি ফ্যামিলি সাইজ শ্যাম্পু, বোতলজাত শ্যাম্পু ও হারবাল শ্যাম্পু বিপণন করে। অর্থাৎ ‘ই’ কোম্পানি তাদের সমুদয় অর্থ একটি প্রকল্পে বিনিয়োগ না করে চারটি প্রকল্পে বিনিয়োগ করেছে। তাই একটিতে ক্ষতি হলেও অন্যগুলোর মুনাফা দিয়ে তা পুষিয়ে নেয়া সম্ভব। বৈশিষ্ট্য বিবেচনায় ঝুঁকি হ্রাসকরণে ‘ই’ কোম্পানি কর্তৃক গৃহীত পদক্ষেপ অর্থায়নের পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়নের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ। সুতরাং কোম্পানি ‘ই’ পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়নের নীতি অনুসরণ করেছে।
মঘ উদ্দীপকে কোম্পানি ‘অ’ অর্থায়নের সম্পদ সর্বাধিকরণের লক্ষ্যটি অর্জনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।
সম্পদ সর্বাধিকরণ বলতে শেয়ারের মূল্য বৃদ্ধিকরণ বা সর্বাধিকরণকেই বোঝায়। ফার্মের বা প্রতিষ্ঠানের মালিকদের সম্পদ শেয়ারের বর্তমান বাজারমূল্য দ্বারা পরিমাপ করা হয়।
উদ্দীপকে ‘অ’ কোম্পানি সুনাম বৃদ্ধির লক্ষ্যে তাদের মোট লাভের ২৫% লভ্যাংশ হিসেবে শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে বণ্টন করে। অন্যদিকে, ‘ই’ কোম্পানি মোট লাভের ৮% লভ্যাংশ হিসেবে শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে বণ্টন করে থাকে।
এখানে ‘অ’ কোম্পানি ‘ই’ কোম্পানির তুলনায় বেশি হারে লভ্যাংশ প্রদান করে। অতিরিক্ত পরিমাণ লভ্যাংশ প্রদানের মাধ্যমে শেয়ারমালিকদের আস্থা অর্জন সহজ হয়ে যায়। আবার এই সুনামের ওপর ভিত্তি করেই ভবিষ্যতে শেয়ারের বাজারমূল্য বৃদ্ধি পেতে পারে। আর সম্পদ সর্বাধিকরণ লক্ষ্যটিও শেয়ারের বাজারমূল্য দ্বারা নির্ধারণ করা হয়। সুতরাং ‘অ’ কোম্পানি অর্থায়নের সম্পদ সর্বাধিকরণের লক্ষ্যে কাজ করছে বলা যেতে পারে।

মমমপ্রশ্ন১২ সান লি. এবং মুন লি. উভয়ই উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান। সান প্রতিষ্ঠানটি জামানতের ভিত্তিতে ঋণ গ্রহণ এবং অর্থের প্রাপ্যতা অনুসারে ব্যয় নির্ধারণ করে থাকে। অন্যদিকে মুন প্রতিষ্ঠানটি জামানত ছাড়াই ঋণ গ্রহণ এবং ব্যয় নির্ধারণ করে অর্থসংস্থান করে থাকে। [দি. বো. ১৬]
অ ক. তারল্য ও মুনাফা নীতি কী? ১
অ খ. পোর্টফোলিও নীতি কেন গ্রহণ করা হয়? ২
অ গ. সান লি. কোন ধরনের অর্থসংস্থান করে থাকে? ব্যাখ্যা করো। ৩
অ ঘ. সান লি. ও মুন লি.-এর মধ্যে কোন প্রতিষ্ঠানটি জনগণের কল্যাণ সাধনের জন্য অধিক ভ‚মিকা রাখে? ৪
১২ নং প্রশ্নের উত্তর অ
মক তারল্য ও মুনাফা নীতি বলতে বোঝায় ব্যবসায়ের প্রতিটি আর্থিক সিদ্ধান্ত এমনভাবে গ্রহণ করা উচিত যাতে ব্যবসায়ে তারল্য ও মুনাফা উভয়ই বজায় থাকে।
মখ বিনিয়োগের ঝুঁকি হ্রাসের উদ্দেশ্যেই পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়ন নীতি গ্রহণ করা হয়।
পোর্টফোলিও বৈচিত্র্যায়ন নীতি অনুযায়ী একজন বিনিয়োগকারী তার সব অর্থ একটি সম্পদ বা খাতে বিনিয়োগ না করে একাধিক সম্পদ বা খাতে বিনিয়োগ করে। এতে একটি প্রকল্পে ক্ষতি হলে তা অন্যান্য প্রকল্পের মুনাফার সাথে সমন্বয় করা যায়। এতে বিনিয়োগের ঝুঁকি হ্রাস পায়।
মগ উদ্দীপকে সান লি. ব্যবসায় অর্থায়ন করেছে।
ব্যবসায় অর্থায়ন হলো ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের আর্থিক পরিকল্পনা প্রণয়ন, তহবিল সংগ্রহ, বিনিয়োগ ও তহবিল বণ্টন সংক্রান্ত কাজের সমষ্টি। অর্থায়নের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ধরন হলো ব্যবসায় অর্থায়ন।
উদ্দীপকে সান লি. একটি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান। ব্যবসায় পরিচালনার জন্য প্রতিষ্ঠানটি জামানতের ভিত্তিতে ঋণ নেয়। এরূপ ঋণ ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের অর্থসংস্থানের উৎস হিসেবে বিবেচিত হয়। প্রতিষ্ঠানটি অর্থের প্রাপ্যতা অনুসারে ব্যয় নির্ধারণ করে থাকে। অর্থাৎ পণ্য বিক্রয় করে কী পরিমাণ আয় পাওয়া যাবে তার সাথে ব্যয় সমন্বয় করা হয়। প্রতিষ্ঠানটির এই কার্যাবলি ব্যবসায় অর্থায়নের বৈশিষ্ট্য বহন করে। তাই উদ্দীপকে সান লি. এর অর্থসংস্থান প্রক্রিয়াটি ব্যবসায় অর্থায়ন।
মঘ উদ্দীপকে মুন লি. প্রতিষ্ঠানটি সরকারি অর্থায়নের মাধ্যমে জনগণের কল্যাণ সাধনে অধিক ভ‚মিকা রাখে।
সরকারি অর্থায়নে প্রথমে ব্যয় নির্ধারণ করে পরবর্তীকালে আয়ের উৎস নির্ধারণ করা হয়। এ ধরনের অর্থায়নের মূল লক্ষ্য হলো সমাজকল্যাণ। মূলত জনগণের কল্যাণের উদ্দেশ্যে দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়ন যেমন: রাস্তাঘাট নির্মাণ, হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা প্রভৃতি কাজের জন্য সরকারি অর্থায়ন করা হয়।
উদ্দীপকে সান লি. প্রতিষ্ঠানটি অর্থের প্রাপ্যতা অনুসারে ব্যয় নির্ধারণ করে। অন্যদিকে মুন লি. ব্যয় নির্ধারণ করে অর্থসংস্থান করে। অর্থাৎ সান লি. ব্যবসায় অর্থায়ন ও মুন লি. সরকারি অর্থায়ন করেছে।
সরকারি অর্থায়ন করায় মুন লি.-এর মূল লক্ষ্য অবশ্যই সমাজকল্যাণ। সমাজের সার্বিক কল্যাণ সাধনের উদ্দেশ্যেই প্রতিষ্ঠানটি ব্যয় নির্ধারণ করে। পরবর্তী সময়ে এই ব্যয় নির্বাহের জন্য সরকারের কাছ থেকে জামানত ছাড়াই অর্থসংস্থান করে। তাই বলা যায়, মুন লি. প্রতিষ্ঠানটির কাছে জনগণের কল্যাণ সাধনই মুখ্য।

 

প্রিয় জনের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply